শিরোনাম :
শরণার্থী শিবির

শরণার্থী শিবির

আমার নাম চার্লস লিপান্ডা মাতেঙ্গা। আমি ২০০৫, ২ জুলাই কঙ্গোর রুয়েনা উভিরা গ্রামে, সুদ-কিভুতে অনাথ হয়ে জন্মগ্রহণ করেছি। আমার মা ছিলেন সাদা ম্যাগডালিন। আমি আমার বাবার সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। তবে আমার বয়স যখন ৫ বছর তখন আমার মা মারা যান।

আমার বাবা-মা দুজনেই আমাদের বোন ও ভাইদের বড় করার জন্য খামারে কাজ করেছিলেন। তাদের পশুপালকও ছিল। জীবন ছিল মাটির নিচে। কেউ জানত না যে আমার বাবা-মা একদিন বাতাসে ধুলোর মতো মিলিয়ে যাবে। ভেজা ফুটপাথের উপর কোন আঙুলের ছাপও দেখা যায়নি। কারণ তারা সকলেই দ্রাবকের মতো অদৃশ্য হয়ে গেছে।

খুব অল্প বয়সে আমার বাবা-মা দুজনকে হারানোর পর, আমাকে আমার বোনের সাথে আমাদের গ্রাম ছেড়ে শহরে, উভিরাতে যেতে হয়েছিল। বোন আমার খুব যত্ন  নেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে সে তার কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। আমাদের বেঁচে থাকার জন্য আমার বোন তার অবিবেচক স্বামীর কাছ থেকে অসভ্য আর নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। খুব ভোরে, তিনি টাঙ্গানিকা হ্রদে যেতেন, এবং বালি, নুড়ি এবং পাথর সংগ্রহকরে তা বিক্রিকরার জন্য সেগুলিকে নিয়ে যেতেন এক মাইল দূরবর্তী বাজারে। আমাদের পড়াশোনা ও খাবারের জন্য সে সব চুপ থেকে এই সব করেছে। পৃথিবীটাকে পশুদের ছোট্ট গর্ত বলে মনে হয়েছে তখন।

আমি যখন বড় হয়েছি তখন আমার শরীরে পানির স্বল্পতা ধরা পড়ে, কিন্তু দর্শন ও সমাজবিজ্ঞান আমার শক্তি হিসিবে কাজ করেছে। যেহেতু আমরা মালাউইয়ের জালেকা শরণার্থী শিবিরে পালিয়ে গিয়েছিলাম তাই আমি আমার পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারিনি। আমি নতুন কোনো ভাষা বলতে পারতাম না। নিজের দেশে সবকিছু অদ্ভুত মনে হয়েছিল। আমি হয়ে উঠলাম মহাবিশ্বের পথিক। খাওয়ার মতো কোনো খাবার নেই। প্রথম দিকে আমি শরণার্থী শিবিরকে স্বপ্নের কবর বলে মনে করতাম। আমি আমার ভবিষ্যত হারিয়ে ফেলেছি। আত্মহত্যা করাই ছিল আমার অন্ত্যহীন চ্যালেঞ্জের একমাত্র সমাধান যা আমি প্রতিটা মুহূর্তে অনুভব করেছি।

আমি জীবনের হিংস্র ঝড় থেকে বেঁচে থাকা একজন মানুষ। বাঁচা-মরার মাঝখানে ডুবে ছিলাম। ঠিক তখনই আমি ইংরেজি শিখতে শুরু করি এবং কবিতার প্রতি অনুরাগী হই, এবং ২০২১ সালে কবিতা লেখা শুরু করি।

আমি ‘আওয়ার ভয়েস ইজ আওয়ার ক্যাটালিস্ট অ্যান্থোলজি (২০২২) সালভাদর ক্যাপবিক, ইউএসএ’-এর সাথে বিশ্বের অন্যান্য আন্তর্জাতিক কবিদের সাথে সহ-লেখক হিসাবে একটি সংকলিত হয়েছি। ২০২৩ সালের মাঝামাঝি ‘রুথ তাকোদওয়া (শরণার্থী)’ এবং ‘বিয়িং রিফিউজি ওয়াজ নট এ চয়েস অ্যান্থোলজি’ নিয়ে কাজ শুরু করি যা ২০২৪ সালে প্রকাশিত হয়। আমি এ পর্যন্ত অনেক কবিতা লিখেছি এবং যা আন্তর্জাতিক পত্রিকা এবং ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে।

আমি সাধারণ একজন কবি, লেখক, অনুবাদক, সম্পাদক, লেখক এবং অভিনয়শিল্পী। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বহু উৎসব অংশ নিয়েছি। ভারতে অনুষ্ঠিত ‘বিশ্ব কবিতা সম্মেলন ২০২৩’  আমাকে সৃজনশীল চেতনার কবি হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন, এবং ‘জাতিসংঘ দিবস স্মরণ ২০২৩’ ও ‘জাতীয় যুব পুলিশ ২০২৩-২০২৪’ মালাউইতে শুরুকরা হয়।

আমি ‘আফ্রিকান ইয়ুথ আর্টিস্টিক পোয়েট্রি-AYAP’ এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি যেখানে জালেকা শরণার্থী শিবিরের অনাথ শিশুদের কবিতার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় এবং তারা নিজেদের সংস্করণ নিয়ে ব্যস্ত থাকে। তাদের মধ্য থেকে প্রতিদিন নতুন প্রতিভা আবিষ্কারকরে তাদের লেখা নিয়মিত প্রকাশকরি। আমি ‘আওয়ার ট্যালেন্টস, আওয়ার অ্যাডভোকেসি ফেস্টিভ্যাল’-এর সংগঠকও যার লক্ষ্য হল আশাহীন উদ্বাস্তুদের আনন্দ দেওয়া। এছাড়াও, এই গল্পটি আমাকে ‘৩য় বিশ্ব গল্প বলার চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২৩’ এর বিজয়ী করে তুলেছে যেখানে সমগ্র মালাউই বিশ্বব্যাপী চতুর্থ স্থানে রয়েছে। এখন থেকে, UNHCR এবং UN আমার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে ইতিবাচকভাবে আমাকে প্রভাবিত করছে। তবুও, আমি এখানে মালাউইয়ের জালেকা শরণার্থী শিবিরে একটি দুর্দান্ত জীবনযাপন করছি।

আমি আমার জীবনঅভিজ্ঞতার সাথে অবশেষে বুঝতে পেরেছি যে শরণার্থী শিবির স্বপ্নের সমাধি নয় বরং একটি নতুন জীবনের নতুন সূচনা, যেখানে একজনকে বেঁচে থাকার জন্য, জীবনকে সমৃদ্ধ করতে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন, আপনি এখনও যা করতে চান তা করতে পারেন।

লেখক: চার্লস লিপান্ডা মাহিগওয়ে
অনুবাদ: হাসান নাশিদ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত