শিরোনাম :
গাজীপুরে শিক্ষক পরিবারের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ গাজীপুরে সরকারি হাসপাতালে পুলিশসহ ২জনকে কামড়ে দিলো রিক্সা চালক নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা জামনগর ডিগ্রি কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন ভূমিসেবায় এখন কোন হয়রানি নাই, কেউ দালালের কাছে যাবেন না:নরসিংদীর জেলা প্রশাসক গাজীপুরে সুদের টাকা পরিশোধ করেও হয়রানির শিকার রাজবাড়ীতে ট্রেনে কাটা পড়ে মৎসজীবী নিহত মধুপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহ  উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত ভূমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় পিরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে ভৈরব সেতুর নির্মাণ কাজ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন পাচারকারীর হাত থেকে পালিয়ে দেশে ফিরলো এক যুবতী, ঘটনার সাথে জড়িত গ্রেফতার  ৩ 
ঢাকা-১৮ আসনের জনগন এমপি হিসেবে হাবীব হাসানকে দেখতে চায়

ঢাকা-১৮ আসনের জনগন এমপি হিসেবে হাবীব হাসানকে দেখতে চায়

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম: আওয়ামী লীগ যখন বিরোধী দলে থাকে, ঢাকা-১৮ আসনের আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা অভিভাবক শূন্য থাকে। অথচ আন্দোলনকে গতিশীল করতে ঢাকা-১৮ আসন একটি গুরুত্বপূর্ন স্থান। এই ১৮ আসনে যারা নির্বাচন করেন, আন্দোলন সংগ্রাম করার সময় বিপদে-আপদে এ পর্যন্ত কোন এমপি পাশে ছিল না, আজকে যারা স্থানীয় সিনিয়র নেতা, নেত্রীত্ব দিচ্ছেন, তারাই তখন নেত্রীত্ব দিয়ে যান। নেতা কর্মীদের সুখে-দু:খে তখন তারাই পাশে থাকেন। তাই সু-দিনের অভিভাবক থেকে দুর্দীনের অভিভাবক অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন।
আওয়ামী লীগের একজন ত্যাগী নেতা হল আলহাজ¦ মোহাম্মদ হাবীব হাসান, বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে হরতাল সফল করতে গেলে পুলিশ লাঠিপেটা করে রশি দিয়ে বেঁধে থানার সামনে সারাদিন দাঁড় করিয়ে রেখেছিল, পরদিন জেলে পাঠিয়েছিল আমাদের আওয়ামী লীগের এই ত্যাগী নেতাকে। বছরের পর বছর বাড়ি ছাড়া হয়ে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রাজপথে মিটিং মিছিল আন্দোলন করে নেতা কর্মীদের ছায়া দিয়ে দলকে সু-সংগঠিত করে রেখেছেন এই ত্যাগী নেতা আলহাজ¦ মোহাম্মদ হাবীব হাসান। জেল-জুলুম নির্যাতন ছিল তার নিত্যদিনের সঙ্গী। সেই সৌরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলন থেকে ৯০ দশক এর গন-আন্দোলন, বিএনপি জামাত জোট সরকার আমলে এই ত্যাগী নেতা আলহাজ¦ মোহাম্মদ হাবীব হাসানের ভুমিকা ছিল অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এসব কি আমাদের মমতাময়ী মা বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরতœ জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জানে না? আওয়ামী লীগের এই ত্যাগী নেতা কোটি কোটি টাকা খরচ করে লভিং রাখতে পারে নাই। অনেক কষ্টের সাথে বলতে হয়, আজ মানুষের গুঞ্জন শুনে মনে হচ্ছে আপনারা ভুল রাজনীতি করেছেন। আপনারা সরকারের সুবিধা নিয়ে শাহেদ, জিকে শামীমদের মত শত কোটি টাকা বানিয়ে কোটি কোটি টাকা খরচ করে লভিং রাখা দরকার ছিল। নেত্রীর কানে উনারা যত প্রকার ত্যাগী নেতা হওয়া যায় সব ধরনের ত্যাগের খেতাব আপনাদের দিয়ে দিত। আর নমিনেশন পাওয়া তখন হত চুটকির ব্যাপার। আর কত ত্যাগ শিকার করলে এমপি হওয়ার যোগ্যতা রাখতে পারবে এই ত্যাগী নেতা আলহাজ¦ মোহাম্মদ হাবীব হাসান? আজ যারা ১৮ আসনের এমপি হতে চান তারা আগে অঙ্গীকার করুন। সরকার পরিবর্তন হলে আপনার ভূমিকা কি হবে? কর্মীদের নিয়ে রাজপথে থাকতে পারবেন? না ব্যবসা বাঁচাতে তখন সরকারের দফাদারী করবেন?
বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে সাবেক ঢাকা-৫, বর্তমানে ঢাকা-১৮ এডভোকেট সাহারা খাতুন ব্যতিত স্থানীয় কেউই এমপি হয়নি। সাবেক ঢাকা-৫ এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমপি হয়েছিলেন। খালেদা জীয়া এমপি হয়েছিলেন। দুটি দলের প্রধান এমপি হওয়া সত্বেও এলাকার কোন উন্নয়ন হচ্ছিল না। বর্তমান ঢাকা-১৮ আসনে প্রয়াত এডভোকেট সাহারা খাতুন এমপি হওয়ার পর ব্যপক উন্নয় হয়েছে। তাই ঢাকা-১৮ আসনের সাধারন জনগনের অন্তরের অন্তস্থলের দাবি, ঢাকা-১৮ আসনের স্থানীয় তৃনমূল থেকে উঠে আসা এমন একজনকে এই উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হোক। প্রয়াত এডভোকেট সাহারা খাতুনের মত যেন সর্বস্তরের জনগনের হৃদয়ে স্থান করে নিতে পারে। হাইব্রিড, অসৎ ব্যবসায়ী, অতিথি পাখি, টাকার কাছে বিক্রি না হয়ে সত্যিকারের জনদরদি ও মেহনতি মানুষের বন্ধু, বিপদে-আপদে যাকে কাছে পাই, জনগনের জন্য সবসময় দরজা খোলা থাকে এমন একজন ব্যক্তিকেই যেন মনোনয়ন দেয়া হয়। এটাই ঢাকা-১৮ আসনের সর্বস্তরের জনগনের প্রাণের দাবি। তাই আমরা ঢাকা-১৮ আসনের আওয়ামী লীগ ও সকল সংগঠনগুলোর নেতা কর্মীদের কাছে অনুরোধ করি, দুর্দীনের অভিভাবক আলহাজ¦ মোহাম্মদ হাবীব হাসান এর জন্য মমতাময়ী মা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এর কাছে বিনিত ভাবে দাবী জানাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত