নেত্রকোনায় নাশকতা মামলার আসামি হলেন প্রবাসী 

নেত্রকোনায় নাশকতা মামলার আসামি হলেন প্রবাসী 

গজনবী বিপ্লব :
নেত্রকোনার বারহাট্টায় নাশকতার চেষ্টার অভিযোগে মো. হাবিবুর রহমান (৪১) নামে এক প্রবাসীর নামে মামলা দিয়েছে পুলিশ। এ নিয়ে এলাকায় নানা আলোচনা-সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে।
গত ৩০ নভেম্বর বারহাট্টা উপজেলার কদম দেউলি এলাকায় বিস্ফোরকদ্রব্য, ককটেল ও মশাল নিয়ে পুলিশ বক্সে হামলা ও রেললাইনে ক্ষতি সাধনের চেষ্টার অভিযোগে বিএনপির ৯৪ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করে পুলিশ।
তাঁদের মধ্যে বারহাট্টা উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব আশিক আহমেদ কমলকে প্রধান আসামি ও কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা এ টি এম আব্দুল বারী ড্যানীসহ ৬৪ জন নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ ও আরও ৩০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।
এ মামলায় ৩৫ নম্বর আসামি করা হয়েছে মো. হাবিবুর রহমানকে। হাবিবুর রহমান বারহাট্টা উপজেলার বাউসী ইউনিয়নের রামভদ্রপুর গ্রামের মৃত দুখু মিয়ার ছেলে।
পরিবারের লোকজন জানিয়েছে, হাবিবুর ১৭ বছর ধরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে থাকেন। হাবিবুর শেষবার ২০২০ সালে দেশে এসেছিলেন। ছয় মাস দেশে ছুটি কাটিয়ে ফের দুবাই চলে যান। এরপর আর দেশে আসেননি। হাবিবুর কোনো রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়।
হাবিবুরদের ছয় ভাইয়ের মধ্যে পাঁচজনই প্রবাসী। ভাইদের মধ্যে সবার বড় হাবিবুর। তাঁর এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে।
বিদেশে থাকা হাবিবুরের নামে নাশকতা মামলা হওয়ার ঘটনায় এলাকায় নানা আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।
স্থানীয়রা বলছেন, ‘এটি একটি গায়েবি মামলা। বিদেশ থেকে ভিসা-পাসপোর্ট ছাড়া দেশে এসে নাশকতা করে আবার চলে গেলেন কেমনে?’
এ বিষয়ে হাবিবুর রহমানের স্ত্রী জোৎস্না আক্তার বলেন, ‘আমার স্বামী হাবিবুর রহমান ১৭ বছর ধরে দুবাই থাকেন। প্রায় আড়াই বছর আগে শেষবার দেশ থেকে ছুটি কাটিয়ে দুবাই গিয়েছে। বিদেশে থেকে বারহাট্টায় এসে ককটেল ও বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ে নাশকতা করতে গেল কীভাবে? সে তো কোনো রাজনীতিও করে না। তাহলে বিএনপি নেতাদের সঙ্গে তার মামলায় আসল কীভাবে বুঝলাম না। এটি একটি মিথ্যা মামলা।’
বিদেশে থাকা হাবিবুরের নামে নাশকতার মামলা হওয়ার খবর শুনে হতবাক হন তাঁর মা মহিলা খাতুন। তিনি বলেন, ‘আমার ছেলে দেশেই থাকে না, তাহলে বারহাট্টায় নাশকতা করবে কীভাবে। ১৭ বছর ধরে বিদেশে থাকে। দেশে থাকাকালেও কোনো দেলের রাজনীতি করেনি।’ এমন মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।
হাবিবুরের চাচাতো ভাই মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘হাবিবুরদের পরিবারের কেউ রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নয়। তারা ছয় ভাইয়ের পাঁচজনই প্রবাসী। এটি একটি মিথ্যা মনগড়া মামলা।’
বাউসী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আইনুল হক বলেন, ‘হাবিবুর রহমান দুবাই থাকে দীর্ঘ বছর ধরে। কখনো কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। তার একজন প্রয়াত মামা বিএনপির নেতা ছিলেন। হাবিবুর শেষবার প্রায় আড়াই বছর আগে দেশ থেকে গিয়েছে। দুবাই থাকা অবস্থায় দেশে নাশকতা করা সম্ভব না। এটি একটি মিথ্যা মামলা। মামলা রেকর্ড করার আগে বিষয়টি তদন্ত করা দরকার ছিল।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার বাদী বারহাট্টা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সোহেল খান মোবাইল ফোনে বলেন, ‘ঘটনাটি শতভাগ সত্য। তবে আসামির বিষয়টি তদন্ত করে পরে বাদ দেওয়া হবে।
এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব ডা. রফিকুল ইসলাম হিলালী বলেন, ‘বিদেশে থাকা ব্যক্তিকে আসামি করা পুলিশের কাছে এটা তো তেমন কিছু না। এর আগে মৃত মানুষের বিরুদ্ধেও মামলা দিয়েছে। মামলা যখন গায়েবি তখন সবকিছুই সম্ভব।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত