শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
শীতের ঋতুতে বাড়িতে বাড়িতে আত্নীয় – স্বজন নিয়ে গ্রামীণ পিঠা খাওয়ার ধুম

শীতের ঋতুতে বাড়িতে বাড়িতে আত্নীয় – স্বজন নিয়ে গ্রামীণ পিঠা খাওয়ার ধুম

সলঙ্গা(সিরাজগঞ্জ)থেকে ফারুক আহমেদঃ বাঙালী জাতির ঐতিহ্যে বিভিন্ন পিঠার ইতিহাস হেমন্ত আসতে না আসতেই বাংলার ঘরে ঘরে শুরু হয় নবান্ন শুরু হয়েছে।  অগ্রহায়ণ মাসে সাধারণত নতুন ধান উঠার পর পরই যেন পিঠা তৈরির আয়োজন শুরু করা হয়।   গ্রামীণ মানুষের ঘরে ঘরে শীতের ঋতুতেই যেন বারবার হাজির হয় শীতের নানা ধরনের পিঠার গুরুত্ব ও ভুমিকা পৃথিবীর ইতিহাসে সে তো এক কালজয়ী সাক্ষী।  গ্রামগঞ্জ শহর বন্দর বিষেশ করে গ্রাম – গঞ্জে শীতের ঋতুতে গ্রামীণ পিঠা তৈরি পূর্বে জামাই জি ও আত্নীয় – স্বজনদেরকে দাওয়াত দেওয়ার জন্য পূর্ব থেকেই কি যে প্রস্ততি। জামাই জি ও আত্নীয় – স্বজন মিলে পিঠা খাওয়ার আন্দকে কেন্দ্র করে গ্রামের ধনি গরিব বিষেশ করে ধনিরা দরিদ্র মজুরদের সঙ্গে নিয়ে ধান মাড়াই ও জাড়াই করে চালের আটা তৈরি করতে ৫ – ৭ দিন আগে থেকেই মেতে উঠে বিভিন্ন পরিবার।  প্রয়োজনীয় বাৎসরিক চাহিদা ঘরে মজুদ করে রাখে অনেকে। চলে পিঠা বানানোর প্রস্ততি। এখন খেজুর গুড় বা নারিকেলের যোগান এখন তারা গ্রামে ফ্রিজ ব্যবহার করে পিঠা তৈরির মজা উপভোগ করলেও শীতকালের আমেজে খেজুর গুড় আর রস ছাড়া তো পিঠা তৈরির পূর্ণতা কখনই উৎকৃষ্ট হয় না। । এ দেশে ১৫০ বা তারও বেশি রকমের পিঠা থাকলেও মোটামুটি প্রায় তিরিশ প্রকারের পিঠার প্রচলন বেশি  নিশ্চয় এইসব পিঠার চাল মেশিনে ভাঙানো বা পাটায় পিষানো চাউলে হয়ে থেকে। এক সময় ঢেঁকিতে গীত গাইতে গাইতে চাল থেকে আটা তৈরি করতো গ্রামীণ মেয়েরা। বিভিন্ন হরেক রকমের পিঠ তৈরি করতেন। শুভ সকালে সারারাত্রির বাসি, ঠান্ডা খেজুরের ও দুধের রস পিঠা। ভাপা পিঠা খেজুর রসে চুবিয়ে খেতে মন্দ লাগে না। মজার বেপার হল শীত কালের এই অমৃত ভাপা পিঠা সকল জি ও জামাইদের জন্য রস পিঠা, ভাঁপার পিঠা,  নকশি পিঠা,চাপড়ি পিঠা, দোল পিঠা, খেজুরের পিঠা, পুলি পিঠা, পাটিসাপটা পিঠা,ডিম পিঠা, জামদানি পিঠা, ভেজিটেবল ঝাল পিঠা, হাঁড়ি পিঠা,নারকেল পিঠা,কুশলি পিঠা, তেলের পিঠা,পোড়া পিঠা,চিড়ার মোয়া পিঠা, নারকেল নাড়ু পিঠা এমনকি কাউনের মোয়া পিঠা সহ বিভিন্ন পিঠা শশুর বাড়িতে জামাই জি ও আত্নীয় – স্বজনদের জন্য ষোলকলা পূর্ণ হয়। আসলে শীত ঋতুতে হরেক রকমের পিঠার বাহারি উপস্থাপনা এবং আধিক্য হয় বলেই কিশোর – কিশোরীরা মামার বাড়ি যওয়ার জন্য ব্যতিব্যস্ততা দেখাই। তাই মামার বাড়ি মধুর হাড়ি এই কথটি যে যুগে যুগে হয়তো সত্যিই রয়ে যাবে। সুতরাং গ্রামগঞ্জের ধনী গরিব হতদরিদ্র গাঁ গেরামের খেটে খাওয়া শ্রমিক মানুষেরাও দুঃখ – কষ্টের মধ্যে দিয়ে হলেও সবাই সাধ ও সাধ্যের মধ্যই যেন  নানান জাতীয় পিঠার ঐতিহ্য ফিরে পেয়ে তাদের মেয়ে জামাইদেরকে দাওয়াত দিয়ে খাইয়ে থাকে। অনেক সময় মেয়েরা তাদের বাবার বাড়ি আসতে না পারলেও তাদের জন্য শ্বশুরবাড়িতে শীত মৌসুমী পিঠা পাঠাতেও ভুল করেনা। গ্রাম বাংলার মানুষের এমনই জীবন সত্যিই নান্দনিকতার বহিঃপ্রকাশ ও তাদের উৎসব পূর্ণ বিনোদনের এ জীবন আসলেই ইতিহাসের কালজয়ী সাক্ষী। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত