শিরোনাম :
দিঘলিয়া উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী  নওগাঁয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর অভিযানে ৬কেজি গাঁজাসহ আটক-১ নাহিদুজ্জামান বাবুর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি  সিরাজগঞ্জে গরু চুরিতে বাধা দেওয়ায় পিকআপের চাপায় গৃহবধু হত্যা,ডাকাত দলের ৪ পলাতক আসামী গ্রেফতার বড়াইগ্রামে পাটোয়ারী কোয়ালিটি এডুকেয়ার ইনস্টিটিউটে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্টিত পূর্বধলায় সরকারী চাকুরীজীবী হওয়া সত্বেও করেন সাংবাদিকতা খুলনায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা শুরু ,বই ছাড়া জ্ঞান অর্জন করা যায় না -সিটি মেয়র বিভাগীয় সমাবেশ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির বর্ধিত সভা পাতাল রেল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে ‘বিশ্ব হাত গুটিয়ে বসে থাকলে আবারো ২০১৭ সালের পুনরাবৃত্তি হবে :জাতিসংঘ
নেত্রকোনায় নিয়ম বহির্ভুতভাবে সড়কের গাছ বিক্রি, দায় নিচ্ছে না কেউ

নেত্রকোনায় নিয়ম বহির্ভুতভাবে সড়কের গাছ বিক্রি, দায় নিচ্ছে না কেউ

গজনবী বিপ্লব:
নেত্রকোনার বাহাট্টায় নিলাম বা দরপত্র আহ্বান ছাড়াই নিয়ম বহির্ভুতভাবে সড়কের পাশে থাকা  সরকারি গাছ বিক্রি করা হচ্ছে। এ নিয়ে প্রশাসন, বন বিভাগ ও এলজিইডি সংশ্লিষ্ট দপ্তর একে অপরকে দায়ী করছে। তবে দায় নিচ্ছে না কেউ।
গত ১৫ দিন ধরে এভাবে উপজেলার সাহতা সড়কের পাশে থাকা মেহগণি, আকাশিসহ বিভিন্ন গাছ নির্বিচারে কাটা চলমান থাকায় এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
এদিকে নিলামে গাছ বিক্রি হলেও স্থানীয় বন বিভাগ বলছে এ বিষয়ে তাদের কিছু জানা নেই। গাছ বিক্রি করেছে প্রশাসন। এ বিষয়ে প্রশাসন বলতে পারবে।
আর প্রশাসন বলছে- নিলাম টেন্ডার করেছে বন বিভাগ। এ বিষয়ে প্রশাসনের কিছু জানা নেই। এভাবে গাছ কর্তনকে দুষ্কৃতিকারীদের কাজ বলছে প্রশাসন।
স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) বলছে, তারা এ  বিষয়ে কিছুই জানে না।
এদিকে সাহতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চঞ্চল জানিয়েছেন, গাছ কাটার বিষয়ে আমার কিছুই জানা নেই। এমনকি গাছ বিক্রির বিষয়ে কোন দরপত্র আহ্বান  করা হয়নি। এমনটা হলে তো আমি ওই কমিটিতে সদস্য থাকার কথা।
গাছ কাটার আদেশের কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা গেছে, গত ৪ ডিসেম্বর উপজেলার সাহতা ও বাউসী ইউনিয়নের রাস্তার ধারে গাছ বিক্রির নিলাম অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলা সদরের মো. নয়ন মিয়া নামে এক ব্যক্তি নিলামে সর্বোচ্চ দর দাতা হওয়ায় তাকে রাস্তার পাশে দন্ডায়মান ও কর্তনকৃত গাছগুলো আগামী সাত দিনের মধ্যে সরিয়ে নিতে বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম মাজহারুল ইসলাম।
তবে ওই আদেশে কতগুলো গাছ কাটা হবে। এর দাম কতো তাও ওই আদেশে উল্লেখ নেই।
জানা গেছে, কোন নিলাম বা দরপত্র আহ্বান ছাড়াই সাহতা সড়কের গাছ কাটার নির্দেশ দেন ইউএনও।  এ বিষয়ে কোন প্রচারণাও তিনি চালাননি। এমনকি নিলামের জন্য কোন কমিটিও গঠন করেননি তিনি। নিজের মন মতো সড়কের গাছ বিক্রি করে দিয়েছেন।
স্থানীয়রা জানান, গত ১৫ দিন আগে সাহতা সড়কের দ্ইুপাশে থাকা মেহগণি ও আকাশি গাছ কাটা শুরু করে কয়েকজন ব্যক্তি। স্বল্প দশাল গ্রামের নয়ন মিয়ার নির্দেশে তারা এসব কাটছে বলে জানায়। পরে নয়ন মিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি নিলামে সড়কের গাছ কিনেছেন বলে জানান। এ সংক্রান্ত কাগজপত্রও তার কাছে আছে বলে জানান। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে সন্দেগ সৃষ্টি হলে গাছ কাটায় বাধা দেন।  দুইদিন বন্ধ থাকার পর ফের লোকজন দিয়ে গাছ কাটা শুরু করেন নয়ন মিয়া।  তবে এ বিষয়ে প্রশাসনে অভিযোগ দিলেও তেমন আমলে নেয়নি প্রশাসন। এই কয়দিনে নয়ন মিয়া সড়কের ১৯টি গাছ কেটে ফেলে।
বারহাট্টা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস বাবুল জানান, সড়কের সরকারি গাছ বিক্রি করতে গেলে নিয়মানুযায়ী তো নিলাম কমিটি গঠন করতে হয়। সেই নিলামের বিজ্ঞপ্তি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশ করতে হয়। এসব কিছুই করতে দেখিনি।  হঠাৎ  কয়েকজন লোক সড়কের গাছ কাটতে শুরু করল। স্থানীয়রা বাধা দেওয়ার পর জানা গেল ওইসব গাছ নিলামে বিক্রি করা হয়েছে। তবে কে নিলাম করেছে বন বিভাগ- প্রশাসন কেউ তা বলতে পারেন না।  এটা তাহলে কি ধরণের নিলাম? গাছ কাটার আদেশে ইউএনও’র স্বাক্ষর থাকলেও কয়টা গাছ সেই সংখ্যা নেই, কত টাকায় নিলাম হয়েছে তাও নেই। এটা কেমন ধরণের নিলাম?  ইউএনও কখনও বলছেন গাছ কেটেছে দুস্কৃতিকারীরা। ইউএনও যদি আদেশ দিয়ে থাকেন, আর নয়ন মিয়া যদি নিলামে গাছ কিনে থাকেন, তাহলে নয়ন মিয়া দুস্কৃতিকারী হবেন কেন? আসল বিষয়টা সবার সামনে পরিষ্কার হওয়া দরকার।
সাহতা গ্রামের আরিফুর রহমান সুমন জানান,  নির্বিচারে গাছ কাটা দেখে প্রশাসনকে জানিয়েছি তারা কোন পদক্ষেপ নেয়নি।
সাহতা ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকর্তা (নায়েব)  মো. রফিক বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।
 নয়ন মিয়া বলেন, আমি ২১টি গাছ ৭০ হাজার টাকায় নিলামে ক্রয় করেছি। তাই কেটে নিচ্ছি। এ বিষয়ে ইউএনও স্যারের কাছে জানুন। এখন এলাকাবাসী বাধা দিয়েছে তাই সবগুলো গাছ নিতে পারিনি।
উপজেলা বন কর্মকর্তা আব্দুর রফিক বলেন, গাছ বিক্রির বিষয়ে আমি কিছু জানি না।  সব ইউএনও স্যার জানেন। নিলাম, দরপত্র এসব কিছুই জানি না। তবে গাছের দাম নির্ধারণের জন্য ইউনও স্যার ডেকেছিলেন। তাই আমি দাম নির্ধারণ করে দিয়ে এসেছি।
গাছ কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে একেক সময় একেক রকম তথ্য দেন ইউএনও এস এম মাজহারুল ইসলাম। আদেশে গাছের সংখ্যা ও টাকার পরিমাণ নেই  এ বিষয়ে ইউএনও’র দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, এসব বন বিভাগ করেছে, তাই ওলট পালট করেছে। তবে নিলামে যান চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ ও মরা গাছ কাটার জন্য বলা হয়েছে। এক পর্যায়ে গাছ কেটে নেওয়া লোকজনকে দুষ্কৃতিকারী হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত