শিরোনাম :
কেন্দুয়া কৈজানি নদীতে ঝাঁপ দেয়া হালিমের লাশ উদ্ধার খুলনায় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক নিহত শাহজাদপুরে পিপিভি নারীকে চাকরিতে পূর্ণবহালের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ  শেরপুরে বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তার বিচার দাবিতে মানববন্ধন সালথায় পেঁয়াজের আড়তে ভোক্তা অধিদপ্তরের তদারকি দিঘলিয়ায় সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী পালন মিরপুর বিআরটিএ কার্যালয়ে অভিযান ; ২ দালালের সাজা কেন্দুয়ায় ফুটবল প্রীতিম্যাচ অনুষ্ঠিত কেন্দুয়ায় বাবার বাড়ি পুড়িয়ে দিল ছেলে ধীরগতিতে কমছে যমুনার পানি বানভাসির মধ্যে বিশুদ্ধ পানিসহ তীব্র খাদ্য সংকট
জালিয়াতির মহা-আখড়া ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড ; কলেজ ও বিষয় পরিবর্তন করে ২৫০ ফরম পূরন

জালিয়াতির মহা-আখড়া ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড ; কলেজ ও বিষয় পরিবর্তন করে ২৫০ ফরম পূরন

রায়হান কবীর পলাশ, ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি : জালিয়াতির মহ্য-আখড়ায় পরিণত হয়েছে ময়মনসিংহ  শিক্ষা বোর্ড। অনিয়ম ও দুর্নীতির সকল মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে  এই প্রতিষ্ঠান। এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর একদিন আগে অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে ২৫০ ফরম করার ঘটনা ঘটেছে। এক এক করে বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল।

কলেজ, বিভাগ ও বিষয় পরিবর্তন করে প্রশ্নবিদ্ধ ফরম ফিলাপগুলো করা হয়। চক্রটি  টাকার বিনিময়ে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে পর্যায়ক্রমে ৪৫০ ফরম ফিলাপ করার সুযোগ করে দিয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে। অন্যদিকে বিধি অনুযায়ী হয়নি কোনো টিসি ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড পরিবর্তন। জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে আবেদন, প্রতিষ্ঠান প্রধানদের জাল সই ও সিল ব্যবহার করা হয়।  মোটা অংক নিয়ে এ কান্ড ঘটায় বোর্ডের বিশেষ চক্র।

মোটা অংক নিয়ে  বোর্ডের সার্ভার প্যানেলে পরিবর্তন এনে প্রশ্নবিদ্ধ কাজ চলে গত শনিবার রাত পর্যন্ত। এর আগে ২৭ জুন পর্যন্ত একই কাণ্ড ঘটিয়ে ২ শতাধিক শিক্ষার্থীকে প্রশ্নবিদ্ধ ফরম ফিলাপ করার সুযোগ দেওয়া হয়। বিষয়টি ‘টক অব দ্য বিভাগ’। ভেঙে পড়েছে বোর্ডের চেইন অব কমান্ড। নেই কোনো সমন্বয়। কর্মকর্তাদের অফিসে না পেয়ে হয়রানির শিকার হন সেবা প্রত্যাশীরা। কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সিনিয়র-জুনিয়র কেউ কাউকে মানতে নারাজ।

জানা যায়, দেনদরবারের পর বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় ময়মনসিংহ বোর্ডের তথ্য প্রযুক্তি শাখার সংশ্লিষ্টরা অবৈধ সুবিধা নেওয়া পরীক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশন কার্ড পরিবর্তনের কাজ শুরু করেন। শুক্রবার ভোর ৬টায় বন্ধ হয়ে জুমার নামাজের পর আবারো কাজ শুরু হয়। রেজিস্ট্রেশন কার্ডের কাজ চলে রাত দেড়টা পর্যন্ত।

শাখা প্রধানকে পাশ কাটিয়ে চেয়ারম্যান ও সচিবের আস্থাভাজন এক কর্মকর্তা ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শাখার আরেক কর্মকর্তা হাতিয়ে নিয়েছেন ৫ লাখ টাকা। তথ্য প্রযুক্তির সহযোগিতা ও সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করলেই অনেক কিছুর প্রমাণ পাওয়া যাবে।

পরীক্ষার রুটিন প্রকাশের পরই কৌশলে টিসির দায়িত্ব নেন প্রশ্নবিদ্ধ কর্মকর্তা। মে মাসের শেষ দিকে ২ শতাধিক শিক্ষার্থীর টিসি, বিভাগ ও বিষয় পরিবর্তনের খবর জানতে পেরে বেঁকে বসেন চেয়ারম্যান। বন্ধ করেন কার্যক্রম। সার্ভারে ত্রুটির কথা বলে অধ্যক্ষদের সময়ক্ষেপণ করানো হয়। অন্যদিকে শীর্ষ কর্মকর্তা ৫ লাখ টাকা ‘নজরানা’ নিয়ে ভালুকার দুটি কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থীর বিভাগ ও বিষয় পরিবর্তন করে নতুন রেজিস্ট্রেশন কার্ড প্রদান করেন।

বিশেষ সুবিধা নেওয়া অধ্যক্ষরা ২৪ জুন পর্যন্ত ওই কর্মকর্তার কাছে ধর্ণা দেন। চেয়ারম্যান ঢাকায় ছিলেন। তার পরামর্শে ময়মনসিংহ ও জামালপুরের দুই অধ্যক্ষ ও এক দালাল ঢাকায় গিয়ে চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করেন। অবৈধ কর্মকান্ডের অনুমতি না পেয়ে তারা ফিরে আসেন। ২৭ জুন বোর্ডের মূল ভবনে হট্টগোল করানো হয়। পরে শর্তসাপেক্ষে মানবিক কারণে ফরম ফিলাপ কার্যক্রমের অনুমতি দেন চেয়ারম্যান। ‘মিশন সফল’ হওয়ার পর ‘চতুর’ কর্মকর্তাসহ বিশেষ চক্রটি আবারো টাকার নেশায় মেতে ওঠে। মোবাইলে কল করে কলেজ অধ্যক্ষদের ডেকে এনে রেজিস্ট্রেশন কার্ড পরিবর্তনের ব্যবস্থা করে দেয়। জানা যায়, প্রশ্নবিদ্ধ ফরম ফিলাপ কার্যক্রমে জামালপুর শীর্ষে। এ কলেজের দেড় শতাধিক পরীক্ষার্থীকে সুবিধাজনক কেন্দ্রে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করে হাতিয়ে নেওয়া হয় অর্ধ কোটি টাকা। সবচেয়ে বেশি অভিযোগ বেলটিয়ার শাহ- বুদ্দিন মেমোরিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম সেলিমের বিরুদ্ধে। অনুমোদনহীন এই কলেজ থেকে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ না থাকায় সরিষাবাড়ি ও ইসলামপুরের চারটি কলেজ থেকে ১৩০ জনকে পরীক্ষা দেওয়ানো হচ্ছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন কার্ড ও প্রবেশপত্র না পাওয়ায় ঘটে বিপত্তি। কলেজ ঘেরাও করা হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে পরিচালনা পর্ষদ অধ্যক্ষ সেলিমকে সাময়িক বরখাস্ত করে। একইভাবে ফরম ফিলাপ কাণ্ড ঘটান জামালপুরের এফএম কলেজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ মোহাম্মদ ফেরদৌস আলী ও ইসলামপুরের ৪নং চর হাই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল হাকিম। ময়মনসিংহের কলেজগুলোর মধ্যে তারাকান্দার এইচ.এ ডিজিটাল কলেজ অন্যতম।

ময়মনসিংহ বোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র ৯৯টি। গত বছর ছিলো ৯২টি। বেড়েছে ৭টি। জামালপুর সদরে ৩টি, ময়মনসিংহ নগরীতে ২টি ও ভালুকায় ২টি। এর মধ্যে একটি কেন্দ্রের জন্য ২৫ লাখ টাকা লেনদেনের খবর নিশ্চিত করেছে নির্ভরযোগ্য সূত্র। তার মধ্যে জামালপুরের ২টি ও ভালুকার ২টি কেন্দ্র নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। অভিযোগ সম্পর্কে বোর্ডের সচিব প্রফেসর কিরীট কুমার দত্ত ও চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. আবু তাহের বলেছেন, অভিযোগ সঠিক নয়। তবে বড় কোনো কাজ করতে গেলে সামান্য ত্রুটি হতেই পারে। অভিযোগের সত্যতা পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত