ডেমরা চনপাড়া ব্রিজ ও ধউর ব্রিজ গলাটিপে হত্যা করছে টঙ্গী নদী বন্দরকে

ডেমরা চনপাড়া ব্রিজ ও ধউর ব্রিজ গলাটিপে হত্যা করছে টঙ্গী নদী বন্দরকে

স্টাফ রিপোর্টার
ডেমরা চনপাড়া ব্রিজ ও তুরাগ ধউর ব্রিজ গলাটিপে হত্যা করছে টঙ্গী নদী বন্দরকে। দ্বিতীয় শ্রেনীর এই তুরাগ ও বালু নদীর উপর নির্মিত বেশ কয়েকটি ব্রিজ হাই-ওয়াটার লেভেল থেকে ব্রিজের উচ্চতা কম থাকায় নৌ-যান চলাচলে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। যার ফলে কোটি কোটি টাকা দিয়ে নির্মিত টঙ্গী নদী বন্দরের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে রয়েছে। টঙ্গী নদী বন্দরের আওতাধীন ছয়টি ব্রিজের মধ্যে টঙ্গী বন্দর প্রবেশ মুখ ডেমরা চনপাড়া ও তুরাগ ধউর ব্রিজ উল্লেখযোগ্য। বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ এর ব্যবস্থা না নিলে টঙ্গী নদী বন্দরের সুফল পাওয়া যাবে না,এমন মন্তব্য করছেন সংশ্লিষ্ট মহল।
সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, ১৯৯১ সালে এক কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে বালু নদের উপর ডেমড়া-চনপাড়া এলাকায় এ সেতুটি নির্মাণ করা হয়। এটির দৈর্ঘ্য ১১০ ফুট, প্রস্থ ১২ ফুট। রাজধানী ঢাকার সাথে পাশের জেলা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ও গাজীপুরের কালিগঞ্জ উপজেলার যোগাযোগের সুবিধার্থে বালু নদের উপর ডেমড়া-কালিগঞ্জ সড়কের চনপাড়া এলাকায় নির্মিত হয় এ ব্রিজটি। অপরদিকে তুরাগ ধানাধীন এলাকায় ধউর ব্রিজ অবস্থিত, এছাড়া প্রত্যাশা ব্রিজ,টঙ্গী সড়ক ব্রিজ,টঙ্গী রেল ব্রিজ, তেরমুখ ব্রিজ। নিয়ম রয়েছে প্রথম শ্রেণীর ব্রিজ হাই-ওয়াটার লেভেল থেকে ব্রিজের উচ্চতা থাকবে ১৮.৩০মিটার,দ্বিতীয় শ্রেণীর ১২.২০ মিটার,তৃতীয় শ্রেণীর ৭.৬২মিটার ও চতুর্থ শ্রেণীর ৫.০০মিটার। সে হিসেবে দ্বিতীয় শ্রেনীর তুরাগ ও বালু নদের উপর নির্মিত ব্রিজ হাই-ওয়াটার লেভেল থেকে ব্রিজের উচ্চতা থাকার কথা ১২.২০মিটার। অথচ এর কোন বালাই নেই। যে কারণে নৌ-পথে মালবাহী নৌযান চলাচল করতে পারছে না। ফলে টঙ্গী নদী বন্দরের কার্যক্রম ব্যহত। এসব ব্রিজ দিয়ে নৌ-যান চলাচল করতে পারলে ঢাকা,নারায়নগঞ্জের পরেই টঙ্গী নদী বন্দর হিসেবে পরিচিতি লাভ করতো এবং বছরে কোটি কোটি রাজস্ব আয় হতো। টঙ্গী মধূমিতা এলাকার স্থানীয় এক বাসিন্দা এমএম নাসির উদ্দিন বলেন, বর্তমান সরকার ২০০৪ সালে টঙ্গীর আরিচপুর এলাকায় কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত করেন টঙ্গী নদী বন্দর। অথচ পানির হাই লেভেল থেকে ব্রিজের উচ্চতা কম ও নদের ন্যব্যতা না থাকায় নৌ-পথ দিয়ে নৌ-যান চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এতে করে টঙ্গী নদী বন্দরের কার্যক্রম অকেজো হয় যায়। এব্যাপারে টঙ্গী নদী বন্দরের সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, তুরাগ ও বালু নদীর উপর নির্মিত বেশ কয়েকটি ব্রিজ হাই-ওয়াটার লেভেল থেকে ব্রিজের উচ্চতা কম থাকায় নৌ-যান চলাচলে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। যার ফলে কোটি কোটি টাকা দিয়ে নির্মিত টঙ্গী নদী বন্দরের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে আছে।বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ চলতি বছরের ফেব্রুয়ারীতে টঙ্গী নদী বন্দরকে স্বতন্ত্র নদী হিসেবে ঘোষণা করেছেন। এই বন্দরের আওতায় তিনটি ইজারা ঘটা রয়েছে তা থেকে লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হচ্ছে। আমি দায়িত্ব্ নেওয়ার পর সুলতানা কামাল সেতু কায়েতপাড়া ও বেড়াইত বাজার হতে পূর্বাচল পর্যন্ত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে প্রায় ৩একর জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে। যাত্রী সেবায় রাজাবাড়ি ও মিরেশ পাড়া এলাকায় দুইটি যাত্রী ছাউনী নির্মাণ করা হয়েছে। এই এলাকায় মানুষের বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে নদী বন্দর চত্বরে ইকোপার্ক নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া আরএফএল ও প্রাণ কোম্পানীর বিরুদ্ধে ভরাট মামলা করা হয়েছে। অপরদিকে আনন্দ গ্রুপ ও জাবের যোবায়ের কর্তৃক মামলা বাতিল পূর্বক উচ্ছেদ পক্রিয়া চলছে। টঙ্গী নদী দখল রোধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত