রূপগঞ্জে পিকনিকের নামে চলে অশ্লিলতা, ঝগড়া ও শব্দ দুষন, প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

রূপগঞ্জে পিকনিকের নামে চলে অশ্লিলতা, ঝগড়া ও শব্দ দুষন, প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

স্টাফ রিপোর্টার: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে পূর্বাচল নতুন শহরকে ঘিরে গড়ে উঠেছে মানুষের বিনোদনের জন্য বেশ কয়েকটি রিসোট ও উন্মোক্ত জায়গা। প্রতিদিন ঢাকা থেকে হাজারো মানুষের ঢল নামে নতুন শহর পূর্বাচল ও এর আশপাশে। গাড়ি নিয়ে ঘুরতে আসা ভ্রমন পিপাসুদের কাছে পছন্দের জায়গাগুলোর মধ্যে ২১ নং সেক্টর লেকের পাড়, নীলা মার্কেট, হেলীপ্যাড, জয়বাংলা চত্তর অন্যতম। আশেপাশে গড়ে উঠেছে শত শত হোটেল রেস্তোরা। এসকল হোটেল কিংবা রেস্তোরায় বসে অবসর সময় কাটানো বিনোদন প্রেমীদের কাছে ভাল লাগার একটি মাধ্যম। কিন্তু বাধ সাধে আরো একটি বিনোদনের মাধ্যম। বর্ষা মৌসুম এলেই দল বেধে পিকনিকের ধুম পড়ে নদী পথে, আর তার জন্য প্রয়োজন বড় নৌকা। নৌকায় সাউন্ড সিষ্টেম বসিয়ে স্থানীয় এবং  বহিরাগত যুবক যুবতী প্রচন্ড আওয়াজে ডিজে গান বাজিয়ে নেচে গেয়ে চলে আনন্দ ফুর্তি। ইউসুফগঞ্জ বাজার, নীলা মার্কেট, বেরাইদসহ আশে পাশের ঘাট থেকে ছোট মাঝাড়ি, কিংবা বড় মাপের সব ধরনের নৌকা বা বোট ঘন্টা বা দিন চুক্তিতে ভাড়া পাওয়া যায়। সকল নৌকা বা বোর্টে এমন সাউন্ড সিষ্টেম বাজে তা নয় । হাতে গোনা ছোট কয়েকটি বোট দেখা যায় যেগুলোতে সাউন্ড সিষ্টেম নেই। শহর কিংবা শহরতলী থেকে পরিবার নিয়ে বিকেল বেলা ঘন্টা চুক্তিতে বোটের ছাদে বসে নির্মল বাতাস খেতে অনেকে পরিবার পরিজন নিয়ে চলে আসেন পূর্বাচলের আশে পাশের বিনোদন স্পর্ট গুলোতে।
সাম্প্রতি ইউসুফগঞ্জ বাজারে ঘটেছে এক মর্মান্তিক ঘটনা। ইউসুফগঞ্জ বাজারের পিয়াজু, চিড়া ভাজা বিক্রেতা উপজেলার সদর ইউনিয়নের বারিয়ারটেক গ্রামের রকিব নামের এক দোকানদারের সাথে পলাশ নামের এক মাদক ব্যবসায়ীর বাকবিতন্ডা ও মারামারির ঘটনা ঘটে। ঘটনার বর্নণা দিয়ে রাকিব বলেন, পলাশ সকল ধরনের মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। গত ১৩ই জুলাই আনুমানিক ৫:৩০ মিনিটে পলাশ আমার দোকানে সদাই কিনতে আসে। সদাই দিতে একটু দেরী হলে আমার বাবা মাকে তুলে গালমন্দ করতে থাকে। আমি প্রতিবাদ করলে পলাশ  নেশাগ্রস্থ অবস্থায় আমার চিড়া ভাজার হাতল হাতে নিয়ে আমাকে মারতে আসে। আমি প্রতিরোধ করতে গেলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার গরম তেলের হাতল উলটে তার শরীরে গরম তেল ছিটে যায়। গরম তেলে পলাশের হাত পুড়ে গেলেও সে আমাকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে ফেলে দেয়। স্থানীয় বাজারের দোকানদাররা এসে ঝগড়া থামিয়ে পলাশকে হাত পোড়া অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যায়।
ঢাকার গুলশান থেকে ঘুরতে আসা ব্যবসায়ী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমার পরিবারের বাবা মা, স্ত্রী সন্তান নিয়ে প্রায়ই নীলা মার্কেটের পাশে গাড়ি পার্র্কিং করে বালূ নদীতে বোর্ট দিয়ে ঘন্টা চুক্তিতে ঘুরতে বের হই। নির্মল বাতাসে ঘুরলে মনাটা প্রশান্তিতে ভরে উঠে। কিন্তু ইদানিং পরিবারের লোকদের নিয়ে এখানে ঘুরতে আসাটাই দুস্কর মনে হয়। নদী পথে ঘুরতে বের হলেই কিছু উশৃঙ্খল ছেলে প্রচন্ড শব্দে সাউন্ড সিষ্টেম বাজাতে থাকে। এতে করে আমার বাচ্চাগুলো আতঙ্কিত হয়ে থাকে। পরিবার পরিজন নিয়ে এমন একটি জায়গায় আসতে সবারই খুব ভাল লাগার কথা । কিন্তু শব্দ দুষনের অত্যাচার দিন দিন যে মাত্রায় বাড়ছে তাতে করে ভদ্র কোন পরিবারের লোকজন এখানে আর ঘুরতে আসতে চাইবেনা।
শুধু তাই নয় দল বেধে ভোট পিকনিকের নামে নর্তকী এনে ভাসমান নৌকায় সারা দিন চলে অশ্লীল ডিজে, নাচগানসহ মাদক সেবন।
স্থানীয় রূপগঞ্জ থানা এই এলাকা থেকে কিছুটা দুরে হওয়ার কারনে এসব ঘঠনা ঘটছে বলে স্থানীয় অনেকে মনে করেন।
এ ব্যাপারে স্থানীয় পূর্বাচল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই কাজল বলেন,  এ জাতীয় ঘঠনা ঘটছে, গত ১৫ই জুলাই আনুমানিক ১১ ঘটিকায় মারামারি  ঘটনায় আমি তদন্তে গিয়েছিলাম। আসলে মূল ঘঠনা হচ্ছে পিকনিক। স্থানীয় লোকজন প্রথমে নিষেধ করলে যদি না মানে তখন আমাদের জানালে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত