শিরোনাম :
কেন্দুয়া কৈজানি নদীতে ঝাঁপ দেয়া হালিমের লাশ উদ্ধার খুলনায় ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক নিহত শাহজাদপুরে পিপিভি নারীকে চাকরিতে পূর্ণবহালের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ  শেরপুরে বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তার বিচার দাবিতে মানববন্ধন সালথায় পেঁয়াজের আড়তে ভোক্তা অধিদপ্তরের তদারকি দিঘলিয়ায় সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী পালন মিরপুর বিআরটিএ কার্যালয়ে অভিযান ; ২ দালালের সাজা কেন্দুয়ায় ফুটবল প্রীতিম্যাচ অনুষ্ঠিত কেন্দুয়ায় বাবার বাড়ি পুড়িয়ে দিল ছেলে ধীরগতিতে কমছে যমুনার পানি বানভাসির মধ্যে বিশুদ্ধ পানিসহ তীব্র খাদ্য সংকট
নওগাঁর নিয়ামতপুরে শিব-কালী মন্দিরের তদন্ত করতে এলে,নায়েবের সামনেই বাদীকে মার-পিট করে জখম

নওগাঁর নিয়ামতপুরে শিব-কালী মন্দিরের তদন্ত করতে এলে,নায়েবের সামনেই বাদীকে মার-পিট করে জখম

এ.বি.এম.হাবিব-
নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার রামগাঁ গ্রামের শিব-কালি বিগ্রহ মন্দিরের নামে থাকা ৩.০৪ একর জমি পার্শবর্তী ব্রজেন নামের ব্যক্তি জবর-দখল করে, দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর যাবত খেয়ে আসছিল। মন্দিরের কোন উন্নয়ন না করে, তাদের নিজের উন্নয়নে ব্যাস্ত থাকে। তাদের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ এলাকাবাসীর অভিযোগ,শিব-কালি বিগ্রহের শিব লিঙ্গের ক্রিয়োদ অংশও তারা কয়েক লক্ষ টাকা দিয়ে  বিক্রয় করে, নিজেদের মাটির বাড়ী ভেঙ্গে ইটের ডুপ্লেক্স তৈরি করছে। স্থানীয়রা এ বিষয়ে বহুবার, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোন অজানা কারণে তা স্থগিত হয়ে যায়।
এবার গ্রামবাসী সকলে মিলে নওগাঁ জেলা প্রশাসক(ডিসি) বরাবর মন্দিরের বিস্তারিত বিষয় জানিয়ে লিখিত অভিযোগ দিলে তা নিয়ামতপুর ভুমি অফিসের নায়েব এর উপর তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়।
গত (১৫ এপ্রিল) সোমবার নায়েব রামগাঁ শিব-কালি বিগ্রহ মন্দির প্রাঙ্গণে সরেজমিনে তদন্ত করতে গেলে, স্থানীয়রা বিষয় গুলো সত্য বলে জানান। মন্দিরটি সব সময় তালা বদ্ধ করে রাখে ব্রজেন, ব্রজেনের ভাই ও তার ছেলে।  কোন অনুষ্ঠান বা পুজা নিজেরাও করে না,অন্যদেরকেও করতে দেয় না। এমন বহু অভিযোগ এলাকাবাসিরা দেয়। এমন সময় ব্রজেন, তার ভাই,ও ছেলে মোটরসাইকেল নিয়ে এসে নেমেই, সন্ত্রাসী কায়দায়,এলাকাবাসীদের পক্ষে বাদী গৌরাঙ্গকে ধরে এলোপাতাড়ি ভাবে কিল,ঘুষি মারতে শুরু করে। গৌরাঙ্গর স্ত্রী আগাইতে গেলে,তাকেও বেদম মারপিট ও নির্যাতন করে, তার পড়ণের কাপড়ও খুলে নেওয়ার চেষ্টা করে তারা। এ সকল ঘটনা তদন্ত অফিসার নায়েব,সাংবাদিক ও স্থানীয়দের সামনেই ঘটছিল,সাংবাদিকরা তা ক্যামেরা বন্দীও করেছে। স্থানীয়রা কেহ ব্রজেন, তার ভাই ও ছেলেদের ভয়ে কাছে যেতেও পারছিল না। এরপর গৌরাঙ্গকে তারা পুকুরের দিকে টেনে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে গৌরাঙ্গ,র স্ত্রী সহ কয়েকজন এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ামতপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়।
পরবর্তীতে সে গত (২৩এপ্রিল) নওগাঁ কোর্টে একটি মামলা করেন। কোর্ট তার তদন্তের জন্য নিয়ামতপুর থানায় দেন।
স্থানীয়রা সহ সকলে সন্ত্রাসী, ভুমিদস্যুর সুষ্ঠ বিচারের দাবী জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত