শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
ঝালকাঠিতে দুর্যোগ, দু্র্ভোগ আর মানবতার সেবায় মানুষের পাশে ওসি খলিলুর রহমান

ঝালকাঠিতে দুর্যোগ, দু্র্ভোগ আর মানবতার সেবায় মানুষের পাশে ওসি খলিলুর রহমান

সৈয়দ রুবেল : প্রানগাতি করোনা পরিস্থিতিতে ঝালকাঠি পুলিশ সুপার এর নির্দেশনার পাশাপাশি দুর্গত মানুষের পাশে দাড়িয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন ঝালকাঠি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খলিলুর রহমান ও তার সদস্যরা। করোনা সংক্রামন রোদে পুলিশ সদস্যরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সহ অন্যান্য কার্যক্রম পদক্ষেপ নিশ্চিত করার জন্য মাঠ পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ থেকে মুক্তি পেতে করণীয় সম্পর্কে জনগণকে ক্রমাগত মনস্থান্তিক পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ অর্থ পৌঁছে দেওয়া সব সময় মুখে মাক্স ও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে হাতে গ্লোভস ব্যবহার, স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাস্তায় চলাচল, গণপরিবহন চলাচল তদারকি, সচেতনতা মূলক মাইকিং, লিফলেট বিতরণসহ তাদের বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে থেমে গেছে মানুষের জীবন-জীবিকা। রিকশাচালক থেকে শুরু করে নিম্নআয়ের মানুষ অসহায় কাটাচ্ছেন। এমন পরিস্থিতিতে থানার ওসির কাছে ছুটে আসলে তাদের দুর্দিনের কথা শুনে ওসি খলিলুর রহমান খাবারের জন্য নিজস্ব উদ্যোগে নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী দিচ্ছেন । ওসি খলিলুর রহমান ঝালকাঠির অসহায় দরিদ্র মানুষের খোঁজ খবর নিচ্ছেন । এবং তিনি যতদিন থানায় দায়িত্বে আছেন এটি অব্যাহত রাখবেন বলেও জানান। ঝালকাঠি পুলিশ সুপার ফাতেহ ইয়াসমিন এর কড়া নির্দেশনা প্রতিটি থানা দালালমুক্ত বা কোন প্রকার অনৈতিক কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকা। তারই ধারাবাহিকতায় ঝালকাঠি সদর থানায় সেবা গ্রহণ করতে আসলে বা কোন অভিযোগ দিতে আসলে কোন প্রকার উৎকোচ গ্রহণ তো করেই না বরং অফিসার ইনচার্জ খুশি হয়ে তাদেরকে সু পরামর্শ প্রদান করেন এবং থানায় দিনমজুর বা শ্রমিকরা অভিযোগ করতে আসলে তাদের সেই হিসেবে তাদেরকে সাধ্যমত সহযোগিতা করার চেষ্টা করেন। পুলিশ নিয়ে অনেকের বিরূপ ধারণা থাকলেও বর্তমান ঝালকাঠি জেলার পুলিশ সুপার ও সদর থানা অফিসার ইনচার্জ সে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন। অফিসার ইনচার্জ খলিলুর রহমান একজন ব্যতিক্রম ধর্মী মিষ্টভাষী পুলিশ অফিসার। প্রতিনিয়ত তিনি সহকর্মী ও সাধারণ জনগণের আদর্শগত ভিন্নতা মেনে নিয়ে পরস্পরের সঙ্গে করে যাচ্ছেন জনগণ ও দেশের কল্যাণে।”পুলিশ জনগণের বন্ধু” তিনি এই বাক্যটির উৎকৃষ্ট নিদর্শন। তিনি অন্যতম একজন আদর্শ পুলিশ অফিসার। যিনি তার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে আধুনিকতা প্রযুক্তি ও সততা এবং মেধার দক্ষতা দিয়ে অপরাধ দমন করার চেষ্টা করেন দেশের কল্যাণে। পুলিশ জনতার জনতা পুলিশের এই শ্লোগানকে বাস্তব রূপ দিয়েছেন এই পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি তার সততা, নেয় নিষ্ঠা, বিচক্ষণতা ও বুদ্ধিমত্তা এবং মেধা বিকাশে তার দায়িত্বরত এলাকায় মাদক সন্ত্রাস চাঁদাবাজি দখলবাজদের হাত থেকে মুক্ত করেছেন। তার চোখে ধনী-গরীব রিকশাচালক হতে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ সমান। তিনি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দেশে মানুষের মাঝে উপস্থিত হয়ে মানুষের সুখ-দুঃখের কথা শুনেন এবং সুপরামর্শ দেন।একজন পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে তিনি সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ ও অবদান রেখে চলেছেন। অফিসার ইনচার্জ খলিলুর রহমান বলেন বর্তমান সরকার গণমানুষের সরকার আমাদের পাঠিয়েছেন মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে, তাদেরকে হেফাজত করতে মানুষের সাথে তাদের সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করে নিতে। আমরা মানুষের অতন্ত্র প্রহরী আমাদের কাজ হচ্ছে দেশকে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, চাঁদাবাজ, ইভটিজার মুক্ত করে মানুষের মাঝে শান্তি ফিরিয়ে আনা। একজন নির্যাতিত মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল হলো পুলিশ। আর আমরা যদি তাদের আশ্রয় এবং তাদের সমস্যা নিরসন না করি তাহলে কি করবে। পুলিশ অতন্ত্র প্রহরী হিসেবে রাত জেগে থাকে শুধু জনগণ শান্তিতে ঘুমাবি বলে, ঈদের ছুটিতেও জনগণ যাতে তাদের এই ঈদকে সুন্দর সুশৃংখল এবং শান্তিতে কাটাতে পারে সেজন্য অনেক পুলিশ অফিসার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে, আমি একটি কথা বলব জনগণের উদ্দেশ্যে আপনারা পুলিশকে নিজের বন্ধু ভাবুন, পুলিশ জনগণের বন্ধু। পুলিশ জনগণের শুধু বন্ধুই নয়, সেবক ও বটে। পুলিশ সব সময় জনগণের বন্ধু হিসেবে জনগণের পাশে ছিল এবং আগামীতেও থাকবে। জনগণের আন্তরিক ভালোবাসা সহযোগিতা ছাড়া পুলিশের পক্ষে ব্যাপক জনগোষ্ঠীর সেবা দেওয়া সম্ভব নয়। ওসি খলিলুর রহমান আরও বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের কর্ণধার মাননীয় আইজিপি মহোদয় সহ ঝালকাঠি জেলা পুলিশের কর্ণধার হাতে ইয়াসমিন স্যারদের সততা-নিষ্ঠা মানবিকতার আদর্শে অনুপ্রাণিত আমি। তাদের আদর্শের অনুপ্রেরণা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। জনসাধারণকে সেবা প্রদান করে উপজেলা বাসীর কাছে শতভাগ আস্থা অর্জন করেছেন ঝালকাঠি সদর থানা পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যগণ। করণা আক্রান্তদের হোম আইসোলেশন, লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা। নিজ অর্থায়নে অসহায়দের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ এবং ন্যায্যমূল্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রিতে সহায়তা করেছে ঝালকাঠি উপজেলা পুলিশ বাহিনী। পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন এর নির্দেশে ঝালকাঠি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খলিলুর রহমান প্রতিনিয়ত পুলিশের টিম নিয়ে ছুটে বেড়াচ্ছেন উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। থানা পুলিশ সব দায়িত্বের ঊর্ধ্বে এমন মানবিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার পাশাপাশি উপজেলার আইন-শৃঙ্খলার উন্নয়নে ভূমিকা রাখছেন। এতে উপজেলা বাসিন্দাদের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করছে। করোনায় মানুষের সেবা প্রদান করতে গিয়ে ইতিমধ্যে জেলা পুলিশ সহ বিভিন্ন জেলার পুলিশ কর্মকর্তা সদস্য ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অনেক পুলিশ সদস্য প্রাণ হারিয়েছেন। কিন্তু তাতেও ঝালকাঠি সদর থানা পুলিশ থেমে নেই। জীবনের শেষ বিন্দু সময় পর্যন্ত দেশ ও জাতির সেবায় নিজেদের বিলিয়ে দেবে বলে তারা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

Please Share This Post in Your Social Media

সবুজ-শ্যামল গ্রামবাংলার অপরূপ দৃশ্য দেখতেই বাংলাদেশে ফেরা জার্মান নাগরিক ড. প্যাট্রিক মুলারের। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে শ্বশুরবাড়ির লালমনিরহাটে এসে পরিবারসহ গ্রামবাসীর ঈদের আনন্দ কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেন এ জার্মান নাগরিক। প্রথমবার শ্বশুরবাড়িতে ধান মাড়াই, লুঙ্গি-গামছা পরে পুকুরে জাল ফেলে মাছ শিকারসহ বিভিন্ন কাজ করে স্থানীয়দের তাক লাগিয়েছেন তিনি। খেয়েছেন বাঙালি খাবারও। প্রায় ১৫ দিনের সফর শেষে শনিবার নিজ দেশের উদ্দেশ্যে শ্বশুরবাড়ি ছেড়েছেন ড. প্যাট্রিক মুলার। তবে বিদায় নেয়ার দৃশ্য ছিল বেদনার। বাংলার মানুষের মায়া ত্যাগ করায় নিজে যেমন কেঁদেছেন, শ্বশুরবাড়ি ও এলাকার লোকজনকেও কাঁদিয়েছেন তিনি। মেয়ে জামাই আর নাতিকে বিদায় দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তার শ্বশুর-শাশুড়ি। শনিবার দুপুরে পরিবার নিয়ে সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন লালমনিরহাটের মেয়ে মৌসুমি আক্তার ইভা ও জার্মান নাগরিক ড. প্যাট্রিক মুলার দম্পতি। রোববার সকাল ৬টার ফ্লাইটে তারা জার্মানিতে রওনা হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইভার বাবা আখতার হোসেন। জানা গেছে, ২০১৬ সালে উচ্চ শিক্ষার জন্য জার্মানিতে যান ইভা। সেখানে গিয়ে পড়ালেখার পাশাপাশি একটি রেস্তোরাঁয় চাকরি নেন তিনি। ওই সময় রেস্তোরাঁয় আসা-যাওয়া ছিল অর্থনীতিতে পিএইচডি করা ড. প্যাট্রিক মুলারের। একপর্যায়ে তাদের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। এভাবেই ভালোলাগাটা আস্তে আস্তে ভালোবাসায় রূপ নেয়। ছয় মাস প্রেমের পর পরিবারকে না জানিয়ে বিয়ে করেন প্যাট্রিক-ইভা। বিয়ের এক বছরের মাথায় তাদের কোলজুড়ে ফুটফুটে পুত্রসন্তান আসে। ছেলের নাম রাখেন ইউহান। প্যাট্রিক বর্তমানে বার্লিনে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। দীর্ঘ চার বছরের সংসার জীবনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলাদেশের রূপ দেখে মুগ্ধ হন এ জার্মান জামাই। ইভার পরিবারকে নিয়ে ঈদ করতে চান প্যাট্রিক। তাই ইভা বাড়িতে জানালেন স্বামী ড. প্যাট্রিক মুলার ও ছেলেসহ দেশে আসছেন। ২৯ এপ্রিল শ্বশুরবাড়ি লালমনিরহাটে বেড়াতে আসেন এ জার্মান জামাই। জামাইকে ধুমধাম করে বরণ করেন লালমনিরহাট শহরের স্টেডিয়াম পাড়া এলাকার লোকজন। শ্বশুরবাড়িতে প্রথম এসেছেন জার্মান জামাই। তাই সব ধরনের চাইনিজ খাবার রান্না করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। কিন্তু জার্মান জামাইয়ের আবদার বাঙালি খাবারের স্বাদ নেবেন। বিভিন্ন ধরনের মাছ-মাংসসহ নানা খাদ্যের সমাহার টেবিলে দেন। হাত দিয়ে বাঙালির মতো খাবারও খান তিনি। এসব দেখে ইভার পরিবার আশ্চর্য হন শুধু তাই নয়, গ্রাম ঘুরে দেখতে ঈদের পর দিন আদিতমারী উপজেলার পলাশী ইউনিয়নের একটি গ্রামে যান। গ্রামীণ পরিবেশের গ্রামীণ মানুষদের সঙ্গে ধান কাটা, ধান মাড়াই, পুকুরে জাল ফেলে মাছ ধরা, গ্রামীণ পথে বাইসাইকেল চালানো কোনোটার মজা বাদ দেননি প্যাট্রিক মুলার স্ত্রী ইভাকে সঙ্গে নিয়ে গ্রামীণ দৃশ্যে বাংলা গানের শুটিং করতেও ভোলেননি। গ্রামে ঘুরতে গিয়ে খেয়েছেন পান ও চুন। প্যাট্রিকের সরলতায় মুগ্ধ গ্রামবাসী। ঢাকায় ফেরার আগে মৌসুমি আক্তার ইভা বলেন, অর্থনীতিতে পিএইচডি করা ড. প্যাট্রিক মুলার খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী। এতে আমার কোনো সমস্যা নেই। যার যে ধর্ম সে হিসাবে পালন করছি। একজন ভালো মানুষ হওয়ায় আমি তাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছি। বাঙালি রীতি মেনে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা এখনো করা হয়নি। ড. প্যাট্রিক মুলার বলেন, বাংলাদেশের মানুষের পোশাকসহ নানা ধরনের খাবার তার মন কেড়েছে। তিনি সবার কাছে তার পরিবারের জন্য দোয়া চেয়েছেন।বাংলাদেশের বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে ঘুরে কেমন লেগেছে এমন প্রশ্নের জবাবে প্যাট্রিক বলেন, ফেসবুক-ইউটিউবের কল্যাণে বাংলাদেশের গ্রামের রঙ দেখেছি। বাস্তবে এত সুন্দর দেশ আর কোথাও নেই।লালমনিরহাট শহরের স্টেডিয়াম পাড়ার বাসিন্দা ইভার বাবা আখতার হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন বিদেশে থাকার পর সন্তান যখন বাবা-মায়ের কাছে ফিরে আসে এর চেয়ে আনন্দের কিছু হতে পারে না। আর জার্মান নাগরিক জামাই পরিবারকে রেখে আমাদের সঙ্গে ঈদ করেছে, এটিও অনেক বড় পাওয়া আমাদের জন্য। তিনি এত ভদ্র আচরণ করেছেন সবার সঙ্গে যা ভাবাই যায় না। আমার মেয়ে ও জামাইয়ের জন্য সবার কাছে দোয়া চাই। লালমনিরহাট পৌর মেয়র রেজাউল করিম স্বপন বলেন, জার্মান নাগরিক লালমনিরহাটের জামাই হয়েছেন এটা জেলার জন্য গর্বের কথা। ওই পরিবারের এক দাওয়াত অনুষ্ঠানে গিয়ে জার্মান নাগরিক ড. প্যাট্রিক মুলার ও মৌসুমি আক্তার ইভার সঙ্গে কথা বলেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত