শিরোনাম :
কেন্দুয়া কৈজানি নদীতে ঝাঁপ দেয়া হালিমের লাশ উদ্ধার খুলনায় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক নিহত শাহজাদপুরে পিপিভি নারীকে চাকরিতে পূর্ণবহালের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ  শেরপুরে বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তার বিচার দাবিতে মানববন্ধন সালথায় পেঁয়াজের আড়তে ভোক্তা অধিদপ্তরের তদারকি দিঘলিয়ায় সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী পালন মিরপুর বিআরটিএ কার্যালয়ে অভিযান ; ২ দালালের সাজা কেন্দুয়ায় ফুটবল প্রীতিম্যাচ অনুষ্ঠিত কেন্দুয়ায় বাবার বাড়ি পুড়িয়ে দিল ছেলে ধীরগতিতে কমছে যমুনার পানি বানভাসির মধ্যে বিশুদ্ধ পানিসহ তীব্র খাদ্য সংকট
কেন্দুয়ার কবি কঙ্ক’র স্মৃতি বলতে কিছুই নেই 

কেন্দুয়ার কবি কঙ্ক’র স্মৃতি বলতে কিছুই নেই 

মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি :-
কেন্দুয়ার কবি কঙ্ক গৌরবময় মধ্যে যুগের বিখ্যাত কবি। তার জন্মস্থান বিপ্রবর্গ ইউনিয়ন-১০নং কান্দিউড়া গ্রামে। ছোট একটি গ্রাম, এই গ্রামের নামে ১টি মৌজা রয়েছে। ঐতিহ্যবাহী সেনের বাজার হতে হাফ কিলো উত্তরে, পনকেন্দুয়া/কির্তনখলা তার পাশ্ববর্তী গ্রাম, কেন্দুয়া শহর হতে ৩ কিলোমিটার উত্তর পশ্চিমে রাজেশ্বরী নদীর তীরে-এক সময়ে স্বগৌরবে বহমান রাজেশ্বরী নদী-কালের পরিক্রমায় রাজী নদীতে রূপান্তরিত হয়  যা এখন বিলীনের পথে।
শিল্পকর্ম:- সত্য পীরের পাঁচালী, মলুয়ার বারমাসী বিদ্যা, সুন্দর কাব্যের আদি রচয়িতা। সময়কাল: উনার জীবন কাল কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারে না, তবে গবেষকরা মনে করে তিনি চৈতন্য দেবের সমসাময়িক অনুমান ১৫-১৬ শতক। পিতা:- গুণরাজ , মাতা:- বসুমতী।
কঙ্ক ও লীলা’র কাহিনির কাব্যিক রূপদান করে  প্রায় ২৫০ বৎসর পূর্বে কেন্দুয়া উপজেলার আশুজিয়া গ্রামের পাটনি জাতের এক গায়ে’ন রঘুসুতের নেতৃত্বে দামদর দাস, শ্রীনাথ বানিয়া ও ন’য়োন চাঁদ ঘোষ। গ্রন্থে প্রকাশ:- ময়মনসিংহ গীতিকা, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কতৃক প্রকাশিত। সম্পাদনায়:-ডঃ দীনেশ চন্দ্র সেন।
কবির সংক্ষিপ্ত জীবনী:- তিনি এক ব্রাহ্মন পরিবারে জন্ম। শৈশবে পিতৃ-মাতৃহীন হলে নিরাশ্রয় কঙ্ক’কে মুরারি ও কৌশল্য নামক এক চন্ডাল দম্পতি লালন করে এবং তারাই কঙ্ক নাম রাখে।
“ব্রাহ্মণ কুমার হলো চণ্ডালের পুত
কর্মফল কে খন্ডায় কহে রঘুসুত”
ভাগ্যের নির্মম পরিহাস মাত্র ৫ বছর বয়সে পালক পিতা-মাতা মুরারি ও কৌশল্য মৃত্যু বরন করলে গর্গ নামে এক মহা পন্ডিত কৌশল্যর শ্মশান থেকে কঙ্ক’কে নিজ গৃহে নিয়ে যায়, গর্ঘের স্ত্রী- পুত্রহীন গায়ত্রীদেবী খুশি হয়, গর্ঘের বাড়িতে তিনি- গো পালকের করতেন কাজ।
“আদরে যতনে কঙ্কে’র সুখে দিন যায়
লেখা পড়া করে আর ধেনু যে চড়ায়”
দিনের বেলায় কঙ্ক মাঠে গরু চড়াইতো ও বাঁশি বাজাইতো এবং রাতে গর্ঘের নিকট শাস্ত্র পাঠ লইত। কিন্তু কঙ্কে’র সুখ সইলনা বসন্ত রোগে গায়ত্রী দেবী প্রানত্যাগ করেন তখন কঙ্কে’র বয়স ১০ বছর। উল্লেখ্য যে গর্ঘ পন্ডিত ও গায়ত্রী দেবীর এক কন্যা সন্তান ছিলো তার নাম “লীলা”। মা হারানোর সময় লীলা’র বয়স ৮ বৎসর।
“অষ্ট না বছর লীলা মায়ে হারাইয়া
  বুঝিলো কঙ্কে’র দুঃখ নিজ দুঃখ দিয়া”
এমনিভাবে কঙ্ক ও  লীলা ভাই বোনের মতো বড় হতে লাগলো। একজন কাঁদলে অন্যজন শান্তনা দেয়। কঙ্ককে না খাওয়াইয়া লীলা কখনো খেতো না, কঙ্ক ধেনু চড়াইতে গেলে লীলা তার অপেক্ষায় দাড়িয়ে থাকতো, যখনই বাথান থেকে ধেনু লইয়া বাড়িতে আসতো-তখনি পাখা দিয়ে বাতাস করতো, এই ভাবে লীলা যৌবনে পদার্পণ করলো।
” হাসিয়া- খেলিয়া লীলার বাল্যকাল গেলো
  সোনার যৈবন আসি অংগে দেখা দিলো।
  শাউনিয়া নদী যেমন কূলে কূলে পানি
  অংগে নাহি ধরে রূপে চম্পকবরনী”
কঙ্ক ও লীলা’র সম্পর্ক গভীরভূত হয়ে লীলা থেকে লীলাবতী
 হঠাৎ ঐ গ্রামে (বিপ্রবর্গ) গ্রামে এক পীরের আগমন, উনার নিকট কোন আগন্তুক লোক আসলে কিছু বলার আগেই তার মনের সব কথা বলে দিতে পারতো এবং এছাড়াও উনার আরো অনেক কেরামতি লোকে দেখতে পায়। এর পাশেই কঙ্ক ধেনু চড়াইতেো ও বাঁশী বাজাইতো, তা পীরের মর্মে প্রবেশ করিতো এবং কঙ্কে’র সহিত পরিচয় হইলো।
“জুহরী জহর চিনে বেনে চিনে সোনা
  পীর প্যা’গাম্বর চিনে সাধু কোনজনা”
পীরের অদ্ভুত কান্ড দেখিয়া কঙ্ক পীরের চরনে লুটাইয়া পড়ে। কালক্রমে কঙ্ক’ ঐ পীরের এতটা ভক্ত হলো যে তিনি পীরের নিকট দীক্ষা বায়াত গ্রহণ করে । জাতি ধর্ম ত্যাগ করায় সমাজপতিরা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে সমাজচ্যুত করে। অপরদিকে তার ভক্তি শ্রদ্ধা আর কাব্য প্রতিভার কারনে পীর তাকে সত্য পীরের পাঁচালী রচনা করতে বলেন।
” দেখিয়া শুনিয়া পীর
  কঙ্কেরে করিয়া স্থির
  উপযুক্ত ভক্ত এহিজনা”
সত্য পীরের পাঁচালী রচনা করে কবি দেশ ও বিদেশে পরিচিত হন। তার অসামান্য প্রতিভার কারনে গর্ঘ পন্ডিত কঙ্ক’কে আবার সমাজে মর্যাদা দিতে চায় কিন্তু উঁচু জাতের মানুষ বাঁধা হয়ে দাড়ায়, গর্ঘের নিকট লীলা ও কঙ্ক’কে নিয়ে কলংক রটায় যা গর্ঘ পন্ডিতের মনেও ভ্রান্ত বিশ্বাস হয়।
” কি কলংক হইলো মোর কহন না যায়
  কঙ্কে’রে মারিয়া পরে মারিবো লীলায়
  তারপর প্রবেশিয়া জ্বলন্ত আগুনে
  প্রায়শ্চিত্ত করবো নিজে শরীর দহনে”
সমাধি ও মাজারের জায়গার বর্তমান মালিক আব্দুল কাদির গং।
বিঃ দ্রঃ – মাজারের জায়গায় কোন ধরনের অনিয়ম হলে লোকজনের অনেক ক্ষতি হয় এবং ভাল কাজের জন্য কোন ধরনের মানত করলে অনেক উপকার হয় যা বাস্তবে প্রমানিত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত