শিরোনাম :
“প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম)- সেবা” পেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার সাভারে বিএনসিসির সেন্ট্রাল ক্যাম্পিংয়ের সম্মিলিত কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত এম এম আমিনুল ইসলামকে আয়ারল্যান্ড প্রতিনিধি হিসাবে নিয়োগ দান  লক্ষীপুরে ডিবির জালে যৌন কর্মীসহ ৫জন আটক রক্তবন্ধু সমাজকল্যাণ সংগঠনের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অভিভাবক এওয়ার্ড ও গুণীজন সম্মাননা সাভার উপজেলা পরিষদ ঢাকা-১৯ এর এমপিকে সংবর্ধনা নওগাঁর পুলিশ সুপার”প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল” (পিপিএম-সেবা) প্রাপ্তি বড়াইগ্রামে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত  মাদক নিয়ে  ট্রেন চালক সহ গ্রেপ্তার ৫  ভোলায় রওশন আরা ও রাব্বী হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন 
বেক্সিমকোর অসৎ কর্মকর্তাদের অপকর্মে অপূর্ণীয় ক্ষতি-বদনামের মুখে প্রতিষ্ঠানটি

বেক্সিমকোর অসৎ কর্মকর্তাদের অপকর্মে অপূর্ণীয় ক্ষতি-বদনামের মুখে প্রতিষ্ঠানটি

সাঈম সরকার : ঢাকা জেলায় আশুলিয়া থানার পার্শ্ববর্তী ছোট গোবিন্দপুর মৌজায় বেক্সিমকো লিঃ এর সানসিটি নামক একটি প্রজেক্ট রয়েছে। উক্ত প্রজেক্টের সার্বিক দায়িত্বে রয়েছেন ম্যানেজার হাজী ইউনুস আলী। তিনি জেনারেল ম্যানেজার আরিফুল ইসলামের ছত্র ছায়ায় থেকে অসৎ কর্মকান্ড ও ব্যপক দুর্নীতি করে চলেছেন।যাহা কোম্পানির চেয়ারম্যান সাহেব অবগত নয়। বিশ্ব্-বাজারে একটি, ১০০% রপ্তানি মুখী সুনামধন্য প্রতিষ্ঠানের নাম বেক্সিমকো কোম্পানি।সেই সূনাম-ধন্য প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি নষ্ট করে নিজেদের আখের গোছাতে এবং কোটিপতির বনে পারি জমাতে হন্নে হয়ে উঠেছেন ঐ অসৎ কর্মকর্তাদ্বয়। ঠান্ডা রুমে বসে ওনারা,ঠান্ডা মাথায় প্লানিং করে কোম্পানির অপূর্ণীয় আর্থিক ভাবে ক্ষতি করে যাচ্ছেন। এই দুর্নীতিবাজ হাজী ইউনুস আলী, জমি কেনার নামে হাতিয়ে নিচ্ছেন কোম্পানির লাখ লাখ টাকা। তিনি কোম্পানিতে দীর্ঘ দিন চাকুরি করার সুবাদে অত্র এলাকার দূস্কৃতি ও দালাল চক্রদেরকে সমন্বয়ে গড়ে তুলেছেন দুর্নীতির আখড়া। যাহা জেনারেল ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম মৌন্য সম্মতি দিয়ে ইউনুস আলীর সমন্বয়ে অভিনব কায়দায় জমির মালিকদের সাথে প্রতারনা করে আসছে। দুজনেই কোম্পানির চোখে ধুলো দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। বেক্সিমকো কোম্পানির দাপট ও ক্ষমতা দেখিয়ে জেনারেল ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম ও হাজী ইউনুস আলী অত্র এলাকার জমির মালিকদের কোণঠাসা ও জিম্মি করে রেখেছেন। এলাকার একাধিক জমির মালিক (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) জানায়, এই দুই দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার ভয়ে এলাকায় কোন জমির মালিক মুখ খুলতে সাহস করে না। মুখ খুলতে গেলে বিভিন্ন হুমকি ধামকি সহ মামলা মোকদ্দমার ভয় ভীতি দেখায় এবং বলে, আমাকে চিনো আমি কে? ভেরিফাই করার কথা বলে জমি ক্রয়ের নামে জমির-মালিকদের নিকট থেকে কাগজপত্র নেওয়া হয়। কিন্তু হাজী ইউনুস আলী কাগজপত্র হাতে নিয়ে দিনের পর দিন মালিকদের সাথে নানা টালবাহানা করে ঘুরাতে থাকেন। আর সমোঝোতার নামে ইউনুস আলীর পরিচিত দালাল চক্রদের সমন্বয়ে নানান ফন্দি আর কৌশলে জমির মালিকদের ঘায়েল করে জমি বিক্রি করতে বাধ্য করেন।যার কারণে, অনেক দিন পেরিয়ে গেলেও ঐ জমির নাম জারি করাতে সক্ষম হচ্ছেনা সানসিটি প্রজেক্ট। এরকম হাজারো অভিযোগ রয়েছে ইউনুস আলীর বিরুদ্ধে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অত্র এলাকার কয়েকজন মাতাব্বর মুরুব্বীরা জানান, আমরা একাধিক বার ইউনুস আলী অফিসে গিয়েছি, তিনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়লে আর হজ্জ করলে কি হবে। তিনি তো অত্যান্ত মিথ্যে কথা বলেন আর কথায় কাজে কোন মিল নেই। তিনি বিষধর সাপের চেয়েও বিষাক্ত। তার ছোবলে জমির যে মালিক পরেছে’, সেই ভাল বলতে পারবে ইউনুস আলী কতটা ভয়ংকর।
এব্যপারে হাজী ইউনুস আলীর বিরুদ্ধে একাধিক পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়।সংবাদ প্রকাশের পর আরিফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বিভিন্ন হুমকি-ধামকি সহ মামলা মোকদ্দমার ভয় দেখিয়ে তাদের অপকর্ম ধামাচাপা দেওয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে আসছেন। তিনি দূর্নীতিবাজ হাজী ইউনুস আলীকে বাঁচানোর জন্য সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছেন। আরিফুল ইসলাম একজন দূর্নীতিবাজ ম্যানেজারকে বাঁচানোর জন্য তার পক্ষ নিচ্ছেন কেন? নাকি আরিফল ইসলাম দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তার গড ফাদার। নাকি হাজী সাহেবের টোপে তিনি কুপোকাত ! যাহা কিনা আরিফুল ইসলামের গলায় বিষফোড়া হয়ে আছে। যেটা ফাটলে আরিফুল ইসলামের আসল মুখোশ খুলে যেতে পারে।
জমি কেনার নামে সিরাজ মেম্বারকে আসলেই কি আড়াই কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে? নাকি ঐ টাকার অর্ধেক আরিফুল ইসলাম ও ইউনুস আলীর ভাগবাটোয়ারা রয়েছে। এমন সন্দেহর দানা বেঁধেছে সিরাজ মেম্বারের কথায়। তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার কোন এক ফাঁকে বলে ফেলেন আমি তো পুরো টাকা পাইনি। সিরাজ মেম্বার সাংবাদিকদের মুখ আর কলম বন্ধ রাখার জন্য তার বাড়িতে সাংবাদিকদের কয়েক দফায় দাওয়াত করে এবং বিভিন্ন জায়গায় এসে মোটা অংকের টাকাও অফার করেন। কিন্তু সাংবাদিকদের কলম চলে ন্যায়ের পক্ষে আর দুর্নীতিবাজদের বিপক্ষে। সাংবাদিকের কলম আর ক্যামেরা কারোর কাছে মাথা নতো করে না।
মোতালেব চ্যালেঞ্জ করে বলেন, তিনি সিরাজ মেম্বারকে কোন নাদাবী দলিল দেন নাই। সিরাজ মেম্বার তার স্বাক্ষর জাল জালিয়াতি করে নাদাবী দলিল তৈরি করেছে। আর নাদাবী দলিলে জমি হস্তান্তর হয় না তাহা একজন ভূমি আইনজীবীর নিকট থেকে এই সততা মিলেছে। আরিফুল ইসলাম ও ম্যানেজার হাজী ইউনুস আলী আর্থিক সুবিধা নিতেই সিরাজ মেম্বারের মামলায় সমঝোতা চুক্তির নামে ২৭/০৪/২০১৯ তারিখে কোম্পানির পক্ষে ইউনুস আলীকে দিয়ে স্বাক্ষর করে নেয় এবং সিরাজ মেম্বারকে আড়াই কোটি টাকা প্রদান করেছে? যাহার প্রমান কাগজ কলমে পাওয়া গিয়েছে।
ম্যানেজার হাজী ইউনুস আলী জমি ক্রয়ের বিষয়টি স্বীকার করলেও সমোঝোতায় স্বাক্ষর করে টাকা প্রদানের বিষয়টি জেনারেল ম্যানেজার আরিফুল ইসলামের উপর চাপিয়ে দেন। এ বিষয় জানতে আরিফুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগের করার চেষ্টায় তা আর সম্ভব হয়নি। সার্বিক বিষয়ে সানসিটি প্রজেক্ট অফিসার মোকাদ্দেছ আলীর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিরাজ মেম্বারের জমি কেনার বিষয়ে আমি কোন কিছুই বলতে পারবো না। কারন, ঐ সময়ে আমি চাকুরীতে যোগদান করি নাই। ইউনুস আলীর বিরুদ্ধে এলাকার মানুষের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রজেক্ট অফিসার সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে না রাজি পোষণ করেন এবং তার উর্ধ্তন কর্মকর্তার দোহাই দিয়ে কৌশলে সাংবাদিকদের এড়িয়ে যান।
জমির দাবিদার মুক্তার হোসেন জানান, দুরন্ত দুর্নীতিবাজ প্রতারক সিরাজ মেম্বার সহ জড়িত সকল কর্মকর্তার বিরুদ্ধে জাল-জালিয়াতি ও প্রতারণার মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেওয়া সম্পন্ন হয়েছে। এখন শুধু মামলা রজুর হওয়া সময় সাপেক্ষের বেপার। সূ-শীল সমাজ মনে করেন, ঐসব অসৎ কর্মকর্তাদের কারণে প্রতিষ্ঠান যেমন হারাচ্ছেন কোটি কোটি টাকা, অপর দিকে-সাধারণ মানুষ ও সমাজের চোখে হচ্ছেন বদনামের ভাগি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত