শিরোনাম :
কিশোর গ্যাং মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী বিশেষ নির্দেশনা দিঘলিয়ার গাজীরহাট থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার  নওগাঁ জেলা সাংবাদিক বন্ধু ফোরামের উদ্যোগে ইফতারী বিতরণ পূর্বাচল মানব কল্যাণ সংস্থা,র উদ্যোগে ৫ শতাধিক দুস্থদের মাঝে ঈদ উপহার  ভিসানীতি কঠোর করছে নিউজিল্যান্ড দিঘলিয়ায় বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা কৃষকের আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্র্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিল:ইসি আহসান হাবিব আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা খুলনা মহানগরীর তেলিগাতীতে গ্রীলের তালা ভেঙ্গে দিনে-দুপুরে চুরি 
শ্রীপুরে মহাসড়কে বাথরুমের পানি কর্তৃপক্ষ নিরব

শ্রীপুরে মহাসড়কে বাথরুমের পানি কর্তৃপক্ষ নিরব

শ্রীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুর জেলার শ্রীপুর পৌর এলাকার মাওনা চৌরাস্তায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুই পাশের ড্রেন ময়লা-আবর্জনায় বন্ধ থাকায় প্রায় এক বছর যাবৎ বাথরুমের ময়লা পানি জমে থাকলেও কর্তৃপক্ষ বরাবর-ই এই সমস্যার  স্থায়ী সমাধানে ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে  
বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, মহাসড়কের পূর্ব পাশে কিতাব আলী শপিং কমপ্লেক্সের সামনে থেকে পল্লী বিদ্যুৎ মোড় পর্যন্ত ও পশ্চিম পাশে মাওনা বাজার রোড সংলগ্ন থেকে সিনেমা হল হল পর্যন্ত নোংরা পানি রয়েছে। 
মাওনা-টেপিরবাড়ি রোডের কয়েকজন সিএনজি চালক এ ব্যাপারে জানিয়েছেন, মহাসড়কের দুই পাশে ড্রেন নির্মাণ করার পর থেকেই ড্রেনেজ ব্যবস্থা অচল! ময়লা আবর্জনায় সারা বছরই ভরা থাকে ড্রেন। এই ব্যস্ততম এলাকায় প্রতিদিনই লাখো মানুষের যাতায়াত। ময়লা পানির দুর্গন্ধে আমরা অতিষ্ঠ। কর্তৃপক্ষকে কখনোই এই সমস্যা নিয়ে কাজ করতে দেখা যায়নি! 
কয়েকজন ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, প্রতিদিন এই সড়কে কমপক্ষে ৫০ জন মানুষ হাটতে গিয়ে ময়লা পানিতে পড়ে যায়। অটোরিকশা, সিএনজি ও ছোট যানবাহনগুলোও আমার দোকানের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় আটকে গিয়ে বিপদে পড়ে।
‘মাওনা চৌরাস্তা ব্যবসায়ী মালিক কল্যাণ সমিতি’র সভাপতি মো. মোশারফ সরকার জানিয়েছেন, প্রতিদিন কয়েক লক্ষ মানুষের যাতায়াত এই সড়কে। আশেপাশের বাসাবাড়ি থেকে সরাসরি বাথরুমের নোংরা পানি সড়কে ছেড়ে দিয়েছে।  জনসাধারণ চলাচলের সময় গাড়ি থেকে ছিটে ময়লা পানি প্রতিনিয়ত-ই শরীরে লাগে। এই পানি শরীরের যেখানে লাগে সেখানেই চুলকানি রোগ হয়! ঘাঁ হয়ে যায়। এ সমস্যা উত্তরণের জন্য এ পর্যন্ত দুইবার মোবাইল কোর্ট হয়েছে, কিন্তু কাউকে জরিমানা করা হয়নি। মাওনা চৌরাস্তার কিছু অংশ পৌরসভা ও কিছু অংশ তেলিহাটি ইউনিয়ন পরিষদের সীমানায়। তাই পৌর কে বললে পৌর মাঝেমধ্যে পরিষ্কারের কাজ করলেও তেলিহাটি ইউনিয়ন আসেই না! উপজেলা পরিষদ ইচ্ছে করলে করতে পারে। 
দূর থেকে ভালো মানের ক্রেতাগণ আসলে এতো নোংরা পরিবেশ দেখে গাড়ি পার্কিং না করেই চলে যায়।এ সমস্যায় জনসাধারণ কষ্ট করে যাতায়াত করলেও বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ব্যবসায়ীরা।
শ্রীপুর পৌরসভার কনজারভেন্স ইন্সপেক্টর (সিআই) জহির রায়হান জানিয়েছেন, কি বলবো, এটা যারা করতেছে তারা-ই বলতে পারবে তারা কেন এই কাজটা করতেছে? আমরা ইতিপূর্বে যারা বাথরুমের পানি মহাসড়কে দিচ্ছে তাদেরকে নোটিশও করছি।
নাগরিক যদি সচেতন না হয় তাদেরকে ‘বাইরায়া দুইরায়া’ তো আর সচেতন করা যায়না তাইনা? আইন দিয়া কতক্ষণ মানুষকে সচেতন করবো কন? এই-যে নিজে দেখতেছে, নিজের বাসার ময়লা পানি ছেড়ে দিচ্ছে, আবার নিজেই এই ময়লাটা পারাইতাছে তারপরেও সে সচেতন হচ্ছে-না।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত