শিরোনাম :
পূর্বধলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিয়ে না করায় প্রেমিকার কিটনাশকপানে আত্মহত্যা খুলনায় ককটেল বোমাসহ যুবক গ্রেপ্তার খুলনায় সমাবেশে যাওয়ার পথে বাস থেকে  নামিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের মারধর সিলেট জেলা জাতীয় গণমাধ্যম কমিশন এর পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ সাভারে গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার সূর্যমুখী’র হাসি দেখতে দর্শনার্থীদের ভিড় নওগাঁয় মাতাজী-হাপানিয়া রোডের ভটভটির সঙ্গে মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ,নিহত ১ মেহেরপুরের আমঝুপিতে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন মোংলায় বিশ্বের দীর্ঘতম নৌপথের বিলাসবহুল রিভার ক্রুজ ‘গঙ্গা বিলাস’। বিদেশী পর্যটকদের অভ্যর্থনা জানালেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী শেরপুরে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সাথে ট্রাফিক আইন বিষয়ক সচেতনতামূলক কর্মশালা
খালিয়াজুরীতে  উদ্যোক্তা সেজে এনটিপি প্রকল্পের নামে সরকারী টাকা আত্মসাৎ

খালিয়াজুরীতে  উদ্যোক্তা সেজে এনটিপি প্রকল্পের নামে সরকারী টাকা আত্মসাৎ

নেত্রকোনা প্রতিনিধি :
নেত্রকোণার খালিয়াজুরী উপজেলা কৃষি অফিসের যোগ সাজসে এনএটিপি প্রকল্পের মাধ্যমে খালিয়াজুরী মজিবুর রহমান চৌধূরী নামীয় এক উদ্যোক্তা সরকারী কোষাগার থেকে স্বারক নং ৩৪৩ তারিখ ৩১ মে ২০২১ খ্রিঃ মুলে এআইএফ -৩ ম্যাচিং গ্রান্ড উপ প্রকল্পের আওতায় মালামাল পরিবহনের জন্য  ষ্টীলবডি নৌকা ক্রয় না করেই  ১১ লক্ষ ৬২ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে মজিবুর রহমান চৌধূরী নামীয় এক প্রতারক।
তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়,এনএটিপি ফেজ-২, প্রজেক্ট এআইএফ- ৩ উদ্যোক্তার অনুকুলে ষ্টীল বডি ট্রলার ক্রয়ের কোটেশন মোতাবেক কাগজে কলমে দরপত্র দাতা/ ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করা হয়।  উল্লেখ্য মিন্টু সরকার খালিয়াজুরী, মোঃ আনচু মিয়া খালিয়াজুরী ও মোঃ গোলাম রব্বানী রব মিয়া কৃষ্ণপুর বাজার খালিয়াজুরী নেত্রকোণা দেখানো হয়। সর্ব্ব নিম্ন দরদাতা কৃষ্ণপুরের মোঃ গোলাম রব্বানী রব মিয়াকে ষ্টীলবডি নৌকা সরবরাহ করার কথা থাকলেও তার কাছ থেকে নৌকা ক্রয় না করেই ভূয়া কাগজপত্র প্রদর্শন করে খালিয়াজুরী কৃষি অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সহযোগিতায় ৫ লক্ষ ৮১ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে তথা কথিত প্রতারক মজিবুর রহমান চৌধূরী।
সিআইজি, নন সিআইজি চাষীদের এআইএফ-৩ ম্যাচিং গ্রান্ড উপ প্রকল্পের ভূয়া সভার কার্য বিবরনী প্রদান করা হয়। সভার স্থান হিসেবে উল্লেখ করা হয় প্রতারক মজিবুর রহমান চৌধূরীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। যার কোন সত্যতাই আদৌ নেই।
প্রকল্পের আহ্বায়ক হিসেবে মোঃ শহীদুল্লাহ্, উপ- সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ( ব্লক সুপারভাইজার),  উপ কৃষি কর্মকর্তা মামুনুর রশীদ  ও   তৎকালীন কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ হাবিবুর রহমানের যৌথ স্বাক্ষরেই টাকা প্রদান করা হয়।
মালামাল ক্রয় ও মালামাল গ্রহণ কমিটির সভাপতিদ্বয় কফিল উদ্দিন ও কাঞ্চন দেব বলেন আমরা এ বিষয়ে এত কিছু জানি না। আমাদেরকে মজিবুব মিয়া স্বাক্ষর করতে বললে আমরা স্বাক্ষর দিয়ে দেই। নৌকা কিনছে, না কি করছে আমরা জানি না।
স্থানীয় কৃষকরা বলেন,শুনেছি খালিয়াজুরী কৃষি অফিস  থেকে কৃষকদের উৎপাদিত ফসল পরিবহন করার জন্য সরকার ৫ লক্ষ ৮১ হাজার টাকা দিয়েছে মজিবুর মিয়াকে ষ্টীলবডি নৌকা কেনার জন্য।  যা দিয়ে উৎপাদিত ফসল পরিবহন করা হবে। কিন্তু অদ্যাবদি পর্যন্ত এমন ধরনের কোন নৌকাই আমরা দেখি নাই এমনকি দুর্যোগ কালীন সময়েও কোন কৃষকই প্রকল্পের বরাদ্দকৃত নৌকা কেউ চোখেও দেখেনি। খালিয়াজুরী বাজারের কয়েকজন জানান মজিবুব মিয়া প্রতারনার কৌশল হিসেবে নয়ন সরকারের নৌকা ভাড়া নিয়ে অফিসকে দেখায় তাতেই অফিস সন্তোষ্ট হয়ে চলে যায়। বাস্তবে মজিবুব মিয়া কোন ষ্টীলবডি নৌকা না কিনে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে যাহাতে অফিস কর্তৃপক্ষের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে ধারণা করছে।
স্থানীয় ও মুজিবুর রহমানের পার্শ্ববর্তী বাড়ীর বাসিন্দা মোঃ মনির হোসেন ও আরো শতাধিক কৃষক বলেন,মুজিবুর মিয়া কোন নৌকা ক্রয় করে নাই। ভূয়া বিল ভাউচার করে সরকারী টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। কেননা আগাম বন্যা কিম্বা বন্যার সময় অনেক কৃষক তাদের উৎপাদিত  ফসল নৌকার অভাবে অন্যত্র নিতে না পারায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এনটিপি প্রকল্পের আওতায় মালামাল পরিবহনের জন্য ষ্টীলবডি নৌকা আদৌ সে ক্রয় করে নাই। আমরা  এ বিষয়ে পুনরায় তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। আশা রাখি তদন্তের মাধ্যমে আসলেই সে যে সরকারী টাকা আত্মসাত করেছে সেটা বেরিয়ে আসবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপ কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শহীদুল্লাহ্ মুটোফোনে বলেন,মুজিবুর রহমান নিজেই দৌড়াদৌড়ি করে কাগজপত্র সংগ্রহ করেন,তাই উপ কৃষি কর্মকর্তা মামুন ভাই আমাকে বললেন স্বাক্ষর দেওয়ার কথা,  আমি তার কথা মত স্বাক্ষর দিয়ে দেই। তাছাড়া মুজিবুর রহমান একটা নৌকা আমাদের প্রদর্শন করিয়েছেন। নৌকাটি ভাড়ায় আনা হয়েছিল কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন এর বেশী কিছু জানি না। তবে বিস্তারিত মামুন ভাই বলতে পারবেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে   কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আমিনুল ইসলাম  বলেন,  খালিয়াজুরী একাধিক কৃষক আমার কাছে লিথিত  অভিযোগ জমা দিয়েছেন। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে তিনি আশ্বস্থ করেছেন।
উদ্যোক্তা সেজে সরকারী টাকা আত্মসাতের বিষয়টি খতিয়ে  প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করে আত্মসাতকৃত টাকা সরকারী কোষাগারে জমা করবে প্রশাসন এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেন অভিযোগকারীরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত