রায়পুরায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অবৈধ নিয়োগে এমপিওভূক্তি পেয়ে কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

রায়পুরায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অবৈধ নিয়োগে এমপিওভূক্তি পেয়ে কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

নরসিংদী প্রতিনিধি:
সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের সহযোগিতায় নরসিংদী’র রায়পুরা উপজেলার আমিরগঞ্জ ইউনিয়নে প্রতিষ্ঠিত বালুয়াকান্দি উচ্চ  বিদ্যালয়ে বিধিবহিভূতভাবে জালিয়াতির মাধ্যমে নিয়োগ লাভে এমপিওভূক্ত হয়ে প্রায় এক কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। তিন জনের মধ্যে ২জন স্বামী-স্ত্রী রয়েছেন।
বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যগণ ও জেলা শিক্ষা অফিসার জালিয়াতির প্রমাণ পেয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে চিঠি দিয়েও কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদ।
অভিযোগে প্রকাশ,বিদ্যালয়টির সহকারী শিক্ষক(কম্পিউটা) মোঃ মাহবুব আলম বিধি মোতাবেক যোগ্যতা না থাকলেও ৬ মাসের ট্রেনিংপ্রাপ্ত সনদ নিয়ে নিয়োগপত্র লাভ করেন ২০১৫ সালের ৮ জুলাই। যোগদান করেন একই সালে একই মাসের ২২ জুলাই তারিখে।
দু’নম্বরী পথে মাহবুব নিয়োগ লাভের পর রায়পুরার তৎকালীন  শিক্ষা অফিসার নার্গিস সুলতানা সাফ জানিয়েছিলেন যে, নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষক মাহবুব আলমের কাম্য যোগ্যতা নেই। তার নিয়োগ অবৈধ। তিনি এমপিওভূক্ত হবেন না। কারণ, কম্পিউটার শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেতে  হলে ২০১৫ সালের ১৪ জুনের প্রজ্ঞাপন অনুসারে কমপক্ষে তিন বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা পাশ সনদ থাকতে হবে।
[২০১৫ সালের ১৪ জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক নং-৩৭.০০.০০০০.০৭৪.০০২.(এম.পি.ও নীতিমালা সংশোধন) ২০১২.২২৬, তারিখ: ১৪/০৬/২০১৫খ্রি: ]
প্রকাশিত পরিপত্র অনুসারে মো. মাহবুব আলম অযোগ্য প্রার্থী। ]
পরে স্কুল কর্তৃপক্ষের অসাধু চক্র মোঃ মাহবুব আলমের ঋণ পরিশোধ করতে তার  স্ত্রী  শামীমা বেগমকে ২০১৫ সালের ১ নভেম্বর তারিখে ‘সহকারী গ্রন্থাগারিক’ পদে নিয়োগ দেন। ২০১৬ সালের ১ মার্চ থেকে এমপিওভূক্ত(ইনডেক্স নং- AL- N-1127454) হয়ে ১০নং পে স্কেল কোডে শামীমা বেগম সরকারী বেতন ভাতার অংশ উত্তোলন করে আসছেন। তারও কাম্য যোগ্যতা নেই বলে জানা গেছে। জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, ‘সহকারী গ্রন্থাগারিক’ পদে নিয়োগ লাভ করতে হলে ২৪ মার্চ-২০১৩ সালের পরিপত্র অনুসারে কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় হতে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রী /সমমান সনদ অথবা গ্রন্থাগার বিজ্ঞানে ডিপ্লোমা থাকতে হবে। এ যোগ্যতা শামীমা বেগমের নেই বলেও স্কুল সূত্রে জানা যায়।
পরবর্তীতে  কম্পিউটার শিক্ষক মাহবুব আলম জালিয়াতির মাধ্যমে ইত্তেফাক পত্রিকার বিজ্ঞাপনের পাতা সৃজন করে পুরোনো নিয়োগ দেখিয়ে  উপজেলা শিক্ষা অফিসের  সহযোগিতায় ১মে/২০১৮ সাল থেকে এমপিওভূক্ত(ইনডেক্স নং- ১১৪২৩৩৯) হয়ে যায়। ৫ বছর যাবৎ তিনিও  সরকারি তহবিল থেকে বেতন ভাতা হিসেবে লাখ লাখ টাকা উত্তোলন করছেন যা আত্মসাতের সামিল।
মো. মাহবুব আলমের শিক্ষাগত সদনেও রয়েছে গড়মিল। তিনি ১৯৮৬ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন। পরে নিয়মিত ছাত্র হিসেবে ১৯৯৬ সালের বিএ পাশ সনদ জমা দিয়েছেন।
অবৈধ নিয়োগের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাতের প্রমাণাদিসহ এলাকার জনৈক ব্যাক্তি গত ১৫ জানুয়ারি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর নেহাল আহমেদ ও দুদকের নরসিংদী-গাজীপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেও অদ্যাবধি কোন ফল পাওয়া যায়নি।
এসকল বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মোঃ জয়নাল আবেদীনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মচারী যারা আছেন তারা কি দেইক্কা এমপিওভূক্ত করেছেন না? টাকা দিলে সবই হয়। অভিযোগ করছে, কী হইছে? বেতন পাচ্ছেন তো? এখন এগুলো নিয়ে কোন সমস্যা নাই।
দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞাপনের জালিয়াতির বিষয়ে প্রধান শিক্ষক  সঠিক উত্তর দিতে পারেননি।
আসলে, কেঁচো খুঁজতে যেন সাপ বেরিয়ে যাওয়ার মতো তথ্য পাওয়া গেছে ।
স্কুলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রধান শিক্ষক মোঃ জয়নাল আবেদীন  নিজেও অবৈধ নিয়োগপ্রাপ্ত। তিনি প্রধান শিক্ষক হিসেবে এ বিদ্যালয়ে যোগদান করেন ১৯৯৭ সালের ১ মার্চ তারিখে। তার প্রথম এমপিওভূক্তির তারিখ ছিল ১৯৮৯ সালের ১ জানুয়ারি।
এব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার গৌতম চন্দ্র মিত্র বলেন, ১৯৯৫ সালের জনবল কাঠামো মোতাবেক প্রধান শিক্ষক হিসেবে মোঃ জয়নাল আবেদীনকে নিয়োগ দেয়া সঠিক হয়নি । কারণ, তখন প্রধান শিক্ষক হতে হলে সকল পরীক্ষায় ২য় বিভাগ/শ্রেণিসহ  সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসাবে কমপক্ষে ৩(তিন) বৎসরের অভিজ্ঞতাসহ শিক্ষকতায় নিরবচ্ছিন্নভাবে বিদ্যালয়ে ১৫ বছরের শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। মোঃ জয়নাল আবেদীন এর এসব যোগ্যতা নেই।
উল্লেখ্য, প্রধান শিক্ষক মোঃ জয়নাল আবেদীন ৩য় বিভাগ নিয়ে স্নাতক/ডিগ্রী পাশ করেছিলেন – যা তার নিজের স্বাক্ষরিত শিক্ষক-কর্মচারী তালিকায় দেখা গেছে। তিনি ২৭ বছর যাবৎ অবৈধ নিয়োগ লাভের মাধ্যমে সরকারি বেতন-ভাতা উত্তোলন করে আসছেন। সবমিলে কোটি টাকারও বেশী সরকারী বেতন-ভাতার অংশ  উত্তোলন করা হয়েছে, যা- আত্মসাতের সামিল।
এব্যাপারে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মুন্সি শওকত আলী সাংবাদিকদের  বলেন, আমি ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হলেও শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে কিছুই অবগত নই। আমি নতুন গেছি ওখানে। আগে স্কুল চালাইতো আব্দুল আলী মৃধা (প্রয়াত,
সাবেক বিএনপির এমপি)। তাঁর পরামর্শেই সব কাজ হইতো।  শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে সকল দায়িত্ব পালন করেছেন প্রধান শিক্ষক। বিষয়টি জানার পর ওই কম্পিউটার শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। দুর্নীতি করে যে শিক্ষক পদে নিয়োগ নিতে পারে তার কাছ থেকে জাতি কিছু পাওয়ার আশা করতে পারে না।
শেষ পর্যন্ত তিনি টাকা লেনদেনের কথা শিকার করে বলেন – ” তারে ধরেন।  আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। ” এসব প্রধান শিক্ষকের কাজ। তিনি আগেও ছিলেন, এখনও আছেন।
জেলা শিক্ষা অফিসার গৌতম চন্দ্র মিত্র বলেন, অনিয়মের বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত