দিঘলিয়ার দেয়াড়া খেয়াঘাট-স্টার দুই নম্বর মোড় পর্যন্ত ফুটপাত বেদখল

দিঘলিয়ার দেয়াড়া খেয়াঘাট-স্টার দুই নম্বর মোড় পর্যন্ত ফুটপাত বেদখল

সৈয়দ জাহিদুজ্জামান ; দিঘলিয়ার দেয়ড়া খেয়াঘাট-সেনহাটি বাজার এবং সেনহাটি বাজার-স্টার ২ নং গেট পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশের ফুটপথের বেহাল অবস্থা তার উপর স্থানীয় মিল গুলোর অভার লোড ট্রাকগুলো সাধারণ মানুষের চলাচলে দুর্ভোগ চরমে। রাস্তার ফুটপথ কোথাও বেদখল কোথাও কাদাপানি জমে থাকছে। রাস্তায় নানা-পরিবহণের ভীড়। বিড়ম্বনা সাধারণ পথ যাত্রীদের।
সূত্র থেকে জানা যায়, দিঘলিয়া উপজেলার দেয়াড়া খেয়াঘাট থেকে লুৎফরের বটতলা পর্যন্ত রাস্তাটি বছর খানেক আগে সংস্কার করা হয়েছে। রাস্তাটিতে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার সিডিউল মোতাবেক কাজ করেনি। যে কারণে পুরা রাস্তাটি কোথাও উঁচু কোথাও নিচু। বর্ষা হলে রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। পাশাপাশি কোথাও ফুটপথ ব্যবসায়ীর দখলে, কোথাও ড্রেন, কোথাও বা ইট-বালি ব্যবসায়ীদের দখলে। আবার কোথায়ও কাদাপানির দখলে। পাশাপাশি বাজারের সরু রাস্তায় জুট মিলগুলোর বরাটকায় অভারলোড ট্রাকগুলোর চাপ। সাধারণ পথিকগণ যাবে কোথায়?
এলাকার বিজ্ঞমহল বলছেন ভিন্ন কথা। তাঁদের অভিমত পাড়াগাঁয়ের এই দুর্বল রাস্তা ব্যবহার না করে এ মিল গুলো নদীপথ ব্যবহার করতে পারে। আর খুলনার শিল্পাঞ্চলের মিলগুলো তাদের পাট নদী পথে আনা নেওয়া করতো।
বিজ্ঞমহল বলছেন, পাট ও পাটজাত পণ্য স্থলপথে পরিবহণ করলে রাস্তাগুলোও আরো মজবুত ও চওড়া করতে হবে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে হবে। তবেই লাঘব হবে জন দুর্ভোগ।
দিঘলিয়ার দেয়াড়া-সেনহাটি রাস্তার সংস্কার ও ফুটপথ নিয়ে কথা হয় ফরমাইশখানা নিবাসী মোল্লা কামাল হোসেনের সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, আসলে রাস্তাগুলোর সমস্যা ও ফুটপথের কথা বর্ণনা করে শেষ করা যাবে না। রাস্তাগুলো যখন সংস্কার করে তখন ঠিকাদারের মর্জি মাফিক করে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তেমন কোনো তদারকি থাকেনা। রাস্তার হ্যাজিং বসায়নি। অনেক জায়গায় রাস্তা নিচু হয়ে গেছে।  কোথাও খোয়া উঠে গর্ত হয়ে পড়েছিল। কোনো শুড়কি না দিয়ে রাস্তায় কার্পেটিং করেছে। যে কারণে রাস্তা কোথাও এমন নিচু যে পানি জমা হয়ে পড়ে। এখনই সাইড ভেঙ্গে পড়ছে। দেয়াড়া খেয়াঘাট থেকে সেনহাটি বাজার মোড় পর্যন্ত এবং সেনহাটি বাজার থেকে স্টার ২ নং গেট পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশের ফুটপথ বেদখল মুক্ত করে লোক চলাচলের উপযোগী করা দরকার।
সেনহাটি বাজারের মধ্য দিয়ে মিলের ওভার লোড পাট ও পাটজাত পণ্যের ট্রাক চলাচল করার কারণে সেনহাটি বাজারের চিপা রাস্তায় চলাচলকারী ক্রেতাদের নানা সমস্যার কথা জানালেন বাজারের দোকানদার হাফিজ। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, জুটমিলের ওভার লোড ট্রাকগুলো বাজারের মাঝ দিয়ে যাতায়াতের সময় অনেক সময় বিদ্যুৎ সংযোগ তার ছিড়ে দোকানদারদের খুবই সমস্যা হয়। পাশাপাশি দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করা সমস্যা হয়। কাদা পানি ছড়িয়ে অনেকের পোশাক নষ্ট হয়। এব্যাপারে তিনি মিলের গাড়িগুলো বন্ধ করে দেওয়া অথবা রাস্তাগুলো চওড়া করার জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
সেনহাটি নিবাসী সমাজকর্মী হাফিজুর রহমান এ প্রতিবেদককে জানান, দিঘলিয়ার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ সেনহাটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। একটু বৃষ্টি হলেই বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ সামনের সীমানা প্রাচীরের পাশে পানি জমে থাকে। শিক্ষার্থীদের, অভিভাবকদের ও পথচারীদের যাতায়াতে সীমহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বাজারের মধ্যে ফুটপথ দোখলে ছাত্র-ছাত্রীদের বিড়ম্বনা আরো বেশী।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত