মাদক প্রতিরোধে জরুরী শেল্টারদাতাদের শাস্তি ও মুখোশ উন্মোচন  

মাদক প্রতিরোধে জরুরী শেল্টারদাতাদের শাস্তি ও মুখোশ উন্মোচন  

মাহবুব আলম প্রিয় : দেশে মাদকের ভয়াবহতা ও ব্যাপ্তি ঠেকাতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন রয়েছে।  আইনটিতে মাদকের পরিমাণ অনুযায়ী শাস্তিও নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু মাদক ব্যবসায়ী বা সেবনকারীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার পর তাদের ছাড়িয়ে নিতে একশ্রেণির অসাদু প্রভাবশালীদের তদবির চলে। এতে বিব্রত হয় সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। ফলে মাদক রোধে বাঁধা হয়ে দাড়ায় এমন শেল্টারদাতারা। তবে গডফাদার আর শেল্টারদাতার থাকে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। থাকে পর্দার আড়ালে। তাদের মুখোশও উন্মোচন হয়না। ফলে মাদক তার অবস্থানে বিস্তার পাচ্ছে।  হুমকীকে আমাদের সামাজিক নিরাপত্তায়। বাড়ছে তাতে সামাজিক অবক্ষয়।
সূত্রমতে, মাদক নিয়ন্ত্রণ  আইনে জড়িতদের কমপক্ষে দুই বছর থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১৫ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং মৃত্যুদণ্ডের বিধানও রয়েছে। ১৯৯০ সালের ২ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হওয়া মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন বেশ কয়েকবার সংশোধনী আনা হয়েছে। আইনটি ১৯ ধারায় মাদকদ্রব্য ব্যবহারের পরিমাণ ও এর দণ্ড সম্পর্কে বলা হয়।
এসব আইনে হেরোইন, কোকেন এবং কোকা উদ্ভূত মাদকদ্রব্য-এসব মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ২৫ গ্রাম হলে কমপক্ষে ২ বছর এবং সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। তবে এসব মাদকদ্রব্যের পরিমাণ ২৫ গ্রামের ঊর্ধ্বে হলে তার মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডও হতে পারে।
আবার প্যাথেড্রিন, মরফিন ও টেট্রাহাইড্রোক্যানাবিনল-
এসব মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ১০ গ্রাম হলে কমপক্ষে ২ বছর এবং সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ড হয়ে থাকে। তবে মাদকদ্রব্যের পরিমাণ যদি ১০ গ্রামের ঊর্ধ্বে হয়,সেক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডও হতে পারে। অপিয়াম, ক্যানাবিস রেসিন বা (অপিয়াম উদ্ভূত,তবে হেরোইন ও মরফিন ব্যতীত মাদকদ্রব্য)-এসব মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ২ কেজি হইলে কমপক্ষে ২ বছর এবং সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। আর এর পরিমাণ ২ কেজির ঊর্ধ্বে হলে মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।
মেথাডন-
মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ৫০ গ্রাম হলে কমপক্ষে ২ বছর এবং অনূর্ধ্ব ১০ বছর কারাদণ্ড হতে পারে। কিন্তু এর পরিমাণ ৫০ গ্রাম এর ঊর্ধ্বে হলে মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।
গাঁজা বা যে কোনও ভেষজ ক্যানাবিস-এসব মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ৫ কেজি হলে কমপক্ষে ৬ মাস এবং অনূর্ধ্ব ৩ বছর কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। তবে এর পরিমাণ ৫ কেজির ঊর্ধ্বে হলে কমপক্ষে ৩ বছর এবং সর্বোচ্চ ১৫ বছর কারাদণ্ড হতে পারে।
যে কোনও প্রজাতির ক্যানাবিস গাছ-
ক্যানাবিস গাছের সংখ্যা অনূর্ধ্ব ২৫টি হলে কমপক্ষে ৬ মাস এবং সর্বোচ্চ ৩ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আর গাছের সংখ্যা ২৫টির বেশি হলে কমপক্ষে ৩ বছর এবং অনূর্ধ্ব ১৫ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।
ফেনসাইক্লিআইন, মেথাকোয়ালন এল, এস, ডি, বারবিরেটস অ্যামফিটামিন (ইয়াবা তৈরির উপাধান) অথবা এইগুলির যেকোনটি দ্বারা প্রস্তুত মাদকদ্রব্য-
মাদকদ্রব্যের পরিমাণ অনূর্ধ্ব ৫ গ্রাম হলে কমপক্ষে ৬ মাস এবং সর্বোচ্চ ৩ বছর কারাদণ্ড। আর মাদকদ্রব্যের পরিমাণ ৫ গ্রাম এর ঊর্ধ্বে হলে কমপক্ষে ৫ বছর এবং সর্বোচ্চ ১৫ বছর কারাদণ্ড।
এমন আইনের প্রয়োগ ও মাদক আইনে মামলা হওয়ার পরও সারা দেশে ছড়িয়ে আছে পড়ছে মরণঘাতী মাদক। কিশোর থেকে শুরু করে অনেক বয়োবৃদ্ধও এখন মাদকাসক্ত হয়ে আছে।  যার প্রভাব সমাজ থেকে পুরো রাষ্ট্রের পড়েছে। এদিকে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি প্রয়োগ, যৌথ বাহিনীর অভিযান করেও কমানো যাচ্ছে না মাদকের ব্যবহার। যার প্রধান কারণের একটি মাদকের সহজলভ্যতা। অপর কারন হলো শেল্টার বা মদদদাতাদের প্রভাব খাটানো। ফলে চিহ্নিত হওয়া স্বত্তেও আইনি ব্যবস্থা নিতে হিমসিম খায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।  যদিও এ বিষয়ে তারা খুব একটা মুখ খুলেন না। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, তারা আন্তরিক হয়ে দেশ থেকে মাদক কারবারিদের আইনের আওতায় আনতে চায়। ফলে গোঁপন সংবাদ পেলে বা প্রমান পেলে অনেককেই আইনের আওতায় নিয়ে মামলা দিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়৷ আদালত দোষী প্রমাণিত হলে সাজা প্রদান করেন। কিন্তু থানা হাজতে অভিযুক্ত বা চিহ্নিত মাদককারীকে আটকের পর স্থানীয় প্রভাবশালী কিংবা একটি মহল তদবির বাণিজ্যে লিপ্ত হয়। তারা টাকার লোভ কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে আসামী ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। অনেক সময় পরিস্থিতি বিবেচনায় আসামি ছেড়েও দেন তারা। আবার অসাদু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দায়িত্বে অবহেলার কারনে, তাদের উপরি ইনকামের লোভে মাসোহারা নিয়ে তথ্য গোঁপন করা হয়। এ কাজে সোর্স নামে কিছু সিভিল লোকজন সহোযোগিতা করে থাকে। এতে তৈরী হয় শেল্টারদাতাদের অধীনে মাদক কারবারির রমরমা পরিবেশ।  সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা আরো জানান, এমন তদবিরে থাকেন ক্ষমতাসীন দলের লোকজন। থাকে অবসরপ্রাপ্ত বিশেষ বাহীনির লোক। থাকে বিরোধী দলের নেতারাও। তিনি আরো জানান৷ তদবির বাণিজ্যে কতিপয় সংবাদকর্মীও পিছিয়ে নেই।তাদের কারনেও বহু মাকদ কারবারিদের প্রমাণসহ ধরে ছেড়ে দিতে হয়। এমনকি মাদক কারবারিদের পক্ষে সেলিব্রিটিদেরও তদবির পাওয়া যায়।
অথচ, মাদক হলো এমন ভয়াবহ ভেষজদ্রব্য যা গ্রহণের ফলে একজন স্বাভাবিক ব্যক্তির শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন এবং আসক্তির সৃষ্টি করে। মাদক দ্রব্যের কারনে তন্দ্রাচ্ছন্নতা, খিটখিটে মেজাজ, রক্তচাপ, মানসিক অস্বস্তি ইত্যাদি। মাদকদ্রব্য গ্রহণে মানুষের মানসিক ও শারীরিক পরিবর্তনে উল্লেখযোগ্য নেতিবাচক প্রভাব দেখা দেয় এবং দ্রব্যের ওপর নির্ভরশীলতা সৃষ্টির পাশাপাশি দ্রব্যগুলো গ্রহণের পরিমাণ ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে।   বর্তমান সময়ে মাদক ব্যবসায়ীরা স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীর টার্গেট করে মাদক বিক্রি করছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষার্থীরাও বাড়িতে অবসর সময় কাটাচ্ছে আর ঝুঁকে পড়ছে মাদকের দিকে। প্রথমে বন্ধুর প্রলোভনে দুই একদিন অনিচ্ছায় মাদক গ্রহণ। তারপর ধীরে ধীরে আসক্তি বেড়ে গেলে নিজ ইচ্ছাতেই, কোনো না কোনোভাবে সেবন করছে মাদক। অনেকে আবার স্মার্ট হওয়ার জন্যও স্বইচ্ছায় মাদক গ্রহণ করে; কিন্তু পরে আর এটা বের হয়ে আসতে পারে না। এখন শুধু শহরে নয়, প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও মাদক বিরাজমান।
এতো নানা ক্ষতির দিক থাকলেও মাদকের বিস্তার রোধের সফল পরিবেশ নেই।  পাড়া মহল্লায় অলিতে গলিতে হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক।
সূত্রমতে, এদেশে চিহ্নিত  মাদকাসক্তের ও কারবারির সংখ্যা ৭৩ লাখের অধিক ।  দেশের ৬৮ হাজার গ্রামের প্রায় প্রতিটিতে গড়ে ১০৭ জন মাদকাসক্ত পাওয়া যায়৷  যেখানে মাদকাসক্তের প্রায় ৯১ শতাংশই কিশোর, যুবক, তরুণ। আর পুরো মাদকাসক্তের ১০ থেকে ১৫ শতাংশ নারী।
দুঃজনক যে, মাদক এতটা সহজলভ্য হওয়ায় আমাদের দেশে মাদকের ভয়াবহ রূপ দেখতে হচ্ছে। বেশিরভাগ মাদকদ্রব্যই আসে বিদেশ থেকে। দেশের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো দিয়ে অবৈধভাবে দেশে ঢুকছে মাদক। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দায় বড়। কিন্তু তাদের দায়িত্বে অবহেলার প্রমান হলো এমন মাদকের বিস্তার।  ফলে, মাদককারবারি ও গডফাদাররা পার পেয়ে যাচ্ছে। শেল্টারদাতারা ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকছে। অথচ ওই গডফাদার আর শেল্টারদাতাদের  পর্যাপ্ত শাস্তি নিশ্চিত করা হলে কেউ থানায় মাদককারবারির পক্ষে তদবির করার সাহস পেতো না।  সরকারের এ বিষয়ে নজর না হলে আরো ভয়াবহ রূপ নেবে সর্বনাশা মাদক।
সর্বোপরি,  তদবির দাতা, মাফিয়া মাদকচক্র, জড়িতদের দমাতে জনপ্রতিনিধিদের যেমন ভুমিকা নিতে হবে। তেমনি  আইন শৃঙ্খলা বাহীনিকে আরো তৎপর হতে হবে। পাশাপাশি মাদক প্রতিরোধে সমাজ এবং পরিবারের রয়েছে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। পারিবারিক ও সামাজিক সচেতনতা শিক্ষা, বন্ধু নির্বাচন, দায়িত্বশীলতা, প্রতিটি ইউনিয়ন বা থানাভিত্তিক মাদকবিরোধী সংগঠন ইত্যাদি হতে পারে মাদক প্রতিরোধ বা প্রতিকারের বিষয়। মুলত, প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ উত্তম’। নীতিটা আমাদের সমাজের প্রতিটি যুবক, যুবতী, তরুণদের মানা উচিত।  তারা যেন কোনোভাবেই মাদকের জড়িয়ে না যায় সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।এ কাজে অভিভাবকদের দায় পুরো । তাছাড়াও মাদকের কুফলতা, ধর্মীয় শিক্ষা, শরীরচর্চা ইত্যাদি বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করতে হবে তরুণদের।  সমাজের দায়িত্বশীল নাগরিক হওয়ার প্রতি পরিবার থেকে সার্বক্ষণিক প্রচেষ্টা হতে পারে মাদক মুক্ত সমাজ নির্মানের যোগ্যপথ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত