উন্নয়নের রূপকার সাভার আশুলিয়া ধামসোনা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম

উন্নয়নের রূপকার সাভার আশুলিয়া ধামসোনা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম

ইফতেখারঃ সাভার আশুলিয়া থানায় ধামসোনা ইউনিয়নের উন্নয়নের রূপকার তৈরি করেছেন অক্লান্ত পরিশ্রমের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম। ধামসোনা ইউনিয়ন রাস্তা ঘাট থেকে শুরু করে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ ও মন্দির নিজ চেষ্টায় অর্থ সহায়তায় বিরল উন্নয়নের ইতিহাস সৃষ্টি করেন চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম। আমরা কয়েকজন সাংবাদিক চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের সাথে দেখা করে জানতে পারলাম, তাঁর জীবনের অনেক অজানা কথা। আমাদেরকে জানান আমি অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া করেছি- এরই উদাহরণ দিতে বলে আমি মাষ্টার্স পরীক্ষা দেওয়ার সময় কোন প্রকার টাকা পয়সা ছিলনা কিন্তু আমার মনে জিৎ করি পরীক্ষা দিতেই হবে, এই বলে আমি একটি শার্ট একটি লুঙ্গি পড়ে বাড়ি থেকে বাহির হয়ে যায়। বিভিন্ন কন্সট্রাকশনের লোকের সাথে কাজ করি। রাত্রে লেখাপড়া করি। রাত্রে ঘুমানোর সময় কোন কিছু না থাকায় এক খন্ড ইট মাথার নিচে দিয়ে ঘুমিয়ে যায়। এই ভাবে আমার কষ্টের জীবন চলে এবং মাষ্টার্স পরীক্ষা দিয়ে ভাল একটা রেজাল্ট করি। এই ভাবে তাঁর কষ্টের জীবন আমাদের সামনে তুলে ধরেন। অনেক খোঁজাখুজি করে কোন চাকুরী না পেয়ে, আমি আমার এক বন্ধুর সহায়তায় তার সাথে জমি ক্রয় বিক্রয় করা শুরু করি। ২/৩ বছর করার পর ভাল একটা লাভবান হয়। এই ভাবেই আমার জীবনটা শুরু করি। অনেক কষ্টের ফলে আল্লাহ্ তায়ালা আজ আমাকে এই অবস্থায় এনেছেন। তাতে আমি আল্লাহ্র কাছে লাখ শুক্রুরিয়া, আল্লাহ্ আমাকে এই সম্মানের জায়গায় নিয়ে এসেছেন। অনেকে বিভিন্ন রকম চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীদের সাথে আমাকে জড়িয়ে অনেক কিছু লেখালেখি করছে। আমি এক হলফে বলতে চাই কেউ যদি আমাকে চাঁদাবাজ সন্ত্রাসের সাথে কর্মকান্ডে দেখে প্রমাণ করতে পারেন, আমি স্বেচ্ছায় ইনশাল্লাহ্ পদত্যাগ করব। এক শ্রেণির লোক আমাকে সামাজিক এবং রাজনৈতিক ভাবে হেয়ও করার জন্য পায়তারা করে চলছে। এদের বিচার আল্লাহ্ করবে।

আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আদর্শে আদর্শিত এবং বঙ্গবন্ধুর কন্যার স্বপ্নের বাংলাদেশ উন্নয়ন ধারাকে ধরে রাখার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাব। আমি চেয়ারম্যান হওয়ার পর, গত ০৩ বছরে আমার ইউনিয়নে যে উন্নয়ন হয়েছে আমি মনে করি অন্য কোন ইউনিয়নে এমন উন্নয়ন হয়নি। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বলতে গিয়ে বলে আমি বর্তমানে বলি ভদ্র বাজার হতে ধামসোনা ইউনিয়ন, শ্রীপুর ফিনিক্স উত্তরপার্শ্বে স্প্রিং মিল হতে নবীনগর কালিয়াকৈর রাস্তা, ড্যান্ডবর নতুনপাড়া হতে সমসের মোড় হাই সাহেবের মোড় পর্যন্ত ড্যান্ডাবর টাইলস্ মোড় মসজিদ হতে মতিপুকুর পর্যন্ত, ড্যান্ডাবর নতুনপাড়া কাঠাল বাঁগান তানবীর আহমেদ মার্কেট মোড় পর্যন্ত, কুদ্দুস সাহেবের বাড়ী হতে ড্যান্ডাবর উত্তরপাড়া মসজিদের মোড় পর্যন্ত ড্যান্ডাবর আইয়ুবনবীর বাড়ী হতে ডাক্তার নিমায়ের মোল্লা বাড়ী পর্যন্ত, পলাশ বাড়ী স্পিকার ফার্ম পলাশ বাড়ী পশ্চিমপাড়া মসজিদ পর্যন্ত, পলাশ বাড়ীর পশ্চিম হতে আব্দুর রশিদ মডেল স্কুল থেকে মন্ডল কোলনী পর্যন্ত দক্ষিণ গাজীচর হতে বটতলা পর্যন্ত। এই ভাবেই আর সিসি’র মাধ্যমে অনেক রাস্তা তৈরি করেছেন। ইনশাল্লাহ্ এই উন্নয়নের ধারাকে ধরে রাখার জন্য বাকী যে ক’দিন আমি মন থেকেই আপ্রাণ চেষ্টা করে যাবো ধরে রাখার জন্য।

আমি অত্র এলাকায় হাজার হাজার লোকের বিচার করেছি। জায়গা জমি নিয়েও বিচার করেছি। ন্যায় ও সত্যের মধ্যে দিয়েই শেষ করেছি। কেউ বলতে পারবে না যে, আমি একটি টাকার বিনিময়ে এই সব বিচার করেছি। কেউ যদি প্রমাণ সহকারে বলতে পারে আমি আবার বলছি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করব। আমাকে সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে হেয়ও করার জন্য কিছু দুষ্কৃতিকারী লোক এ রকম পায়তারা করছে। আমি বিশ্বাস করি আমি ভাল কাজ করলে ভাল রেজাল্ট পাব। আমি প্রতিহিংসার শিকার। এলাকার জনগণ যদি আমার সাথে থাকে ইনশাল্লাহ্ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের ধারাকে ধরে রাখতে অব্যহত থাকবো। সর্বোপরি সবাইকে ভালো থাকেন, ভালো থাকতে চেষ্টা করেন, এই কামনাই আমি করি। পরবর্তী সংখ্যায় আরো উন্নয়ন নিয়ে থাকবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত