শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ সহযোগী বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল খাঁ ; মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করেছে

বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ সহযোগী বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল খাঁ ; মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করেছে

নিজস্ব প্রতিনিধি : বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ সহযোগী বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল খাঁ জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করেছে। কুমিল্লা-চাঁদপুর থেকে ১৯৬৯ সালে ঢাকার তেজগাঁও খাদ্য গোডাউনে লেবারের কাজ করার জন্য আসেন সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা জামাল খাঁ। কাঁঠাল বাগানের স্থায়ী বাসিন্দা। কাওরান বাজারের লোহার ব্যবসায়ী চান খাঁ’র সাথে আওয়ামীলীগ রাজনীতিতে যোগদান করেন। আওয়ামীলীগ নেতা চান খাঁর সাথে আওয়ামীলীগের সভা সমাবেশ ও মিছিলে অংশ নেন এবং ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষন শুনেছেন তিনি। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি ভাষানটেকের বাসা থেকে শাকসবজির ভিতরে করে গোপনীয়ভাবে অস্ত্র ও গোলাবারুদ কাওরান বাজার, তেজগাঁও, ফার্মগেট মুক্তিযোদ্ধার ক্যাম্পে অস্ত্র সরবরাহ করেন জীবন বাজি রেখে জামাল খাঁ। বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিন, আবুল বাশার ও ফরিদের সাথে সাক্ষাতে এবং চান খাঁর পরামর্শক্রমে মুক্তিযুদ্ধকালীন কাজ করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর আবার খাদ্য গোডাউনে লেবারের কাজ করতে ঢাকায় আসেন। কাওরান বাজার সংলগ্ন ২৯/এ, দক্ষিন বেগুনবাড়ী হযরত শাহ্ পন্থী (রঃ) এর মাজারের পূর্বের অস্থায়ী খাদেম মনসুর ফকির এর সাথে কাজ করেন। মাজার ভক্ত জামাল খাঁ পেশাগত কাজের ফাকে ফাকে মাজারে এসে দেখাশুনা ও সেবামূলক কাজ করেন। তিনি ১৯৮৭ সালে মাজারের জমি ওয়াকফ এষ্টেট হওয়ার পর মোতওয়াল্লীর দায়িত্ব পান এবং পরে মাজার কমিটির সেক্রেটারী ও প্রধান খাদেম হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। মাজারের দায়িত্ব পাওয়ার পর মাজারে মদ, গাঁজা, আড্ডা, উচ্ছেদ করে মাজারের পবিত্রতা ফিরিয়ে আনেন এবং মাজারে মসজিদ ও মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে। তিনি তেজগাঁও থানা মুক্তিযোদ্ধা পূনর্বাসন বহুমুখী সমবায় সমিতি (জামুকা, রেজিঃ-১৭) সদস্য হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সেবামূলক কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। জামাল খাঁ’র বাড়ী চাঁদপুর। তার ছেলে গ্রামের বাড়ীতে মাছের চাষ করে বসত ভিটাবাড়ী ছাড়া আর কোন কৃষি জমিজমা নাই। সহযোগী মুক্তিযোদ্ধার কোঠায় তালিকাভুক্ত করে মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা প্রদান করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মুক্তিযুক্ত বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। মাজারের অফিস কক্ষে জামাল খাঁ বসবাস করছেন। সরকার থেকে কোন আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতা পাচ্ছে না। তিনি পরিবার নিয়ে অসহায়ভাবে জীবন যাপন করছেন। তাকে আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতা করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত