শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
আইন সহায়তা কেন্দ্র ফাউন্ডেশন ঢাকা ডিভিশনের অবদান কালিয়াকৈরে মিথ্যা মমলার অবসান ঘটিয়ে বাদী-বিবাদী মিলেমিশে বাস করছে।

আইন সহায়তা কেন্দ্র ফাউন্ডেশন ঢাকা ডিভিশনের অবদান কালিয়াকৈরে মিথ্যা মমলার অবসান ঘটিয়ে বাদী-বিবাদী মিলেমিশে বাস করছে।

শহিদুল ইসলাম : আইন সহায়তা ফাউন্ডেশন ঢাকা ডিভিশনের প্রধান জনাব মোহাম্মদ লোকমানের নেতৃত্বে একটি চার সদস্য বিশিষ্ট টিম গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর থানাস্থ বিষাইদের খোলারটেকি এলাকায় বাদী মাসুদ রানা ও বিবাদী  আলহাজ্জ আব্দুল খালেকের বাড়ীতে  ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর বাদী-বিবাদী উভয়ে, এলাকার মেম্বারসহ ৭০ জনের উর্দ্ধ লোক উপস্থিত হন। বাদী-বিবাদীর উপস্থিত ব্যক্তিবর্গের সম্মুখে উভয় পক্ষের বক্তব্য শোনেন। উভয়ের ভূল বুঝতে পেরে একটি আপোষের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এই বিষয়ে আইন সহায়তা কেন্দ্র ফাউন্ডেশন ঢাকা ডিভিশনের অবদান মোহাম্মদ লোকমান সাহেবকে জিজ্ঞাসা করলে, তিনি যানান- কিভাবে এখানে আপোষ করার জন্য আসলেন ? তখন তিনি জানান, জনাব আলহাজ্জ আব্দুল খালেক (৬৫) আমার বিভাগীয় কার্যালয় আসেন এবং একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের বিষয়বস্তু হিসাবে উল্লেখ করেন জনাব মাসুদ রানা (৪২), পিতা আহমদ আলী। তিনি জনাব আলহাজ্জ আব্দুল খালেকের ছোট ভাই হাশিম সাহেব থেকে ৫ কাঠা জমি ক্রয় করেন এবং আরো ৬ শতাংশ জমি ক্রয় করার জন্য প্রস্তাব দিলে আলহাজ্জ আব্দুল খালেক বলেন আমি ক্রয় করব এবং তিনি ক্রয় করেন । মাসুদ রানা উক্ত জমি ক্রয় করতে না পেরে হাজী আব্দুল খালেকের প্রতি ক্ষিপ্ত হয় এবং মৌখিকভাবে ঝগড়া-ঝাটি  হয় উক্ত কোন্দলকে কেন্দ্র করে কিছুদিন পর এলাকার কিছু দুঃস্কৃতি কারীদের বুদ্ধি নিয়ে মাসুদ রানা আলহাজ্জ আব্দুল খালেককে নিঃস্ব করার অপচেষ্টায় মাসুদ রানা তার ১২ বছরের মেয়েকে দিয়ে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর থানায় মিথ্যা ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলার নং ৩৯(৮)১৮ ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সালের সংশোধনী ২০০৩ এর ৯(১)। মামলা দায়ের করেন। যার তারিখ ১৮/০৮/২০১৮ ইং। উক্ত মামলা দীর্ঘদিন চলার সময় পুলিশ তদন্তে বিবাদী আলহাজ্জ আব্দুল খালেকের বিরুদ্ধে আনিত মামলার কোন আলামত না পাওয়ায় এবং অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় পুলিশ উক্ত মামলা হইতে অব্যাহতি দানের জন্য প্রার্থনা করেন এবং মেডিকেল রিপোর্ট নীলসহ যাবতীয় কাগজ আমার কার্যালয় আবেদনের সাথে সংযুক্ত করেন। উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে আমি প্রথমে মিটিং এ আলোচনা করি এবং উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে সংস্থার ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি টিম ঘটনাস্থলে সরেজমিনে যাই । যাওয়ার পূর্বে মামনীয় আইজিপি মহোদয় পুলিশ হেড কোয়াটার্স, গাজীপুর পুলিশ সুপার ও কালিয়াকৈর অফিসার ইনচার্জকে অবগতি চিঠি প্রেরণ করা হয়। এছাড়া কালিয়াকৈর থানার অফিসার ইনচার্জ এর সাথে সাক্ষাৎ  করি এবং বাদী- বিবাদীর বিষয়টি বলি। এরপর  ঘটনাস্থলে যাই। উপস্থিত লোকজনের সামনে বিষয়টি সত্য কি মিথ্যা এ নিয়ে যাচাই বাছাই কালিন অনেক কথার মাঝে যখন সঠিক ও সত্য প্রকাশিত হয় তখন হাজী আঃ খালেকের বিরুদ্ধে আনিত ধর্ষণ মামলার বাদী জনাব মাসুদ রানা উপস্থিত সকলের সামনে বলেন, স্যার আপনার কথাগুলো সত্য এবং আমার পছন্দ হয়েছে তাই আমি উক্ত মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহার করে নিব এবং অদ্য আমাদের সামনে আপোষ করতে চাই। তবে স্যার আমার একটি অনুরোধ থাকবে  হাজী আব্দুল  খালেক যেন আমার বিরুদ্ধে মানহানী মামলা না করেন। এই কথার আলোকে একটি আপোষ মিমাংসা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।  আপোষ -মিমাংশায় যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে – মৃত হানিফ আলীর পুত্র- মোঃ মিরাজ উদ্দিন ( মেম্বার), মাসুদ রানার স্ত্রী- হালিমা বেগম, মৃত শাহবুদ্দিন মাতাব্বরের পুত্র নুর উদ্দিন মাতাব্বর, মৃত মজিবর রহমানের পুত্র -অব্দুস সামাদ, মৃত হাসেন আলীর পুত্র- অছিম উদ্দিন মাতাব্বর, মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র- আব্দুল খালেক, মোখলেছুর রহমানের পুত্র- ফারুক হোসেনসহ গণ্যমান্য প্রায় ৭০ ব্যক্তিবর্গ আপোষ কালিন সময়ে উপস্থিত ছিলেন। স্বাক্ষী যারা ছিলেন তাদের নাম, পিতার নামসহ উল্লেখ রয়েছে। উক্ত আপোষের জন্য মাসুদ রানা তিন ফর্দ্দের ৩০০ (তিনশত) টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প মাসুদ রানার নামে এন্ট্রি করিয়া নিয়ে আসেন এবং উক্ত স্টাম্পে বাদী বিবাদী ও স্বাক্ষরকারীগণ স্ব স্ব হস্তে স্বাক্ষর করেন। পরবর্তীতে বাদী বিবাদী নিজেদের ভূল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে একটি সুষ্ঠু সমাধান হয়েছে বিষয়টি উক্ত মামলা পরিচালনাকারী জনাব এ্যাডভোকেট জাফর সাহেবকে মুঠোফোনে জানালে তিনি সন্তুষ্ট প্রকাশ করেন, উক্ত মামলা উড্ড করার জন্য উভয় পক্ষের -২ জন এ্যাডভোকেট বসে ম্যাজিষ্টেটের অনুমতি সাপেক্ষে অথাৎ ২৬৫/সি ধারা মোতাবেক একটি প্রেয়ার দিয়ে মামলাটি ডিসমিস করার সু-ব্যবস্থা করিবেন বলে পরামর্শ দেওয়া হয়। কালিয়াকৈরে এই মামলায় দীর্ঘদিন যাবৎ ঝগড়ায় উভয় পক্ষের মধ্যে অশান্তি বিরাজ করতে ছিল। কিন্তু তাদের মধ্যে এই অশান্তি এখন নেই। আইন সহায়তা কেন্দ্র ফাউন্ডেশন ঢাকা ডিভিশনের প্রধান মোঃ লোকমান সাহেবের অক্লান্ত পরিশ্রম করে উভয় পক্ষের মধ্যে শান্তির সুফল বয়ে এনেছে। যা সত্যিই প্রসংশনীয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত