আশুলিয়ায় মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে :নেই আইনি ব্যবস্থা: পর্ব-২

আশুলিয়ায় মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে :নেই আইনি ব্যবস্থা: পর্ব-২

সাঈম সরকারঃ আশুলিয়ায় কালিয়াকৈর-নবীনগর মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে। দখল মুক্ত রাখতে জোড়ালো ভাবে নেই কোন আইনি ব্যবস্থা বা শাস্তির বিধান। যার কারনে, এক শ্রেনীর কিছু অসাধু রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্বগণ অবাধে ফুটপাতকে অবৈধ্য ভাবে ইজারা দিয়ে এবং চাদাবাজী করে বছরে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। দূর্নীতির টাকায় আঙ্গুল ফুলে হচ্ছে কলাগাছ। মাঝে মধ্যে সরকারকে এবং লোক দেখানো ফুটপাত উচ্ছেদ অভিযান চললেও তাহা মাত্র কয়েক মিনিট বা কয়েক ঘন্টার জন্য। যেমন সাড়া বছরে বিশেষ কয়েক দিন এবং ভি.আই.পি চলাচলের সময়টা পেরিয়ে গেলে যেমন, চিত্র তেমনি রয়ে যায়। এক দিকে স্থায়ী ভাবে ফুটপাত উচ্ছেদ না হওয়ায় হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে দূর-দূরান্ত গামী মালবাহী ও যাত্রী বাহী গাড়ীর ড্রাইভার এবং যাত্রীদের । আবার রোদ-বৃষ্টি, ধুলা বালি, উপেক্ষা করে সারাদিন অক্লান্ত পরিশ্রম মাধ্যমে যানজট নিরসনে ব্যর্থ দাপিয়ে বেড়াতে দেখা যায় ট্রাফিক পুলিশদের। অপর দিকে আনন্দ ফুর্তিতে প্রতিমাসে কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, ভারত, মালায়শিয়া সহ বিশে^র বিভিন্ন রাষ্ট্রে ভ্রমন করতে দেখা যায় অসাধু ও অবৈধ্য ফুটপাত ইজারাদার এবং চাঁদাবাজদের কে।
সড়েজমিনে দেখা যায়ঃ আশুলিয়া থানার প্রধান গেইটের উত্তর পাশ হইতে জিরানী বাজার পর্যন্ত। মহাসড়কের পশ্চিম পাশ, সড়কের একলেন সহ অবৈধ দখলে গড়ে উঠেছে সু-বিশাল অবৈধ কাঁচা বাজার, মাছ বাজার, ফল পট্টি, রেডি গার্মেন্টস ও জুতার মার্কেট সহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের হাট বাজার। আশুলিয়া থানার প্রধান গেইটের উত্তর পাশ হইতে ইনভেষ্টর ক্লাব পর্যন্ত ফুটপাতে বিভিন্ন দোকান সহ কয়েকশত মাছ বাজার ও কাঁচা বাজার রয়েছে। থানার কেশিয়ার পরিচয় দানকারি শাহ-আলম, শাহজাহান দুই ভাই ও মনির নামে অসাধু ব্যক্তিদয় ঐ ফুটপাতের প্রতিটা দোকান হইতে দৈনিক সন্ধায়-১২০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করে আসছে বলে জানায় ফুটপাতের হকার্সগণ। এব্যপারে শাহ-আলম সংবাদ কর্মীদের জানায়, সবাইকে ম্যানেজ করেই ফুটপাতে দোকান বসাইয়াছে। এই অবৈধ চাঁদার টাকা একা ভোগ করেনা। ডিইপিজেড পুরাতন জোন এর প্রধান গেইট সংলগ্ন ফুট অভার ব্রীজ হইতে বলিভদ্র বাজারের মুখ পর্যন্ত সড়ক বিভাগের পড়ে থাকা খালি জায়গা সহ-ফুটপাত ও সড়কের এক লেন দখল করে গড়ে উঠেছে সু-বিশাল রেডি গার্মেন্টস্ ও জুতার দোকান। যেখানে রয়েছে প্রায় ৭ থেকে ৮ শত দোকান পাট। ফুটপাতের হকার্সগণ জানায়ঃ এখান থেকে প্রতিদিন সন্ধায় প্রতিটা দোকান থেকে ১৫০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করে আসছে জাহাঙ্গীর ও আতিক নামে দুই জন অসাধু ব্যক্তি। তারা প্রতিটা হকার্সের নিকট থেকে পজিশন বাবদ গড়ে ২৫ হাজার টাকা অগ্রীম দিতে হয়েছে। যার জন্য প্রতি জন হকার্স জাহাঙ্গীর গং দের নিকট জিম্মী রয়েছে। বাধ্যতা মূলক তাদেরকে চাঁদা দিতে হয়। ওনারা আরো জানায় ঃ চাঁদার টাকা না দিলে জাহাঙ্গীর ও আতিকের নেতৃত্বে ফুটপাত ছেড়ে চলে যেতে হয়। এব্যপারে জাহাঙ্গীরকে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে সাংবাদিকদের বলেন, ফুটপাতের মালিক হলেন মন্ডল মার্কেটের মালিক লতিফ মন্ডল। তার কথামত ফুটপাত পরিচালিত হয়। হকার্সদের নিকট থেকে আদায় করা সকল টাকা পয়সা উনার কাছেই জমা দিয়ে থাকি। তাছাড়া এসব টাকা পয়সা উনি একা ভোগ করেনা। ওনার সহ যোগি অঙ্গ সংগঠনের অনেক নেতাকেই সমপরিমান ভাগ দিতে হয়। এমনকি থানা পুলিশ থেকে শুরু করে নামধারী স্থানীয় সাংবাদিক নেতাদের ম্যানেজ করে তবেই চাঁদা আদায় করা হয়ে থাকে। এই ফুটপাতে ৭/৮শত দোকান থেকে ১৫০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করা হলে প্রতিদিন
৭০০ ঢ ১৫০ = ১০৫০০০ টাকা মাত্র,
প্রতি মাসে ১০৫০০০ ঢ ৩০ = ৩১৫০০০০ টাকা মাত্র,
প্রতি বছরে ৩১৫০০০০ ঢ ১২ = ৩৭৮০০০০০ টাকা মাত্র।
ফুটপাতে দূর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ টাকার উৎস ঠেকাতে অবশ্যই জোড়ালো ভাবে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে শাস্তি মূলক বিধান থাকা দরকার বলে মনে করেন সমাজের সু-শীল মহল ।………..চলমান

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত