শিরোনাম :
কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন মুফতি আমির হামজা নওগাঁয় সিভিল সার্জন সম্মেলনকক্ষে ভিটামিন “এ” ক্যাপসুল ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত  এবার সিরাজগঞ্জে কাভার্ডভ্যানে আগুন, পুড়লো সাড়ে ৭ হাজার পিচ মুরগির বাচ্চা সাভারে কাভার্ডভ্যান চাপায় প্রাণ গেল ছেলের, বাবা হাসপাতালে শেখ আবেদ আলীসহ খুলনায় ৩টি আসনে আরও ৬ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল, অপেক্ষামান একটি সাতক্ষীরা -১আসনে নৌকা পেয়ে স্বস্তিতে নেই মাঝি  বড়াইগ্রামে ৭০০০ কৃষক পেলো কৃষি প্রণোদনা বড়াইগ্রাম পাট চাষী প্রশিক্ষণে নেই কোন চাষী! পলাশবাড়ী কৃষি কর্মকর্তা ফাতেমা কাওসার মিশুর মাটির সুরক্ষায় পুরুস্কার লাভ ঝিনাইদহে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসহ আটক ১
সড়কের অতন্দ্র প্রহরী ট্রাফিক পুলিশ

সড়কের অতন্দ্র প্রহরী ট্রাফিক পুলিশ

হাসান: কর্মব্যস্ত জীবনে জীবিকার তাগিদে আমাদের প্রতিদিনই ছুটতে হয় কোন না কোন কাজের পিছে। সঠিক সময় গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জন্য আমাদের প্রতিদিনই চলাচল করতে হয় পরিবহনে। দক্ষ চালকের নিয়ন্ত্রণে পরিবহন টি ছুটে চলে গন্তব্যস্থলের দিকে। মন্তব্যস্থলের উদ্দেশ্যে ছুটে চলা পরিবহন টি যে সড়কের মধ্য দিয়ে চলাচল করছেন সেই সড়কটির সার্বিক নিরাপত্তা জনগণের নির্বিঘ্নে চলাচলের অতন্ত্র প্রহরী হিসেবে কাজ করেন ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ। দিনরাত চব্বিশ ঘন্টা না না প্রতিকূলতাকে উপেক্ষা করে নিরলস ভাবে জনগণের নিরাপদে চলাচলের কথা বিবেচনা করে, সড়কের দুর্ঘটনার শিকার হয়ে যেন কোন প্রাণ অকালে ঝরে না যায় সেজন্য সর্বক্ষণ সড়কের গাইড লাইনার হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন ট্রাফিক পুলিশ। ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করেও পালন করে যাচ্ছেন তাদের দায়িত্ব। নিজেদের চাওয়া পাওয়াকে বিসর্জন দিয়ে দেশের জনগণের নিরাপদে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর গুরু দায়িত্বই যেন পালন করে যাচ্ছেন ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ। কথা বলি গাজীপুরে কর্মরত একজন ট্রাফিক পুলিশের সাথে। জানতে চাওয়া হলো মুষলধারে বৃষ্টির মাঝেও সড়কের মাঝে দাঁড়িয়ে থেকে জনগণকে নিরাপদে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর কাজের অভিমত প্রসঙ্গে। উত্তরে তিনি প্রতিবেদককে জানান আমাদের উপর সরকারের যে দায়িত্ব প্রদান করেছেন সেই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আমাদের চাওয়া-পাওয়াকে বিসর্জন দিতে হবে। কিন্তু আমরা মন থেকে অনেক প্রশান্তি পাই এই ভেবে যে আমাদের ট্রাফিক পুলিশদের তত্ত্বাবধানে সড়কে যানজট মুক্ত রাখা দুর্ঘটনামুক্ত রাখা এবং নিরাপদে জনগণকে তাদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে সাহায্য করে এই ভেবে আমরা মন থেকে আনন্দ পেয়ে থাকি। পূর্বে গাজীপুর চান্দনা চৌরাস্তা থেকে আব্দুল্লাহপুর যেতে সময় লাগতো দুই থেকে তিন ঘন্টা। কিন্তু বর্তমান সময়ে চৌরাস্তা থেকে আব্দুল্লাহপুর যেতে সময় লাগে মাত্র ৩0 থেকে ৪০ মিনিট। এমনটাই জানান একজন পরিবহন চালক। কথা বলি গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার আলমগীর হোসেন এর সাথে। তিনি প্রতিবেদককে জানান গাজীপুরকে যানজট মুক্ত রাখতে সড়কে দুর্ঘটনা কমাতে এবং নিরাপদে জনগণ যাতে করে সড়কে চলাচল করতে পারে সে বিষয়ে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে গাজীপুর ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের সকল কর্মকর্তা। পূর্বে গাজীপুর থেকে ঢাকায় যেতে সময় লাগতো তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা লেগে থাকতো দীর্ঘ যানজট, সৃষ্টি হতো জন ভোগান্তি। সেই ব্যস্ততম ঢাকা গাজীপুর সড়কের যানজট এখন বর্তমানে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে ।গাজীপুর থেকে ঢাকায় যেতে সময় লাগে ৩০ থেকে ৪০ মিনিট। বি আর টি প্রকল্পের কাজটা শেষ হলে কমে যাবে আরো। যানজট মুক্ত হবে ঢাকা গাজীপুর সড়ক। এরাই যেন সড়কের অতন্ত্র প্রহরী অন্যের মুখে হাসি ফুটাতে নিজের সুখ দুঃখকে মনের গহীনে চাপা দিয়ে ঝড়-বৃষ্টি সহ যেকোনো ধরনের কঠিন প্রতিকূলতা উপেক্ষা করেও দায়িত্ব পালন করেন ।জনগণকে নির্বিঘ্নে নিরাপদে তাদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দেওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন দিন রাত ২৪ ঘন্টা। উচ্চ বেতনের আকাঙ্ক্ষা না থাকলেও দেশ সেবায় কার্পণ্যতা নেই এই যোদ্ধাদের মাঝে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত