শিরোনাম :
“প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম)- সেবা” পেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার সাভারে বিএনসিসির সেন্ট্রাল ক্যাম্পিংয়ের সম্মিলিত কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত এম এম আমিনুল ইসলামকে আয়ারল্যান্ড প্রতিনিধি হিসাবে নিয়োগ দান  লক্ষীপুরে ডিবির জালে যৌন কর্মীসহ ৫জন আটক রক্তবন্ধু সমাজকল্যাণ সংগঠনের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অভিভাবক এওয়ার্ড ও গুণীজন সম্মাননা সাভার উপজেলা পরিষদ ঢাকা-১৯ এর এমপিকে সংবর্ধনা নওগাঁর পুলিশ সুপার”প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল” (পিপিএম-সেবা) প্রাপ্তি বড়াইগ্রামে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত  মাদক নিয়ে  ট্রেন চালক সহ গ্রেপ্তার ৫  ভোলায় রওশন আরা ও রাব্বী হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন 
ঢাকা-১৮ আসনের জনগন দু:সময়ের অভিভাবক চায়

ঢাকা-১৮ আসনের জনগন দু:সময়ের অভিভাবক চায়

জাহাঙ্গীর আলম: আওয়ামী লীগ যখন বিরোধী দলে থাকে, ঢাকা-১৮ আসনের আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা অভিভাবক শূন্য থাকে। অথচ আন্দোলনকে গতিশীল করতে ঢাকা-১৮ আসন একটি গুরুত্বপূর্ন স্থান। এই ১৮ আসনে যারা নির্বাচন করেন, আন্দোলন সংগ্রাম করার সময় বিপদে-আপদে এ পর্যন্ত কোন এমপি পাশে ছিল না, আজকে যারা স্থানীয় সিনিয়র নেতা, নেত্রীত্ব দিচ্ছেন, তারাই তখন নেত্রীত্ব দিয়ে যান। নেতা কর্মীদের সুখে-দু:খে তখন তারাই পাশে থাকেন। তাই সু-দিনের অভিভাবক থেকে দুর্দীনের অভিভাবক অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন।
আওয়ামী লীগের কিছু ত্যাগী নেতার কথাই বলছি, বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে হরতাল সফল করতে গেলে পুলিশ লাঠি দিয়ে পিটিয়ে রশি দিয়ে বেঁধে থানার সামনে সারাদিন দাঁড়া করিয়ে রাখে, পরদিন জেলে পাঠায় আমাদের আওয়ামী লেিগর ত্যাগী নেতা কর্মীদেরকে। বছরের পর বছর বাড়ি ছাড়া হয়ে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রাজপথে মিটিং মিছিল আন্দোলন করে নেতা কর্মীদের ছায়া দিয়ে দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন এসব ত্যাগী নেতারা। জেল-জুলুম নির্যাতন ছিল তাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। সেই সৌরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলন থেকে ৯০ দশক এর গন-আন্দোলন, বিএনপি জামাত জোট সরকার আমলে এই ত্যাগী নেতাদের ভুমিকা ছিল অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এসব কি আমাদের মমতাময়ী মা বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জানে না? আওয়ামী লীগের এসব ত্যাগী নেতারা কোটি কোটি টাকা খরচ করে লভিং রাখতে পারেন নাই। অনেক কষ্টের সাথে বলতে হয়, আজ মানুষের গুঞ্জন শুনে মনে হচ্ছে আপনারা ভুল রাজনীতি করেছেন। আপনারা সরকারের সুবিধা নিয়ে শাহেদ, জিকে শামীমদের মত শত কোটি টাকা বানিয়ে কোটি কোটি টাকা খরচ করে লভিং রাখা দরকার ছিল। নেত্রীর কানে উনারা যত প্রকার ত্যাগী নেতা হওয়া যায় সব ধরনের ত্যাগের খেতাব আপনাদের দিয়ে দিত। আর নমিনেশন পাওয়া তখন হত চুটকির ব্যাপার। আর কত ত্যাগ শিকার করলে এমপি হওয়ার যোগ্যতা রাখতে পারবে এসব ত্যাগী নেতারা? আজ যারা ১৮ আসনের এমপি হতে চান তারা আগে অঙ্গীকার করুন। সরকার পরিবর্তন হলে আপনার ভূমিকা কি হবে? কর্মীদের নিয়ে রাজপথে থাকতে পারবেন? না ব্যবসা বাঁচাতে তখন সরকারের দফাদারী করবেন? বিগত দিনে আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনের দায়িত্ব পেয়ে যারা রাজপথের জীবন বাজি রাখা কর্মীদের বাদ দিয়ে নিজের ভাই, ভাতিজা, ভাগিনা, শালা, পোলা, চ্যালাদের কাছে দলকে শুধু ইজারা দিয়েই ক্ষ্যান্ত হননি বরং জামাতি, জাতীয়তাবাদি, সুবিধাবাদিদের কাছে খোলাবাজারে দলীয় পদ বিক্রি করেছেন। তাদের কাউকে ঢাকা- ১৮ আসনের এম পি তো দূরের কথা আওয়ামী লীগ অফিসের দারোয়ান হিসেবেও দেখতে চায়না ঢাকা-১৮ আসনের জনগন।
ঢাকা-১৮ আসনে উপ-নির্বাচনে এডভোকেট সাহারা খাতুনের মত সৎ, বিনয়ী, একজন ভালো মনের মানুষকে চাই যে এডভোকেট সাহারা খাতুনের আদর্শকে বুকে লালন করে ঢাকা-১৮ আসন বাসীর সেবা করবে সব সময়। ১ম পর্বে ছিলো ১৯৭০-২০০৬ সাল পর্যন্ত ঢাকা-৫ আসন। ২য় পর্বে ২০০৮ সালে বিভক্ত হয়ে হয় ঢাকা-১৮ আসন।
যেনে নিন ঢাকা-১৮ আসন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য- নির্বাচনী এলাকা ঢাকা-১৮ আসন। ঢাকার মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও উল্লেখযোগ্য আসন। এ আসনে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, হজ্জ ক্যাম্প জঅই হেড কোয়ার্টার আর্ম পুলিশ ব্যাটালিয়ান থেকে শুরু করে সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর এ আসনে আছে। তার মধ্যে ৭টি থানা রয়েছে তথা, খিলক্ষেত থানা, বিমানবন্দর থানা, দক্ষিণ খান থানা, উত্তরখান থানা, উত্তরা পূর্ব থানা, উত্তরা পশ্চিম থানা, এবং তুরাগ থানা। এবং এই আসনে ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন এর ১৪টি ওয়ার্ড রয়েছে উত্তর খান থানা ওয়ার্ড ৪৪, ৪৫, ৪৬ দক্ষিনখান থানা ওয়ার্ড ৪৭, ৪৮, ৪৯,৫০ খিলক্ষেত থানা ও ভাটারা থানা ওয়ার্ড ১৭, ৪৩ উত্তরা পূর্ব থানা ওয়ার্ড ১ উত্তরা পশ্চিম থানা ওয়ার্ড ১ তুরাগ থানা ওয়ার্ড ৫১, ৫২, ৫৩, ৫৪। ঢাকা ১৮-আসনে ২২২টি কেন্দ্র, ১৪৫০টি বুথ, এই আসনে মোট ৫৫২৭১৮ জন ভোটার,👉পুরুষ ভোটার ২৮৪৫৩৫ জন, মহিলা ভোটার ২৬৮১৮৩ জন ভোটার।
বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে সাবেক ঢাকা-৫, বর্তমানে ঢাকা-১৮ এডভোকেট সাহারা খাতুন ব্যতিত স্থানীয় কেউই এমপি হয়নি। সাবেক ঢাকা-৫ এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমপি হয়েছিলেন। খালেদা জীয়া এমপি হয়েছিলেন। দুটি দলের প্রধান এমপি হওয়া সত্বেও এলাকার কোন উন্নয়ন হচ্ছিল না। বর্তমান ঢাকা-১৮ আসনে প্রয়াত এডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি হওয়ার পর ব্যপক উন্নয় হয়েছে। তাই ঢাকা-১৮ আসনের সাধারন জনগনের অন্তরের অন্তস্থলের দাবি, ঢাকা-১৮ আসনের স্থানীয় তৃনমূল থেকে উঠে আসা এমন একজনকে এই উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হোক। প্রয়াত এডভোকেট সাহারা খাতুনের মত যেন সর্বস্তরের জনগনের হৃদয়ে স্থান করে নিতে পারে। হাইব্রিড, অসৎ ব্যবসায়ী, অতিথি পাখি, টাকার কাছে বিক্রি না হয়ে সত্যিকারের জনদরদি ও মেহনতি মানুষের বন্ধু, বিপদে-আপদে যাকে কাছে পাই, জনগনের জন্য সবসময় দরজা খোলা থাকে এমন একজন ব্যক্তিকেই যেন মনোনয়ন দেয়া হয়। এটাই ঢাকা-১৮ আসনের সর্বস্তরের জনগনের প্রাণের দাবি। তাই আমরা ঢাকা-১৮ আসনের আওয়ামী লীগ ও সকল সংগঠনগুলোর নেতা কর্মীদের কাছে অনুরোধ করি, দূর্দীনের অভিভাবক এর জন্য মমতাময়ী মা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এর কাছে বিনিত ভাবে দাবী জানাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত