শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
কমিউনিটি পুলিশিং হচ্ছে জনগণের সঙ্গে পুলিশের সেতুবন্ধন- একান্ত সাক্ষাৎকারে এআইজি সহেলি ফেরদৌস

কমিউনিটি পুলিশিং হচ্ছে জনগণের সঙ্গে পুলিশের সেতুবন্ধন- একান্ত সাক্ষাৎকারে এআইজি সহেলি ফেরদৌস

এম.ইউ.মাহিম : এআইজি (কমিউনিটি পুলিশিং) সহেলি ফেরদৌস বলেছেন,কমিউনিটি পুলিশিং হচ্ছে অপরাধ সমস্যা সমাধানে পুলিশ ও জনগণের যৌথ অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠার একটি নতুন পুলিশিং দর্শন। আমাদের দেশে পুলিশী কর্মকান্ডে জনগণের অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে কার্যকরভাবে অপরাধ প্রতিরোধের জন্য কমিউনিটি পুলিশিং ধারণা গ্রহণ করা হয়েছে। কমিউনিটি পুলিশিং মূলত একটি প্রতিরোধমূলক পুলিশি ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থায় অপরাধের কারণগুলো অনুসন্ধান করে সেগুলো দূর করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।অপরাধের কারণগুলো দূর করা যেহেতু পুলিশের একার পক্ষে সম্ভব নয় তা-ই এই কাজে অন্যান্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করে জনগণের সঙ্গে পুলিশের সৌহাদ্যপূর্ণ সম্পর্কের সেতুবন্ধন তৈরি করা হয়। পুলিশের পক্ষে ১৮ কোটি মানুষের দেশে নিরাপত্তা বিধান অসম্ভব। আইনের শাসন তখনই প্রতিষ্ঠিত হয়,যখন সাধারণ মানুষ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সরাসরি অংশগ্রহণ করে। কমিউনিটি পুলিশিংয়ে সাধারণ মানুষের সেই অংশগ্রহণের সুযোগ তৈরি হয়। আর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের সাথে পুলিশের একটি সরাসরি যোগাযোগ তৈরি হয়।

সম্প্রতি দৈনিক “আজকের আলোকিত সকালের” সঙ্গে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। পুলিশ বাহিনীর বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন,বর্তমান সরকারপ্রধান পুলিশকে অনেক সুযোগ-সুবিধা দিয়েছেন। আমাদের আরও যেসব সমস্যা আছে তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই বাস্তবায়ন করবেন।
পুলিশ সদর দফতরে দেয়া সাক্ষাৎকারে কমিউনিটি পুলিশিং নিয়ে তিনি আরও বলেন বর্তমান বাংলাদেশ পুলিশের সকল জেলা,রেলওয়ে, হাইওয়ে,ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, ও মেট্রোপলিটন ইউনিটে কমিউনিটি পুলিশিং এর কার্যক্রম বিস্তৃত রয়েছে।কমিউনিটি পুলিশিংয়ের চলমান কার্যক্রমকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে দেশব্যাপি ৬০ হাজার ৯শত ১৮টি কমিটিতে ১১ লক্ষ ১৩ হাজার ৩শত আটাশ জন কমিউনিটি পুলিশিং এর সদস্য কাজ করছে। কর্মসম্পাদন সূচকে বিগত বছরের তুলনায় কমিউনিটি পুলিশিং অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। ২০১৮-১৯ সালে ৯ হাজার ৪ শত ৬০টি ওপেন হাউজ ডে,৮৪ হাজার ৭ শত ৬৮টি (জনসংযোগ সভা, র‌্যালী,স্কুল ভিজিট),৮৬ হাজার ৪শত ৯১টি অপরাধ বিরোধী সভা ও ১ লক্ষ ২৮ হাজার ৬শত ২৬টি বিরোধ নিস্পত্তি হয়েছে।

থানা পর্যায়ে কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম নিয়ে এআইজি সহেলি ফেরদৌস বলেন,প্রতিমাসে প্রতি থানা ইউনিটের ওপেন হাউজ ডে’তে এলাকার বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড সমাজ থেকে মাদক মুক্তকরণ,স্কুল-কলেজগামী ছাত্রছাত্রীদের ইভটিজিং সমস্যা,যৌন হয়রানী,নারীর প্রতি সহিংসতা,বাল্য বিবাহ, যৌতুক প্রতিরোধ,বয়স্ক শিক্ষা,জঙ্গি ও সন্ত্রাস নির্মূলে সচেতনতা মূলক আলোচনা ও পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তি করা হয়। সংশ্লিষ্ট এলাকার পুলিশ অফিসারগন কর্তৃক স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান করা হয়। কমিউনিটি পুলিশিং এর সহযোগিতায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জঙ্গি বিরোধী সমাবেশ ও ভাড়াটিয়া তথ্য সংগ্রহ সংক্রান্ত বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে, সার্ভিস ডেলিভারী ও কমিউনিটি পুলিশিং সেন্টারের মাধ্যমে জনগণ যাতে সঠিক সেবা পেতে পারে এ ব্যাপারে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। অপরাধপ্রবণ এলাকার জনগণকে সম্পৃক্ত করে পুলিশের সাথে যৌথ উদ্যোগের ফলে অপরাধের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে। পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা রক্ষা সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ এবং যাত্রী সেবার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে জেলা,থানায়, টার্মিনাল ও স্টেশনে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠন,পরিবহন চালক ও হেল্পারদের জন্য প্রতিমাসে ট্রাফিক নিয়ম কানুন সম্পর্কে প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমিউনিটি পুলিশ নিয়ে এআইজি সহেলি ফেরদৌস বলেন,সারাদেশে ইন্ডাস্ট্রিয়াল সেক্টরে ৩৬০টি কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠন করা হয়েছে,বিশেষত পুলিশ ইউনিট সমূহ যেমন হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং,রেলওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমিউনিটি পুলিশিং ও পরিবহন সেক্টরে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। নিয়মিতভাবে এ সকল কমিটির সদস্য, পরিবহন চালক,হেল্পারদের নিরাপত্তা ও অপরাধমূলক বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান কর্মসূচি জোরদার করা হয়।
প্রশিক্ষণ ও কর্মশালা বিষয়ে সহেলি ফেরদৌস বলেন,Gender based violence এবং বাংলাদেশ পুলিশের আয়োজনে ১০ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স-এ জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ বিষয়ক প্রাথমিক সতর্কবার্তা ও তা প্রচারের কৌশল নির্ধারণে কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে এবং সাতক্ষীরা,জয়পুরহাট কক্সবাজারে কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। Community Awarness module Ges Community Awarness Strategy বাস্তবায়ন সংক্রান্তে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। মাদক,জঙ্গি,নারী নির্যাতন অপরাধ নিয়ন্ত্রণে জনসচেতনতা জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধির লক্ষে বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি ইউনিটে এর কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে জনসমাবেশের আয়োজন অব্যাহত আছে। এ পর্যন্ত ১টি জেলায় ও ২টি মেট্রোপলিটন পুলিশে জনসমাবেশের আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে মাননীয় ইন্সপেক্টর জেনারেল ওই সমাবেশে অংশগ্রহণ করেছেন।

কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম কে ফলপ্রসূ করার লক্ষ্যে দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ১৪ শত ৬৮জন কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার এবং সংশ্লিষ্ট থানার ইন্সপেক্টরদের সমন্বয়ে ৩৭ টি কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে যা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়িত হচ্ছে।
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে এআইজি সহেলি ফেরদৌস বলেন,পুলিশের সনাতনী মানসিকতার পরিবর্তন এনে আচার-আচরণ এবং কর্মকান্ডে গণমুখী ও আধুনিক পুলিশি ব্যবস্থার প্রতিফলন ঘটানো,পুলিশ জনগণের যৌথ প্রচেষ্টায় অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করে একটি নিরাপদ অপরাধমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা এবং সমাজে আইনের শাসন শান্তি-শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করা, দূরত্ব কমিয়ে সুসম্পর্ক গড়ে তোলা এবং “পুলিশই জনতা-জনতাই পুলিশ” নীতি সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার ও সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত করার মাধ্যমে সার্ভিস সেন্টারের কার্যক্রমকে শক্তিশালী করা হবে।

ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সফল বাস্তবায়নের পর বাংলাদেশ পুলিশের অন্যান্য ইউনিটগুলোতে তা অনুকরণ করা হবে। কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম মূল্যায়ন করার জন্য সুপারভিশন ও মনিটরিং টিম তৈরী করে যুবসমাজকে নিরুৎসাহিত করতে সহিংসতা এবং জঙ্গিবাদ নিরসন সংক্রান্ত সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। যৌতুক মাদক ইভটিজিং জঙ্গিবাদ সামাজিক সমস্যা সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত ছাত্র-ছাত্রীদেও (১৫-২৪) বছরের পুলিশ ক্যাডেট কোর গঠন ও সারাদেশের ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে (TOT) কোর্সের আয়োজন করা। সহেলি ফেরদৌস ৪ সেপ্টেম্বর ১৮ সালে কমিউনিটি পুলিশিংয়ে যোগদান করেন। এর আগে এআইজি (মিডিয়া) হিসেবে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সেই দায়িত্ব পালন করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত