শিরোনাম :
দিঘলিয়া উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী  নওগাঁয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর অভিযানে ৬কেজি গাঁজাসহ আটক-১ নাহিদুজ্জামান বাবুর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি  সিরাজগঞ্জে গরু চুরিতে বাধা দেওয়ায় পিকআপের চাপায় গৃহবধু হত্যা,ডাকাত দলের ৪ পলাতক আসামী গ্রেফতার বড়াইগ্রামে পাটোয়ারী কোয়ালিটি এডুকেয়ার ইনস্টিটিউটে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্টিত পূর্বধলায় সরকারী চাকুরীজীবী হওয়া সত্বেও করেন সাংবাদিকতা খুলনায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা শুরু ,বই ছাড়া জ্ঞান অর্জন করা যায় না -সিটি মেয়র বিভাগীয় সমাবেশ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির বর্ধিত সভা পাতাল রেল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে ‘বিশ্ব হাত গুটিয়ে বসে থাকলে আবারো ২০১৭ সালের পুনরাবৃত্তি হবে :জাতিসংঘ
গার্ড অব অনার কোন যুক্তিতে ?

গার্ড অব অনার কোন যুক্তিতে ?

মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ নিলুফার ইয়াসমিন রূপাকে গার্ল গাইডস গার্ড অব অনার দিয়েছে কোন যুক্তিতে? এ প্রশ্নে জর্জরিত হচ্ছে মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মনিরুল ইসলাম বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কারণ বেসরকারি কাউকে গার্ড অব অনার দেওয়া যায় না। মেহেরপুর নিউজ নামের একটি ফেসবুক পেজে লাইভে দেখা যায়, কম্বলের বিনিময়ে সৈনিকলীগ মেহেরপুর জেলা শাখার আহ্বায়ক নিলুফার ইয়াসমিন রূপাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয় গত বুধবার বিকালে মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এ্যান্ড কলেজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির প্রাঙ্গণে। গার্ল গাইডসের সদস্যদের কম্বল নেওয়ার জন্য আসতে বলা হয়। তারা ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গেলে রূপাকে গার্ড অব অনার দিতে বলা হয়। গার্ড অব অনার দেওয়ার পর রূপা প্রত্যেককে একটি করে মোট ২৫ জনকে কম্বল দেয়। এ ঘটনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষক মিজানুর রহমানকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীর অভিভাবক মাহাবুব বলেন, তিনি একজন বিতর্কিত নারী। তিনি দেহ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এ রকম অভিযোগ উঠেছে। মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আকতারুজ্জামান বলেন, ঘটনাটি স্কুল ছুটির পর গার্ল গাইডসের উদ্যোগে হয়েছে। কম্বল দেওয়ার বিষয়ে আমার জানা নেই। কেউ কম্বল দেওয়ার জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেয়নি। মেহেরপুর স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক শরিফ উদ্দিন বলেন, যাকে তাকে গার্ড অব অনার দিলে তা হয় রাষ্ট্রের অবমাননা। যারা এটা করেছে তারা আমাদের গার্ল গাইডসের কেউ নয়। তাদের গায়ে স্কুলের পোশাক ছিল। মেহেরপুর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মনিরুল ইসলাম বলেন, বেসরকারি কাউকে গার্ড অব অনার প্রদান করার বিধান নেই। তারপরও যাকে নিয়ে বিতর্ক আছে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া উচিত নয়। বিষয়টি আমি অধ্যক্ষের কাছে ব্যাখ্যা চেয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। রূপা বলেন, গার্ড অব অনার নয়। ওরা প্যারেড করতে করতে আমাকে অনুষ্ঠানে নিয়ে সালাম দিয়েছে। আমি ভালো কাজ করছি সমস্যা কী? বলে ফোন কেটে দেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত