অভ্যন্তরীণ সমস্যায় কারও হস্তক্ষেপের দরকার নেই: প্রধানমন্ত্রী

অভ্যন্তরীণ সমস্যায় কারও হস্তক্ষেপের দরকার নেই: প্রধানমন্ত্রী

মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের লক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক মানের স্থাপত্য কীর্তি বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘরের উদ্বোধন করেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

এসময় ১৯৯৬ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় এসে অশান্ত পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ফেরাতে শান্তিচুক্তি সইয়ের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের অভ্যন্তরীণ কোনো সমস্যা সমাধানে কারও হস্তক্ষেপের দরকার নেই। অভ্যন্তরীণ সমস্যা দেশের নাগরিকরাই সমাধানে সক্ষম। আমরা কিন্তু নিজেরা করেছি। বাইরের কাউকে এখানে হাত দিতে দিইনি। কারণ এটা আমার নিজের দেশের ভেতরে। অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। আমার দেশের নাগরিক। তাদের কোনো সমস্যা থাকলে আমরা সমাধান করব। সেভাবেই আমরা সেটা করতে পেরেছি।

বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর উদ্বোধন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর উদ্বোধন করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। আজকের যে সামরিক জাদুঘর সেটা নির্মিত হয়েছিল খুব ক্ষুদ্র পরিসরে। বিজয় সরণির পাশে এই জায়গায় জাদুঘরটি প্রস্তুত করা হয়। আমার আকাক্সক্ষা ছিল এটাকে এমনভাবে তৈরি করা যা খুব আকর্ষণীয় স্থান হবে।

তারই পাশে আরেকটি জায়গায় আমি প্রথমবার যখন সরকারে আসি তখন প্ল্যানেটোরিয়াম করি। যে কোনো কাজ প্রথমবার যখন করতে গেছি প্রতিটি ব্যাপারেই পরবর্তী সরকার এসে আমার বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। প্ল্যানেটোরিয়াম যখন আমি করলাম এজন্য আমার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দেওয়া হয়েছিল, কেন আমি ঠিক জানি না।

শেখ হাসিনা বলেন, প্ল্যানেটোরিয়াম যখন আমরা করেছিল তখনই সমস্ত ইউটিলিটিগুলো যেন সামরিক জাদুঘর এবং প্ল্যানেটোরিয়াম সবাই যেন শেয়ার করতে পারে সে ব্যবস্থা নিয়েছিলাম। সেই সঙ্গে সঙ্গে সরকার প্রধান হিসেবে বিভিন্ন দেশে আমরা যাই বা কোনো সরকার প্রধান যখন আসে আমাদের দেশে বেড়াতে তখন যেসব উপহার দেয় সেগুলো সংরক্ষণ করা এবং দৃষ্টিনন্দনভাবে রাখা ও মানুষের সামনে তুলে ধরা… আমাদের একটি তোসাখানা জাদুঘর আছে সেটা আমাদের বঙ্গভবনে… ওটা স্টোর রুমের মতো সব জিনিসগুলো রাখা। সেগুলো মানুষের প্রদর্শন করার ব্যবস্থাটাও আমি নিই।

একইসঙ্গে আমরা তোসাখানা জাদুঘরও করি এবং এটা সামরিক বাহিনীর হাতেই দিয়েছিলাম। একটা কমিটি আমরা করে দেই। সেই সঙ্গে সামরিক জাদুঘরটাকে অত্যন্ত আধুনিক করে গড়ে তোলা, যেন সেটা এত দৃষ্টিনন্দন হয় যে সারা বিশ্বে যত সামরিক জাদুঘর হয়েছে তার মধ্যে শ্রেষ্ঠ জাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়। সেটাই আমার আকাক্সক্ষা ছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সামরিক জাদুঘরের পাশে একটি জায়গা ছিল। সেখানে একটি শিশু পার্ক করা হয়। কোনো একজন, আমি নাম বলতে চাই না, হয়তো এখন নাম শুনলে লজ্জা পাবেন। তিনি হঠাৎ দাবি করে বসলেন, সেখানে মাল্টি স্টোরিড বিল্ডিং করবেন। আমার তখন মিলিটারি সেক্রেটারি ছিলেন মেজর জেনারেল জয়নাল আবেদীন। আমি তাকে বললাম, এই জায়গাটা কিছুতেই মাল্টি স্টোরিড বিল্ডিং করা যাবে না। এটা করতে গেলে সামরিক জাদুঘর এবং প্ল্যানেটোরিয়াম সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যাবে। ওখানে আমি শিশু পার্ক করে দেবো।

এছাড়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল শেখ আবদুল হান্নান, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আবু হেনা মোস্তফা কামাল প্রমুখ। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রিপরিষদের সদস্যবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, পদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা।

মুক্তিযুদ্ধে সশস্ত্র বাহিনীর বীরত্বগাঁথা এবং পাকিস্তানি বাহিনীর কাছ থেকে অর্জিত বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র এবং সামরিক যানবাহন এই জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে।

বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘরটি বঙ্গবন্ধু নভো থিয়েটারের পশ্চিম পাশে ১০ একর জমিতে নির্মিত হয়েছে। যেখানে স্বাধীনতার আগে ও পরে সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উপস্থাপন করা হয়েছে। জাদুঘরটিতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ নৌবাহিনী এবং বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর জন্য নির্ধারিত গ্যালারিসহ ছয়টি পৃথক অংশ রয়েছে এবং প্রতিটি বাহিনীর গ্যালারিতে রয়েছে বঙ্গবন্ধু কর্নার।

এখানে আর্ট গ্যালারিসহ মাল্টিপারপাস এক্সিবিশন গ্যালারি, ব্রিফিং রুম, স্যুভেনির শপ, ফাস্ট এইড কর্নার, মুক্তমঞ্চ, থ্রিডি সিনেমা হল, মাল্টিপারপাস হল, সেমিনার হল, লাইব্রেরি, আর্কাইভ, ভাস্কর্য, মুর্যাযল, ক্যাফেটারিয়া, আলোকোজ্জ্বল ঝর্ণা ও বিস্তীর্ন উন্মুক্ত প্রান্তর সবকিছু মিলে একটি চমৎকার দৃষ্টি নন্দন প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত