শিরোনাম :
গাজীপুরে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে সৎবাবা গ্রেফতার ৫ম ধাপের মনোনয়ন ফরম কাল থেকে বিক্রি করবে আ.লীগ ; জমাদানের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর ফরিদপুরে মোটর সাইকেল চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক ঝিনাইদহে কৃষককে গলা কেটে হত্যা মানুষের সেবায় রক্তের প্রয়োজনে নবপুষ্প ব্লাড ফাউন্ডেশন লালমনিরহাটের দৈখাওয়ায় মিথ্যা অভিযোগ ও সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে মানববন্ধন সিরাজগঞ্জে শাহজাদপুরে নব নির্বাচিত এমপি প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতাকে ফুলেল শুভেচছা ঠাকুরগাঁওয়ে তাড়া খেয়ে মরলো নীলগাই লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবীদের ভালোবাসায় সিক্ত হারুন-নাহার দম্পত্তি ফরিদপুরে হুমায়ূন স্মরণ উৎসব ও ক্যামেরার কবি আলোকচিত্রী নাসির আলী মামুনের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত
দাকোপে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কার্যক্রমে নানা অনিয়ম

দাকোপে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কার্যক্রমে নানা অনিয়ম

খুলনা প্রতিনিধি: খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতাধীন চালনাপৌর এলাকায় ০২-৪২৯-৩৭১০ হিসাব নং এ-র মিটারটি বিগত বুলবুল ঝড়ে ছিড়ে ঝুলছে প্রায় একবছর যাবৎ,প্রতিবার রিডিং নেওয়ার সময় রিডিং নেওয়ার উল্টো পাতায় লিখে বলা হয়ে সত্তর নতুন মিটার লাগিয়ে দিয়ে যাবে অফিস থেকে।বাড়ির ভিতর যাতায়াত পথে ঝুঁকির মধ্যে চলাফেরা করছে গ্রাহকের বাড়ির ছোট ছোট বাচ্চা বুড়োরা সহ সকলেই, অথচ কোন ব্যবস্থা আজও হয়নি। একই গ্রাহকের বাড়ির পিছনে ০২-৪২৯৩৭০০ হিসাব নং এর মিটারটি অনেক বছর আগে কাঠের বোর্ডে লাগানো মিটারের চারিদিকে গাছ বড়ো হয়ে বাগানে পরিগনিত হয়েছে,মিটারটিও বেশ পুরাতন বলে স্থান ও মিটার পরিবর্তনের দাবি দীর্ঘদিনের হলেও কোন ব্যবস্থা নেননি কতৃপক্ষ। উল্লেখ্য এ পুরাতন মিটারটিও ঝড়ে খুলে ঝুলে ছিল একই সময় থেকে। সম্প্রতি সমুহ বিপদের ভয়ে গ্রাহক একটি তারকাঁটা মেরে দেওয়ালের গালে লাগিয়ে রেখেছে। এই হচ্ছে দা’কোপ পল্লীবিদ্যুৎ এর সেবা। এমন সব ব্যাবস্থাপনা দেখে এলাকাবাসি মন্তব্য করে খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ কতৃপক্ষ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত সেবার বাস্তবায়ন করছে। নাকি এরা মুখে ও ফেসবুকে বড় বড় কথা বলে বাস্তবে  সরকারকে বেকায়দায় ফেলানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। নতুন সাব বা চালনা জোনাল অফিস হওয়ার পরে এলাকার গ্রাহকদের অভিযোগের শেষ নেই। ১০০/২০০ টাকার কাজে দালাল শ্রেণী  হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও সদরের গ্রাহকদেরও অভিযোগের শেষ নেই।উল্লেখিত মিটার দুটির বিষয় কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় গ্রাহক একজন সিনিয়র রাজনৈতিকনেতা ও সিনিয়র সাংবাদিক বিধায় লজ্জায় ক্ষুদ্র বিষয়টি জিএম বরাবর দাকোপ অফিসের কতৃপক্ষের মাধ্যেমে দরখাস্ত লিখলে অফিস থেকে হিসাব দেখানো হয়েছে যে পরবর্তন করতে ২২০০/২৩০০ টাকার মতো খরচ হবে। বাস্তবে বিষয়টি কি ? গ্রাহক কেন এ খরচ করবে যা ঝড়ে ছিড়ে ঝুলছে। আসলে পল্লী বিদ্যুৎ এর এ বিষয়ের আইনটি অনেকেই জানতে চায় উদ্ধতন কতৃপক্ষের কাছে। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত