শিরোনাম :
নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আশুলিয়ায় চায়না আদিবাসী নারী পাচার চক্রের বিরুদ্ধে মানববন্ধন
টিভি চ্যানেলের বিকল্প ইউটিউব?

টিভি চ্যানেলের বিকল্প ইউটিউব?

শাহীন মির্জা: টেলিভিশন চিত্তবিনোদনের শ্রেষ্ট মাধ্যম। মানুষ হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম ও জীবন জীবিকার সংগ্রাম শেষে মানুষের যান্ত্রিক ধারায় চিত্তবিনোদনটুকু অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আজ কাল টিভি খুললেই নি¤œমানের অনুষ্ঠান সীমাহীন বিজ্ঞাপন দেখে আনন্দ পাওয়া থেকে বিরক্তি আসে বেশী। নাটকের কুরুচিপূন্য সংলাপ টেকনিক্যাল দূর্বলতা আর অনুষ্ঠানের উপস্থাপিকার আপত্তিকর পোষাক ও বাংলা ইংলিশ ও হিন্দী ভাষার জগাখিচুরী মিশ্রণ টিভি দর্শকদের বিরক্তি বাড়ছে ও ভাবিয়ে তুলছে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি থেকে আমরা অনেক দূরে সরে এসেছি আমাদের সেই নাটক কোথায়-সংপপ্ত, বারো রকমের মানুষ, মাটির মায়া, বড়বাড়ী, কোথাও কেউ নেই, কোন কাননের ফুল, আব্দুল্লা, দানব, কুসুম কলি। নতুন নির্মাতারা ভিনদেশীদের নকল করে কুরুচিপূর্ন ও অশ্লীল অনুষ্ঠান তৈরি করছে যা মানুষের নৈতিক অধ:পতন কে ত্বরান্বিত করতে সক্ষম । অদক্ষ অযোগ্য লোকের ছড়াছড়ি টিভি চ্যানেলগুলোতে। যার যোগ্যতা যে ক্ষেত্রে তাকে দেখা যায় অন্য অনুষ্ঠানের বিচারক হিসাবে যে বিষয়ে তার জ্ঞান নেই আছে শুধু তারকা খ্যাতি এটা অনেকের দৃষ্টি কেড়েছে। যোগ্যতা সম্পন্ন অনেক মেধাবী নির্মাতা নাটক বানিয়ে হিমসিম খাচ্ছে ঠিক মতো টাকা পাচ্ছে না। বিজ্ঞাপন পাচ্ছে না- টিভি চ্যানেলের বিভিন্ন চাহিদা তারা পূরণ করতে পারছে না বা টিভি কর্তৃপক্ষের মনমতো হচ্ছে না তাই নাটক বানাতে অনেকে ভয় পায়। নতুন মেধাবী নির্মাতাদের বিকল্প স্বাধীন পথ হলো ইউটিউবের উদ্দেশ্যে নাটক বানানো। এদেশেকয়টি টিভি চ্যানেল আছে অনেকে বলতে পারবেনা, কোন চ্যানেলে কোন অনুষ্ঠান কখন হয় তাই মনে রাখার জন্য ডায়রি লাগবে। অনেক দর্শক নাকছিটকে বলে বিজ্ঞাপনের যন্ত্রনায় আমরা এ দেশের চ্যানেল দেখিনা কিন্তু কেন এত বিজ্ঞাপন দিতে হয় এর গভীরে কেউ যায় না। বি.টি.ভি একটি চ্যানেল থেকে পচিশ ত্রিশটি চ্যানেলের জন্ম হয়েছে তাই বিজ্ঞপনের রেড কমে গেছে, অল্প বিজ্ঞাপন দিয়ে অনুষ্ঠান চালালে অনুষ্ঠানের খরচ উঠে আসে না। তাই বাধ্য হয়ে বেশী বিজ্ঞাপন দিতে হয়। এখন অনেকে ইউটিউব নিয়মিত দেখেন সেখানে এত বিজ্ঞাপন ঝামেলা নেই বিরতির পর বিরতি নেই। এখন নবীন মেধাবী নির্মাতারা নিজের কল্পনা শক্তিকে স্বাধীনভাবে বাস্তবে রুপ দিতে পারে টিভি চ্যানেলের দরজায় গিয়ে অনুষ্ঠান প্রচারের জন্য কাকুতি মিনতি করতে হয় না। বলা যায় ইউটিউব সৃজনশীল নির্মাতাদের আলোর পথ দেখাবে দর্শক নিজের চাহিদা মতো অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবে। কিন্তু আমাদের দিন দিন টিভি চ্যানেল বাড়ছে।

বিজ্ঞাপন বাড়ছে, কিন্তু টিভি দর্শক কমে গেছে এটা শুভ দিক নয়। সংস্কৃতি মানুষকে সুন্দরের পথ দেখায় তেমনি অপসংস্কৃতি মানুষকে ঠেলে দেয় অন্ধকারের দিকে সাংস্কৃতি সাধকরা দেশ মাটি ও মানুষের কথা ভাবে তাই তাদের পৃষ্টপোশকতার মাধ্যমে সুন্দরের পথ প্রশস্ত করা প্রয়োজন। পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায় দেশী টিভি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে ভিনদেশী সংস্কৃতি প্রতি ঘরে লালন হচ্ছে অপসংস্কৃতি তাই প্রতি ঘরে সন্ধ্যে হলে জি বাংলা, ষ্টার জলসা ছাড়া মহিলাদের দৃষ্টি অন্য কোথাও যায়না এ আমারেদ জন্য লজ্জাকর বিষয়। ভিনদেশী সিরিয়ালে আক্রান্ত হয়ে বিদেশী পোশাক, চালচলন, গান বাজনা, কথা বলার ভঙ্গি, চিন্তা চেতনা, বাংলা ইংলিশ, হিন্দী মিশ্রন প্রভৃতিকে যে ভাবে অনুকরন করছে তার সাথে এদেশের মাটি ও মানুষের কোন সর্ম্পক নেই। টিভি চ্যানেল গুলোতে স্বজনপ্রীতির কারণে অদক্ষলোক বিভিন্ন শাখায় নিয়োগ দিয়ে নি¤œমানের অনুষ্ঠান সবচেয়ে বেশি হচ্ছে তাই দর্শক ধরে রাখতে পারছে না। ইউটিউব, জি বাংলা, ষ্টার জলসা আমাদের সব দর্শক কেড়ে নিয়েছে এটা অবশ্যই অশুভ সংকেত ও আমাদের ব্যার্থতা। হাতে মোবাইল থাকলে যখন খুশি তখন ইউটিউব সার্স করে দেখছে নির্মাতারা ইউটিউবের প্রতি বেশি ঝুকছে। টিভি চ্যানেলের বিকল্প হিসাবে নির্মাতা, শিল্পী ও দর্শক ইউটিউবকে ভাবছে তবে সব কাজে সুস্থ প্রতিযোগিতা থাকলে কাজের গুনগত মান বৃদ্ধি পায়। টিভি চ্যানেলের উদ্দ্যেশে নাটক বানিয়ে যাদের ব্যাটে বলে মিলছে না তারা মুক্তচিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে ইউটিউবে। অসুস্থ প্রতিযোগিতার কারণে টিভি ইউটিউব উভয় মাধ্যম অন্ধ প্রতিযোগিতায় নেমেছে। এখন নাটকে অদক্ষ, আনাড়ী, স্বপ্নবিলাসী পরিচালক ও লেখকের ছড়াছড়ি, নামের শ্রী দেখলেই বুঝা যায় এটা কোন জঙ্গলের বৃক্ষ। এর ফল মিঠা না তেতো। নাটকের নাম সেই রকম কাচ্ছি খোর, কাঁচামরিচের চা, ছ্যাঁকা খেয়ে বেঁকা, সেলিব্রেটি কাউ, চা খোর, পান খোর, বাকি খোর, প্লে বয়, ক্রেজি লাভার, চ্যাতা কাশেম, ছ্যাঁচড়া জামাই নামের হল এই হাল। পশ্চিমাদেশের অপসংস্কৃতির আগ্রাসনে আমরা নিজেদের সংস্কৃতি কুষ্টি কালচার ভুলে যাচ্ছি। এটা শুভ লক্ষণ নয়। এক সময় নাটক তৈরি হতো দর্শকের মন ছুয়ে যেতো জীবন ঘনিষ্ঠ নাটক হতো নাটকের নামের মধ্যেই অনেক গভীরতা থাকতো মার্জিত ও নান্দনিকতা। পরিবারের সবাই বসে দেখার মতো ভালো নাটক দেখেছি। রূপনগর, এই সব দিন রাত্রি, বহুব্রীহি, অয়োময়, আজ রবিবার, জোয়ারভাটা সংস্কৃতিমনা মানুষগুলো এখন চায় ভালো নাটক ফিরে আসুক। অপসংস্কৃতি পিছনে ফেলে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিকে নতুন আলোয় উদভাসিত করি এবং টিভি চ্যানেল ও ইউটিউব চ্যানেলের পাশাপাশি রেখে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিকে বিশ^দরবারে পরিচয় করিয়ে দেই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত