দিঘলিয়ার দেড় লক্ষ মানুষ দেয়ড়া-দৌলতপুর খেয়া ঘাটে চরম ভোগান্তি শিকার

দিঘলিয়ার দেড় লক্ষ মানুষ দেয়ড়া-দৌলতপুর খেয়া ঘাটে চরম ভোগান্তি শিকার

সৈয়দ জাহিদুজ্জামান : দিঘলিয়ার ভৈরব নদী পারাপারের ১৮ টি খেয়াঘাটের অন্যতম জনগুরুত্বপূর্ণ খয়াঘাট দেয়াড়া-দৌলতপুর বাজার খেয়াঘাট। যে ঘাটটি দিঘলিয়ার মানুষের জন্য পারাপারের ক্ষেত্রে মরণ ফাঁদ।
এলাকাবাসীর ও সরেজমিনে পরিদর্শনে জানা গেছে, দিঘলিয়া উপজেলাটি দুইটি নদী দ্বারা ত্রিখন্ডিত জনপদ। ৬ টি ইউনিয়ন নিয়ে এ উপজেলা গঠিত। দুইটি ইউনিয়ন ভৈরব নদীর পশ্চিমে খুলনা মহানগরীর উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত আড়ংঘাটা ও যোগীপোল নামে।  বারাকপুর, দিঘলিয়া ও সেনহাটি ইউনিয়ন ভৈরব, মুজতখালী ও আতাই নদীর মাঝে খুলনা শহর থেকে নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন একটি জনপদ। অপর দিকে গাজীরহাট ইউনিয়নটি দিঘলিয়ার পূর্ব-উত্তর কনে যার অবস্থান এবং আতাই নদী দ্বরা দিঘলিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন। যে কারণে দিঘলিয়ার মানুষ একাধিক নদী দ্বারা খুলনা শহর থেকে বিচ্ছিন্ন এবং দৈনন্দিন প্রয়োজনে প্রতিনিয়ত ১৮ টি খেয়া পারাপার হতে হয়। এ ঘাট গুলো প্রতি বছর ইজারা দেওয়া হয়। কোন ঘাট জেলা পরিষদ, কোন ঘাট উপজেলা পরিষদ এবং কোন ঘাট আবার ইউনিয়ন পরিষদ। খুলনা জেলা পরিষদ নিয়ন্ত্রিত ভৈরব নদী পারাপারের ৮ টি খেয়াঘাটের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ খেয়াঘাট হলো দেয়াড়া-দৌলতপুর বাজার খেয়াঘাট। এ খেয়াঘাটটি লোকজন ও মালামাল পারাপারে মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যুগ যুগ ধরে।  ঘাটের পশ্চিম পারের পাকা জেটি সমান ও পানি থেকে উঁচুতে এবং ধাপগুলো সমান হয়ে গেছে। যেখানে পার হতে গিয়ে লোকজন মালামাল নিয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।অপর দিকে ঘাটের পূর্ব তীরের পাকা জেটিটি ভাঙ্গা ও এতই নিচু যে ভাটার সময় লোকজন মালামাল নিয়ে ট্রলারে  উঠতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।  কারণ ট্রলারগুলো জেটির ধাারে ভিড়াতে পারে না মাঝিরা। অপর দিকে জেটি থেকে ট্রলার খুব উঁচু থাকে। ঘাটের ঠিকাদার পরিবর্তন হলেও ইজারাদার পরিবর্তন হয় না। মাঝি পরিবর্তন হলেও সরকারি ঘাটের লাখ লাখ টাকার ছিটের মালিকানা পরিবর্তন হয়না। যে কারণে এ খেয়াঘাটে মানুষ চরম ভোগান্তির পরিবর্তন হয়না। যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার ও প্রকাশ হলেও এবং লিখিত অভিযোগ জানালেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অজ্ঞাত এমনি অভিযোগ ভুক্তভোগী মহলের। দেয়াড়া গ্রামের সমাজ কর্মী রাজিব এ প্রতিবেদককে জানান,  এ ঘাটের স্থায়ী সমস্যা নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন, জন প্রতিনিধিদের অনেকবার জানানো হয়েছে। গণ মাধ্যমে প্রচার ও প্রকাশ হয়েছে। কিন্তু সমস্যা সমস্যায় থাকছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে দৃষ্টি নেই। এ ব্যাপারে কথা হয় ফরমাইশখানা গ্রামের আর একজন সমাজ কর্মী মোল্লা হারুন অর রশীদের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, এ ঘাটে পারাপার যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে ও অবর্ণণীয়।  নদীর ভাটার সময় ঘাটে শতশত লোকের ভীড় জমে যায়। লোকজন মালামাল নিয়ে নৌকায় উঠতে পারেনা। মাঝিরা নৌকা তীরে ভেড়াতে পারেনা। ঘাটের ঠিকাদার মেশিন দিয়ে মাটি কাটতে চেয়েছিলেন। মাটি কাটতে ৩০ হাজার টাকা চেয়েছে বলে মাটি কাটাচ্ছেনা বলে ঘাটের মাঝিরা জানিয়েছে। দেয়াড়া-দৌলতপুর বাজার খেয়াঘাটের বেহাল অবস্থা ও সাধারণ পারাপার যাত্রীদের চরম ভোগান্তি স্থায়ী রূপ নিয়েছে। এ ব্যাপারে কথা হয় দিঘলিয়ার সুগন্ধী গ্রামের তরুণ সমাজ সেবক ও সুগন্ধী মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোল্লা মাকসুদুল ইসলামের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেও কোনো প্রতিকার পাইনি। অনতিবিলম্বে ঘাটের সমস্যার সমাধান না করলে আমরা মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচী পালনে বাধ্য হবো। দেয়াড়া-দৌলতপুর খেয়াঘাটের নানা সমস্যা ও অব্যবস্থাপনা এবং সাধারণ পারাপার যাত্রীদের মালামাল নিয়ে নদী পারাপারে চরম ভোগান্তি ও দুর্ভোগ নিয়ে কথা হয় দিঘলিয়া উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও খুলনা জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য মোল্লা আকরাম হোসেনের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে ক্ষোভের সাথে জানান যে, এ ঘাটের নানা সমস্যাগুলো একটি মহলের সৃষ্ট। এই ঘাটে অনেকের অবৈধ স্বার্থসিদ্ধি ব্যাবসা ও মুনাফা লাভ জড়িত। যে কারণে এ ঘাটের গণসমস্যাগুলো উত্তরণ করা কারো পক্ষে কঠিন এবং অনিশ্চিত।
 দিঘলিয়ার দেয়াড়া-দৌলতপুর বাজার খেয়াঘাটের নানা অনিয়ম ও অব্যাবস্থাপনা ও সাধারণ পারাপার যাত্রীদের দৈনন্দিন চরম ভোগান্তির ব্যাপারে কথা হয় দিঘলিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মারুফুল ইসলামের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান যে,ঘাটের সমস্যা নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে সমাধানের চেষ্টা করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত