শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
ধর্ষণ হতে আল্লাহর আইনই মুক্তির পথ -মোঃমোস্তাফিজুর রহমান

ধর্ষণ হতে আল্লাহর আইনই মুক্তির পথ -মোঃমোস্তাফিজুর রহমান

নষ্ট সমাজের বিকৃত রুচির মানুষের জন্য আজ চার দিকে ধর্ষণের ভয়াবহতা আউট অব কন্ট্রোলে চলে যাচ্ছে, প্রতিনিয়তই ঘটছে পুরুষ কর্তৃক নারীর প্রতি হিংস্র থাবা, এর থেকে পরিত্রাণের উপায় কি আজও মিলবে না?অবশ্যই মিলবে যদি আমরা ঐ সত্তার সংবিধানের(আল কুরআন) নিকট ফিরে যায়।ইসলামী আইন অনুযায়ী  ধর্ষকের শাস্তি ব্যভিচারকারীর শাস্তির অনুরূপ।  ব্যভিচার বড় ধরনের গুনাহ সুস্পষ্ট হারাম বড় ধরনের অপরাধ,আল্লাহ সুবহানাহু  ইরশাদ করেন, তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং খারাপ রাস্তা ।’ (সুরা আল ইসরা, আয়াত : ৩২)
 ইমাম কুরতুবি (রহ.) বলেন, “উলামায়ে কেরাম বলেছেন, ‘ব্যভিচার করো না’-এর চেয়ে ‘ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না’ এটি অনেক বেশি কঠোর বাক্য।” এর সহজ অর্থ হলো, যেসব বিষয় ব্যভিচারে উদ্বুদ্ধ করে ও ভূমিকা রাখে সেগুলোও হারাম।
ধর্ষণের শাস্তির ব্যাপারে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে। এক হাদিসে আছে, রাসুল (সা.)-এর যুগে এক মহিলাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করা হলে রাসুল(সা.) তাকে কোনোরূপ শাস্তি দেননি, তবে ধর্ষককে হদের শাস্তি দেন।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস নং: ২৫৯৮)(যেসব শাস্তির পরিমাণ ও পদ্ধতি কোরআন-হাদিসে রয়েছে সেগুলোকে হদ বলে)
অন্য হাদিসে আছে, গণিমতের পঞ্চমাংশে পাওয়া এক দাসির সঙ্গে সরকারি মালিকানাধীন এক গোলাম জবরদস্তিপূর্বক ব্যভিচার (ধর্ষণ) করে। এতে তার কুমারিত্ব নষ্ট হয়ে যায়। উমর (রা.) ওই গোলামকে বেত্রাঘাত করেন এবং নির্বাসন দেন। কিন্তু দাসিটিকে (অপকর্মে) সে বাধ্য করেছিল বলে তাকে বেত্রাঘাত করেননি।’ (বুখারি, হাদিস নং: ৬৯৪৯)ইসলামে ব্যভিচারের শাস্তি ব্যক্তিভেদে একটু ভিন্ন। নিজের স্বামী/স্ত্রী থাকাবস্থায় যদি কেউ ব্যভিচারী হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে পাথর মেরে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া ইসলামের বিধান। আর যদি আর যদি ব্যভিচারী (নারী-পুরুষ) অবিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে একশ’টি বেত্রাঘাত করা হবে।
আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘ব্যভিচারিণী নারী ব্যভিচারী পুরুষ, তাদের প্রত্যেককে একশ’ করে বেত্রাঘাত কর। আল্লাহর বিধান কার্যকর করার কারণে তাদের প্রতি যেন তোমাদের মনে দয়ার উদ্রেক না হয়, যদি তোমরা আল্লাহর প্রতি ও পরকালের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাকো। মুসলমানদের একটি দল যেন তাদের শাস্তি প্রত্যক্ষ করে।’ (সুরা নুর, আয়াত : ২)
হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘অবিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে শাস্তি একশ’ বেত্রাঘাত এবং এক বছরের জন্য দেশান্তর। আর বিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে একশ’ বেত্রাঘাত ও রজম (পাথর মেরে মৃত্যুদণ্ড)।’ (মুসলিম)
ইসলামি  বিশেষজ্ঞরা বলেন, এক্ষেত্রে হদ শরিয়তকর্তৃক নির্ধারিত শাস্তি হলো, একশ’ বেত্রাঘাত। আর দেশান্তরের বিষয়টি বিচারকের বিবেচনাধীন। তিনি ব্যক্তি বিশেষে চাইলে তা প্রয়োগ করতে পারেন।ব্যভিচারির চেয়েও ভয়ংকর অপরাধ হলো ধর্ষণ। ইসলামে ব্যভিচারের পাশাপাশি ধর্ষণও কবিরা গুনাহর অন্তর্ভুক্ত। কোনো ব্যক্তি যদি ধর্ষণের শিকার হয়, তাহলে তার করণীয় হলো, সম্ভব হলে তা প্রতিরোধ করা সেটাও যদি সম্ভব না হয়, তাহলে অন্য যে কোন পন্থায় ধর্ষণকারী হতে নিজের মরণ পর্যন্ত সতিত্ব রক্ষা করতে প্রাণপনে লড়াই করবে যতক্ষণ না মরণ হয়। সাইদ ইবনে জায়েদ (রা.) বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, সম্পদ রক্ষা করতে গিয়ে যে ব্যক্তি নিহত হয়েছে, সে শহীদ। জীবন রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সেও শহীদ। দ্বীন রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সে শহীদ। আর সম্ভ্রম রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সেও শহীদ। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৭২। আল্লাহর আইন- ই- একমাত্র ভরসা যা যথাযথ বাস্তবায়নের মাধ্যমে নারী সমাজকে ধর্ষণের মত হিংস্র থাবা থেকে রক্ষা করা যাবে ইনশাআল্লাহ । আল্লাহ আমাদের অন্তর আত্মাকে পরিচ্ছন্নতার চাদরে আচ্ছাদন করে, ধর্ষণের কড়াল গ্রাস থেকে এ জাতিকে রক্ষা করুন আমিন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত