শিরোনাম :
“প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম)- সেবা” পেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার সাভারে বিএনসিসির সেন্ট্রাল ক্যাম্পিংয়ের সম্মিলিত কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত এম এম আমিনুল ইসলামকে আয়ারল্যান্ড প্রতিনিধি হিসাবে নিয়োগ দান  লক্ষীপুরে ডিবির জালে যৌন কর্মীসহ ৫জন আটক রক্তবন্ধু সমাজকল্যাণ সংগঠনের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অভিভাবক এওয়ার্ড ও গুণীজন সম্মাননা সাভার উপজেলা পরিষদ ঢাকা-১৯ এর এমপিকে সংবর্ধনা নওগাঁর পুলিশ সুপার”প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল” (পিপিএম-সেবা) প্রাপ্তি বড়াইগ্রামে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত  মাদক নিয়ে  ট্রেন চালক সহ গ্রেপ্তার ৫  ভোলায় রওশন আরা ও রাব্বী হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন 
বাফুফে নির্বাচনে টঙ্গী ক্রীড়া চক্রের সভাপতি নূরুল ইসলাম নূরু ; দোয়া সমর্থন ও মূল্যবান ভোট প্রাত্যশী

বাফুফে নির্বাচনে টঙ্গী ক্রীড়া চক্রের সভাপতি নূরুল ইসলাম নূরু ; দোয়া সমর্থন ও মূল্যবান ভোট প্রাত্যশী

এম এস আই জুয়েল পাঠান : গাজীপুরের টঙ্গী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নূরুল ইসলাম নূরু সফলতার সাথে দীর্ঘদিন যাবত টঙ্গী থানা আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন, এছাড়াও তিনি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ৪৬নং ওয়ার্ড থেকে টানা চার চারবার নির্বাচিত ও জনপ্রিয় সফল কাউন্সিলর। এবার তিনি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে বাফুফে ২০২০ইং নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী জনাব কাজী সালাহ্উদ্দিন ও সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী এমপির সম্মিলিত প্যানেলে ২০নং ব্যালট সদস্য পদপ্রার্থী। নূরুল ইসলাম নূরু খেলাধুলোকে ভীষণভাবে ভালোবাসেন। একসময় নিজেও খেলতেন, বিশেষ করে ফুটবলের প্রতি তার দারুণ আকর্ষণ। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই ফুটবলের সাথে জড়িত, স্কুল ফুটবল, আন্তঃস্কুল ফুটবল, কলেজ ফুটবল, আন্তঃকলেজ ফুটবল খেলেছেন। ফুটবলের প্রতি ভালবাসার কারনে-তিনি ২০০৭ সালে টঙ্গী ক্রীড়াচক্র প্রতিষ্ঠা করে অদ্যাবধি এই সংগঠনের সাথে জড়িত অনেক খেলোয়াড়কে জাতীয় পর্যায়ে বিসিএল, বিপিএল, প্রথম বিভাগ, তৃতীয় বিভাগ সহ বিভিন্ন ক্লাবে খেলায় অংশগ্রহণ করিয়ে সুনাম অর্জন করে চলেছেন। যেমন জাতীয় দলের ইয়াসিন খান, সাবেক খেলোয়াড় জাবেদ খান ও খাইরুল কবির সবুজ, জাতীয় যুবদলের সাবেক গোলকিপার রাজীব, চ্যাম্পিয়নলীগে ফারুক, উল্লাস, ইয়াসিন। ফার্ষ্ট ডিভিশন-এ মূসা, বোরহান, বিপুল, নৌ-বাহিনীতে হাসান, মিলন, সেনাবাহিনীতে কামাল অন্যান্য ক্লাবে অংশগ্রহন করেন। ক্রীড়াঙ্গনে নূরুল ইসলাম নূরুর অর্জন সমূহঃ ৩য় বিভাগ হতে রানার্সআপ হয়ে ২য় বিভাগে পদার্পণ ২০১১ সাল। প্রতিবছর টঙ্গীতে মেয়রকাপ টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেন। প্রতিবছর টঙ্গী ক্রীড়াচক্রের মাধ্যমে ফুটবল, ক্রিকেট, দাবা, ব্যাডমিন্টন ও কেরাম খেলার আয়োজন করেন। প্রতিবছর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে। ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নানা রকম ক্রীড়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। সারাবছর জুড়ে তিনি নানা রকম খেলাধুলোর আয়োজন করে ক্ষুদে প্রতিভা অন্বেষন কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন, এবং তাদের নিয়মিত অনুশীলনের ব্যবস্থা করেন। পেশাদার ক্লাব হিসেবে পথ চলার জন্য এনেছেন জাতীয় পর্যায়ের কোচ। জাতীয় ফুটবল প্রসঙ্গে তিনি বলেন- আমি আশাবাদী ভবিষ্যতে বাংলাদেশ উন্নতি হবে ফুটবলে। আমার মতে বাংলাদেশ বিশালভাবে ফুটবলের উন্নতি হবে, একদিন বাংলাদেশ ফুটবল দল বিশ্বকাপেও খেলবে। আমরা চাই বাংলাদেশে এই খেলাকে আরও জনপ্রিয় করতে।ক্রিকেটের মতো যদি ফুটবলকে গুরুত্ব দিয়ে জাতীয় পর্যায়ে বেশি বেশি ঘরোয়া লীগ খেলার আয়োজন করা হয় তাহলে বাংলাদেশের খেলার সংস্কৃতিতেও বিশাল পরিবর্তন আনবে। তাছাড়াও ফুটবল মাঠে এলে এই ধরণের খেলার সংস্কৃতির সঙ্গে আরও বেশি পরিচিত হওয়া যাবে। নূরুল ইসলাম নূরুর প্রতি প্রশ্ন ছিলো: কেউ কেউ তো আপনাদের প্যানেলের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে অতীতে সভাপতি কাজী সালাহ্উদ্দিন এর উল্লেখ যোগ্য কোন সফলতা নেই, তাহলে কিভাবে এই প্যানেলে থেকে আপনি ফুটবলে পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখছেন?? নূরুল ইসলাম নূরু বলেন-বাংলাদেশের ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তী সালাহ্উদ্দিন ভাই দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি পদে আছেন, তিনি অনেক অভিজ্ঞ। স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অন্যতম এই সদস্যের হাত ধরে যেভাবে দেশের ফুটবল জেগে উঠেছিলো, তার ঝাঁকড়া চুলের দৌড় আর ড্রিবলিং দেখে যেভাবে মোহিত হতো বাংলার দর্শক, টেলিভিশনে বিজ্ঞাপন দেখে যেভাবে অনেক শিশু কিশোর নতুন সালাহ্উদ্দিন হওয়ার স্বপ্ন দেখতো, ঠিক সেভাবেই আমরা কাজী সালাহ্উদ্দিন ভাইয়ের নেতৃত্ব নিয়ে স্বপ্ন দেখছি। নেতৃত্ব পরিবর্তনের দাবীতে যে মানব বন্ধন হয়েছে সে সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে নূরুল ইসলাম নুরু আরো বলেন- কাজী সালাহ্উদ্দিন ভাইয়ের চেয়ে ভালো অভিজ্ঞ আর কেউ আছে! তারা যদি কাজী সালাহ্উদ্দিন ভাইয়ের চেয়ে ভালো একজনকে বসিয়ে আন্দোলন করতো তাহলে আমরা তাদের দাবীকে সমর্থন করতাম। ইএফসি বলেন বা ফিফা বলেন সেখানে গিয়ে তাদের কথা বলার মতো অবস্থা নাই, সুযোগ নাই সেখানে গিয়ে তারা কথা বলতে পারবে কিনা সেটা নিয়েও সন্দেহ আছে, এখন সেই ধরনের মানুষ যদি নেতৃত্ব পরিবর্তনের দাবী তুলে সেটা কে মানবে! এগুলো অযৌক্তিক। আমি আপনাদের মাধ্যমে সকলের কাছে দোয়া চাই, সবাই দোয়া করবেন। আমি আপনাদের দোয়া, সমর্থন এবং আগামী ৩ অক্টোবর ২০নং ব্যালটে মূল্যবান ভোট কামনা করছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত