শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
নওগাঁ ধামুইরহাটে আদিবাসীদের স্যাক্ষর জালিয়াতি করে ১২ বিঘা জমি জবর-দখলের অভিযোগ

নওগাঁ ধামুইরহাটে আদিবাসীদের স্যাক্ষর জালিয়াতি করে ১২ বিঘা জমি জবর-দখলের অভিযোগ

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ নওগাঁ জেলার ধামুইরহাট উপজেলার চৌঘাট গ্রামের অশিক্ষিত আদিবাসী ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠিকে বোকা বানিয়ে তাদের স্যাক্ষর জালিয়াতি করে ১২ বিঘা  (৪একর)  জমি জমি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, ধামুইরহাট উপজেলার চৌঘাট মৌজাস্থ্য জে,এল নম্বর-৫৪, আর এস ২২১ নম্বর খতিয়ানভুক্ত ৬৯৮ দাগে ৬.৪১ একর জমি পৈত্রিকসূত্রে প্রাপ্ত  মালিক ৩ ভাই, মৃতঃ বৈদ্যনাথ উরাওয়ের ছেলে, ১। গঙ্গারাম উরাও, ২।শ্যামাচরন উরাও ও ৩। শম্ভুনাথ উরাও।  তাহারা জানায়, ১৯৯৪ সালে তাদের সংসারে অভাব অনটনের কারনে, স্থানীয় ইসমাইল হোসেনের নিকট কিছু টাকার বিনিময়ে শ্বন- করালি (খাই-খালাসি) রাখে ১৫ বছরের জন্য। সে সুযোগে ইসমাইল তাদেরকে ফাঁকা ষ্ট্যাম্পের উপর তিন ভাইয়ের সহি করে নেয় এবং বলে যে, বাঁকীটা আমি ঠিক করে নেবো। আদিবাসীরা সরল বিশ্বাসে সহি করে দেয়।পরবতীতে ১৫ বছর পর, খুব কষ্ট করে  আদিবাসীরা জমিটি ইসমাইলের কাছ থেকে ফেরত নেয়। এবং প্রায় ১০ বছর ধরে, পুর্বের ন্যায় ফসল ফলায়ে পৈতৃক সম্পতিটি ভোগ দখল করে আসছে। এমতবস্থায় হঠাৎ করে ইসমাইল ০৪/১২/১৯ ইং তারিখে কি কি যেন কাগজ দেখিয়ে, বিভিন্ন দেশি-বিদেশি অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে আদিবাসীদের উপর হামলা চালায়ে প্রায় ১২ বিঘা জমির ধান একদম বিনষ্ট করে ইসমাইল,,,,তার ছেলে ও তার লোকজনেরা। এভাবে পর পর ৩ বার প্রায় ১২ বিঘা জমির ধান বিনষ্ট করে গরীব,দুঃখি আদিবাসীদের বিশাল ভাবে ক্ষতি গ্রস্ত মধ্য ফেলে দেয় ইসমাইল গংরা। স্থানীয় অসহায় আদিবাসীরা উপায় অন্ত না পেয়ে, এ বিষয়ে নওগাঁ কোর্টে  মামলা করিলে, ইসমাইল গংরা,  গত ১৮/০২/২০২০ ইং তারিখে, আর কখনো উক্ত জমিতে যাবেনা এবং আর কখনো আদিবাসীদের উপর হামলা করবেনা মর্মে বোন্ডে স্যাক্ষর করে আসে। এরপর এসে আবারো আদিবাসীদের উপর হুমকি- ধামকি এবং আদিবাসীদের লাগানো কিছু কলার গাছ কর্তন করে, উল্টো নিজেদের কলা গাছ লাগানোর দাবী করে ইসমাইল ও তার ছেলেরা, আদিবাসীদের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি অব্যহত রেখেছে বলে আদিবাসীরা জানায়। সর্বশেষ ইসমাইল গংরা তাদের লাগানো ধান গুলো নষ্ট করার পর গত ১৬/০২/২০২০ ইং তারিখ রোজ রবিবার সাংবাদিকেরা সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইসমাইল গংরা যে ধান গুলো উপড়ে ফেলেছিলো, সেগুলো জমিতে আদিবাসী মহিলা,পুরুষ সঙ্গে নিয়ে নতুন ধানের গাছ গুলো তারা সবাই মিলে ধান রোপন করে। খুব আপসোস এবং কান্না জড়িত কন্ঠে আদিবাসী শ্যামা চরন উড়াও বলে, বাবারে,, আর কত অত্যাচার সহ্য করমু। বার বার আমার লাগানো ধান গুলো উপড়ে দিতেছে, হামাকে মেয়েদেরও হুমকি দিতাছে ইসমাইলে ছেলেরা। হামাকেও নাকি মেরে ফেলে দিবো। হামি কি করমু, হামাকে সাথে এতো চালাকি,এতো অত্যাচার করছে ইসমাইল ও তার ছেলেরা। এ বিষয় গুলো নিয়ে ইসমাইল ও তার ছেলেদের জিজ্ঞাসা করিলে, সব অস্বীকার করে। ইসমাইল, ১৫/০৮/১৯৯৫ সালে ধামুইরহাট রাজস্ব কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত আদিবাসীর সম্পত্তি বিক্রয়ের অনুমতি দেখায়। যাহা ধামুইহাট ভুমি অফিসে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, সেখানে আদিবাসীর জমি বিক্রয়ের কোনই নথিপত্র হয় নাই বা পারমেশন নাই। বা বর্তমানে ধামুইহাট উপজেলার কাহারো অনুমতিতে আদিবাসীদের জমি বিক্রয়ের পারমেশন হবে না বলে জানায়। এবং ধামুইরহাট ভুমি অফিস থেকে জানায়, আদিবাসীদের ১ শতক জমি বিক্রয় হইলেও সেটা এডিসি সাহেবের অনুমতি থাকিতে হইবে, কিন্তু এটা ১২ বিঘা জমি,,,এ বিষয়ে আপনারা ডিসি অফিসে খোঁজ নিতে পারেন। নওগাঁ ডিসি অফিসের আরএমও শাখায় এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, ২.৪১ জমির পারমেশন হয়েছে সেটা অন্য জনের নামে। ইসমাইলের নামের কোন পারমেশন বা রের্কড সেখানে নেই। ইসমাইলের পারমেশন বিষয়ে জিজ্ঞাসা করিলে, অফিস সহকারীরা জানায়, আমরা এ বিষয়ে ধামুইরহাটে নথি  তলব করেছিলাম কিন্তু তারা সেখানকার কোন নথিপত্র দেখাতে পারে নাই। আদিবাসী গঙ্গারাম উরাও,শ্যামাচরন উরাও ও শম্ভুনাথ উরাও জানায় আমরা কখনোই রেজিষ্ট্রি অফিসে যাই নাই বা ইসমাইলকে জমি লিখে দেই নাই। স্থানীয় মহলের মনে প্রশ্ন, আদিবাসীরা রেজিষ্ট্রি অফিসে গেলো না, অথচ জমি রেজিষ্ট্রি দেখাচ্ছে ইসমাইল, পারমেশনের ডকুমেন্ট কোন অফিসে নেই, অথচ সেটাও দেখাচ্ছে। এ বিষয়ে ধামুইর হাট রেজিষ্ট্রি অফিসের বাহিরে নাম না প্রকাশ শর্তে জানায়, আজ থেকে ২০/২৫ বছর আগে জমির মালিক ছাড়াও বহু জমি ক্রয়-বিক্রয় ও রেজিষ্ট্রি হয়েছে। প্রশ্ন করা হয়, কিভাবে সম্ভব? সে জানায়, আজ থেকে ২০/২৫ বছর আগে ভোটার আই,ডি ছিলো না। তখন অতিরিক্ত চালাক লোকেরা যেকোন লোককে জমির মালিক সাজিয়ে খুব সহজেই এমন কাজ সম্ভব হয়েছে। যাহা বর্তমানে বাংলাদেশে এটি একটি বড় সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবে হ্যাঁ, আদিবাসীদের জমি গুলো শুধু পারমেশন না থাকার কারনে হয়তো রক্ষা পাবে। ধামইরহাট থানার ওসি শামীম হাসান সরদার বলেন, দুই পক্ষই মৌখিক ভাবে অভিযোগ করছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত