শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
একজন মানবিক পুলিশ কর্মকর্তা ডা.সাইফুল ইসলাম সানতু

একজন মানবিক পুলিশ কর্মকর্তা ডা.সাইফুল ইসলাম সানতু

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগের স্বীকৃতি হিসেবে ‘স্বাধীনতা পদকে’ ভূষিত হওয়া বাংলাদেশ পুলিশের সততায়, বীরত্বপূর্ণ কাজে, দক্ষতায়, কর্তব্যনিষ্ঠায় অবদান অনেক। সত্যিকারের দায়িত্বশীল ও নিষ্ঠাবান পুলিশ আইন মেনে যেমন পেশাগত দায়িত্ব পালন করেন, তেমন-ই তাদের অনেকের সততার, নৈতিকতার, মানবিকতার গল্প মনোমুগ্ধকর। অনেক পুলিশের পেশাগত নেশা এমনই যে, তারা সুযোগ পেলেই প্রতিনিয়ত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান, সহযোগিতা করার সুযোগ খোঁজেন।

এমন-ই একজন মানবিক হৃদয়সম্পন্ন পুলিশ কর্মকর্তা হলেন সাইফুল ইসলাম সানতু। যিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) হিসেবে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হসপিটালে কর্মরত রয়েছেন। ইতোপূর্বে তিনি পুলিশ বাহিনীর বিভিন্ন পদে যথেষ্ট সুনাম ও দক্ষতার সহিত দায়িত্ব পালন করে পেশাদারিত্ব অক্ষুণ্ণ রেখেছেন।
সৎ, নির্ভীক,সাহসী, মেধাবী, নীতিবান, সুশিক্ষিত, সদালাপী, নির্ভীক,দেশপ্রেমিক, কর্তব্যপরায়ণ, সজ্জন, অমায়িক ব্যবহার ও মার্জিত গুনাবলী সম্পন্ন এ পুলিশ কর্মকর্তা করোনাকালীন মহামারীতে মানবিকতার দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করে অসংখ্য মানুষের হৃদয়ে স্মরণীয় হয়ে আছেন।
করোনায় সারাদেশ যখন লকডাউন, তখন তার জীবনের অনিশ্চয়তা আর ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও তার মানবিক হৃদয়কে অর্পণ করেছেন হাসপাতালে আসা আক্রান্ত রোগীদের ওপর। বিবেকের ব্যাকুলতায় আক্রান্ত রোগীদের পাশে এসে বাড়িয়েছেন সহায়তার কোমল দু’হাত। সব দায়িত্ব আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করছেন। মহামারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে পুলিশ বাহিনীর কনস্টেবল হতে শুরু করে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও পুলিশ পরিবারের অসংখ্য সদস্য হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। হাসিমুখে তিনি প্রতিটি ওয়ার্ড ঘুরে রোগীদের খোঁজ খবর নিয়েছেন। আক্রান্ত রোগীদের সাহস যুগিয়েছেন।
তাঁর এমন আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়ে করোনা রোগীরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। যেখানে রোগীর পরিবারের সদস্য ও আত্নীয় স্বজনরা ভয়ে হাসপাতালে আসতেন না, সেখানে তিনি তাদের অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করছেন। এসব রোগীরা কখনও চিন্তাও করেনি উচ্চপদস্থ একজন পুলিশ কর্মকর্তা তাঁদের এমন খোঁজ খবর রাখবেন। সুস্থ হয়ে বাড়ির পথ ধরে যখন রোগীরা হাসপাতাল হতে বিদায় নিচ্ছেন, তখন তিনি সুস্থ রোগীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করে বিদায় মূহুর্তকে আরও স্মরণীয় করে রেখেছেন।
দিন নেই, রাত নেই রোগীদের সেবায় সারাক্ষণই ছুটে চলছেন। সবার জন্য অকাতরে কাজ করে যাচ্ছেন । নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব শেষ না করে ঘরে ফেরেন না, ছুটে যান মানুষের কাছে। করোনা সংকটে কার কি সমস্যা, খুঁজে বের করেছেন,তারপর নিজের সাধ্যমত সহায়তা করেছেন। আর এজন্য ‘মানবিক’ পুলিশ হিসেবে ইতোমধ্যে সবার কাছে পেয়েছে গ্রহণযোগ্যতা।
পুলিশের পোশাকের বাইরে তিনি যেন সবার কাছে হয়ে উঠেছেন পরমপ্রিয় কেউ। নিজের অমায়িক ব্যবহারের মাধ্যমে সবাইকে আপন করে নেয়ার অসাধারণ দক্ষতা তাঁর রয়েছে।
করোনায় ঝুঁকি আছে জেনেও তিনি থেমে থাকেননি। পরিবারকে সময় দিতে পারেন না বললেই চলে। তিনি মনে করেন, বৈশ্বিক এ মহামারী একা কখনোই মোকাবেলা করা সম্ভব না। দেশের মানুষকে সচেতন আর সহযোগিতার মধ্য দিয়েই একদিন করোনামুক্ত হবে বাংলাদেশ। এজন্য নিজের কথা না ভেবে দেশের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত