শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
উত্তরায় হাত বাড়ালেই মিলছে ডালায় সাজিয়ে রাখা পণ্য, যাকে এক কথায় বলা হয় মাদক

উত্তরায় হাত বাড়ালেই মিলছে ডালায় সাজিয়ে রাখা পণ্য, যাকে এক কথায় বলা হয় মাদক

উত্তরায় হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক/আজকের আলোকিত সকাল

বিশেষ প্রতিনিধি : রাজধানীর উত্তরা ১০ নং সেক্টরে হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক। প্রশাসনের কঠোর নজরদারি থাকা সত্বেও, ৯ নাম্বার সেক্টর সহ কামারপাড়া বালুমাঠ বস্তি থেকে শুরু করে পুরো ১০ নং সেক্টর ও তুরাগের ওলিতে গলিতে খুব সহজেই মিলছে মাদকদ্রব্য। ১০ নং সেক্টর সহ তুরাগের কয়েকটি মাদকের হটস্পটের মধ্যে উত্তরা ১০ নং সেক্টরের বালুমাঠ সংলগ্ন বস্তি অন্যতম। তুরাগের সুন্দর বন সংলগ্ন রাস্তার উলটো পাশে মুচিপাড়া নামক স্থানটিতে ডালায় সাজিয়ে রাখা পণ্যের মতোই রাখা হয় মাদকদ্রব্য, আর এসকল জায়গায়  রয়েছে স্থানীয়  মাদক ব্যবসায়ী ও  মাদকসেবী। এখানে মাদকসেবীরা চলে আসে ডালায় সাজিয়ে রাখা পণ্য কেনার জন্য। আর মাদক চোরাকারবারিরা অভিনব কৌশলে এখানে মাদক সরবরাহ করে, মাদক সরবরাহের জন্য ব্যবহার করা হয় উঠতি বয়সী কিছু কিশোর কিশোরী, একটি গোপণ সুত্রে জানা গেছে মুচিপাড়ার মাদকদ্রব্য আসে বিভিন্ন জেলা পর্যায়ের পরিবহনের মাধ্যমে। এসে ধউর পুলিশ চেকপোস্টের আগেই নেমে যায় ।

প্রশ্নের জবাবে এক মাদক ব্যবসায়ী বলেন বিভিন্ন জেলা থেকে মাল নিয়ে আসার পর ধউর নেমে লোকাল বাসে উঠে মুচিপাড়া সহ কামারপাড়ার বিভিন্ন স্থানে মাদক পাঠিয়ে থাকি।পুলিশের একটি মামলার সূত্রে জানা গেছে “ধউর থেকে ছেড়ে আসা একটি লোকাল পরিবহন দিয়ে মুচিপাড়া থেকে মাদকদ্রব্য ডেলিভারি হতো রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে।

আরেকদিকে টংঈী তুরাগ নদীর সংলগ্ন হামিম গ্রুপের পিছন দিয়ে একটি রাস্তা রয়েছে শ্রমিকদের নদী পারাপারের জন্য। স্থানটি  মানুষের কাছে গুদারাঘাট বলেই পরিচিত আর এই গুদারাঘাট দিয়েই মাদকের সকল চালান পারাপার হয় অথবা আশপাশের শাখা রাস্তা দিয়ে টংঈী আমতলী থেকে অটোরিকশার সিটের নিচে বা নদীতে থাকা ছোট ছোট নৌকা দিয়ে মাদক পারাপার করে বস্তি সহ আশপাশের এলাকা গুলিতে ছড়ায় বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এছাড়াও ১০নং সেক্টরের সড়কগুলিতে রয়েছে ট্রাক বাস সহ হাজারো ব্রেন্ডের গাড়ির পার্কিং ব্যবস্থা আর এই মাদকের একটি বড় অংশ চলে যায় গাড়ি চালক ও হেল্পারদের কাছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চা বিক্রেতা জানান, এই বালুমাঠ বস্তিঘরের প্রায় প্রতিটি ঘরেই মাদকের ব্যবসা করে, তিনি আরো বলেন মাদক বেচাকেনা করার জন্য ব্যবহার করা হয় কম বয়সি কিশোর কিশোরী, অনেক সময় এসব কিশোর প্রশাসনের হাতে আটক হলেও পাইকারি বিক্রেতা বা গডফাদাররা অদৃশ্য খুঁটির জোরে বারবারই থেকে যায় ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

একটি সূত্র জানায়, উত্তরা ১০নং সেক্টরের বালুমাঠের মাদক চোরাকারবারি ও গডফাদাররা কখনো বস্তিঘর থেকে তেমন বাইরে বের হয় না। আশপাশের  প্রবেশের প্রতিটি রাস্তায় আছে নিজদের  চেকপোস্ট। ফলে চেকপোস্ট দিয়ে প্রশাসনের লোকজন প্রবেশ করার সাথে সাথেই খবর পৌঁছে যায় গডফাদারদের কাছে। ফলে পুলিশ, ডিবি কিংবা অন্য কোন বাহিনী অভিযানে আসলে মাদক সহ গডফাদাররা নিরাপদ স্থানে চলে যায়। এতে করে মাদক বিরোধী অভিযানের সফলতা চুনোপুঁটিদের আটকের মধ্যেই সীমাবদ্ধ আছে। এদিকে তিন হাজারের বেশি প্লট নিয়ে উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরটি সবচেয়ে বড় সেক্টর। অথচ এই সেক্টরে নেই কোনো পার্ক, খেলার মাঠ, সহ চিত্তবিনোদনের নেই কোন ব্যবস্থা। কবরস্থান থাকার কথা ছিল সেটাও নেই। সেক্টরের ভেতরে বিভিন্ন জায়গায় গড়ে ওঠা অবৈধ বস্তির কারণে নিরাপত্তাব্যবস্থাও নাজুক। তাই স্থানীয় বাসীন্দারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ  প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত