সালামের উৎপত্তি ও পরিধি -এইচ. এম. মুশফিকুর রহমান

সালামের উৎপত্তি ও পরিধি -এইচ. এম. মুশফিকুর রহমান

সালাম আরবি শব্দ, এর অর্থ হচ্ছে শান্তি, প্রশান্তি, কল্যাণ, দু‘আ ও শুভকামনা। সালাম হচ্ছে আল্লাহর পক্ষ থেকে মুসলিমদের জন্য অভিনন্দন ও দু‘আ করার পদ্ধতি।
সালাম একটি সুন্নত আমল। একটি শান্তির বার্তা। প্রতিদিনের সম্বোধন। প্রতিক্ষণের সম্প্রীতি। মুমিন মানেই সালামের আমল করে। ইসলামের যতগুলো সুন্দর দিক আছে, যতগুলো সৌন্দর্য ইসলামকে সৌন্দর্যমণ্ডিত করেছে, তার অন্যতম একটি হল সালাম।
সালাম জান্নাত লাভের অতি উন্নত ও অন্যতম একটি আমল। সালাম শব্দের মধ্যে আল্লাহ প্রদত্ত শক্তি নিহিত রয়েছে। কেননা সালাম শব্দের ব্যবহার স্বয়ং আল্লাহ তা‘আলা নিজেই তাঁর চিরন্তন ও শ্বাশত বাণী কুরআনে পাকের মাঝে করেছেন। আল্লাহ পাকের ব্যবহৃত শব্দের ব্যবহার করলে তার রহমত নাজিল হয়। সালামদাতা ও গ্রহিতা উভয়ের মাঝে সৃষ্টি হয় মধুর সম্পর্ক। একটি শান্তিময় ও সুন্দর সমাজ গঠনের প্রথম পদক্ষেপ হচ্ছে কারো সঙ্গে দেখা হলেই তাকে মনে করে দেওয়া আমরা শান্তিপ্রিয়-শান্তিকামী। তাই নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিশ্বাসীদের পারস্পরিক দেখা-সাক্ষাৎ, লেনদেন, কথাবার্তার শুরুতে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বাক্যটি শিখিয়েছেন। আসসালামু আলাইকুম অর্থাৎ ‘আপনার ওপর শান্তি বর্ষিত হোক’। সালামের মাধ্যমে পরস্পরের জন্য শান্তি ও কল্যাণ কামনা করা হয়। কোনো মুসলমান ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে কথা বলার আগে সালাম দেওয়া নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ। আর এর উত্তর দেওয়া ওয়াজিব তথা অবশ্য করণীয়।

আল্লাহর নাম সালাম
আল্লাহ তা‘আলার নামগুলো অনেক সুন্দর। তাঁর গুণগুলো অনেক উন্নত। সব নিদর্শনই এর সাক্ষ্য দেয়। আল্লাহ তা‘আলার সব গুণাগুণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি নাম হচ্ছে ‘সালাম’। যার অর্থ নিরাপদ ও মুক্ত। অর্থাৎ তিনি সব দোষমুক্ত। তাঁর বড়ত্বের সঙ্গে যায় না এমন সব কিছুর ঊর্ধ্বে তিনি। তাঁর নাম, কাজ ও গুণাগুণ সব অপবাদ ও ত্রুটিমুক্ত। তাঁর জন্য যত গুণবাচক শব্দ প্রয়োগ করা হয় তন্মধ্যে এ নামটি অধিক উপযুক্ত।
আস-সালাম : আল্লাহ নিরাপত্তা বিধায়ক। আল্লাহ একমাত্র শান্তিদাতা, শান্তি তাঁর পক্ষ থেকেই আসে। আল্লাহর কাছে নিজেকে সমর্পণ করার মধ্যেই বান্দার শান্তি নিহিত। তাঁর তাওফীক ছাড়া কারো মুক্তি মিলতে পারে না। নিশ্চয় তিনি সকল দোষত্রুটি থেকে মুক্ত। তিনিই সৃষ্টজীবকে যাবতীয় বিপদ ও ক্ষতি থেকে রক্ষাকারী। কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে, ‘সালাম’ আল্লাহর সুন্দর নামসমূহের মধ্যে অন্যতম। [সূরা হাশর : ২৪]

সালামের সূচনাকাল
আল্লাহ তা‘আলা প্রথমে আদি মানব হযরত আদম আলাইহিস সালামকে সালাম শিক্ষা দেন। হযরত আবু হুরায়রা রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “আল্লাহ তা‘আলা হযরত আদম আলাইহিস সালামকে সৃষ্টি করে বলেন, যাও ফেরেশতাদের সালাম দাও এবং তারা তোমার সালামের কী উত্তর দেয়, মন দিয়ে শোনো। এটিই হবে তোমার এবং তোমার সন্তানদের সালাম। সে অনুযায়ী হযরত আদম আলাইহিস সালাম গিয়ে ফেরেশতাদের বলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম’, অর্থ আপনাদের ওপর শান্তি বর্ষিত হোক।’ ফেরেশতারা উত্তরে বলেন, ‘আসলামু আলাইকা ওয়া রহমাতুল্লাহ’, অর্থ ‘আপনার ওপর শান্তি এবং আল্লাহর রহমত বর্ষিত হোক।’’ [ সহীহুল বুখারী ৩৩২৬, ৬২২৭, মুসলিম ২৮৪১, আহমাদ ৮০৯২, ১০৫৩০, ২৭৩৮৮]
উল্লিখিত হাদীস থেকে নিশ্চিতভাবে বুঝা যায় যে, পারস্পরিক সম্ভাষণে সালামের প্রচলন নতুন কিছু নয়। এটি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে এই পৃথিবীর সকল মানুষের আদি পিতা আদম আলাইহিস সালামের মাধ্যমে জান্নাত থেকেই শুরু হয়েছে।

আল্লাহ তা‘আলা বিভিন্ন নবীকে সালাম পাঠিয়েছেন
আল্লাহ পাক উভয় জগতেই আপন বান্দাদের জন্য শান্তি নির্ধারণ করেছেন।
“ইবরাহীমের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক।” [সূরা আস-সাফফাত : ১০৯]
“মূসা এবং হারুনের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক।” [সূরা আস-সাফফাত : ১২০]
“প্রেরিত রাসূলদের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক।” [সূরা আস-সাফফাত : ১৮১]

মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি সালাম
কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে, “নিশ্চয় আল্লাহ ও তাঁর ফিরিশতাগণ নবীর প্রতি সালাত-দরূদ পেশ করেন। হে মুমিনগণ! তোমরাও তাঁর প্রতি সালাত পেশ করো এবং তাঁকে যথাযথভাবে সালাম জানাও।” [সূরা আহযাব : ৫৬]

মিরাজে আল্লাহ তা‘আলা ও রাসূল সা. এর মাঝে সালাম বিনিময়
হযরত খাদিজা রাদিআল্লাহু আনহা ইন্তেকাল করেছেন। দিনে দিনে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি কোরাইশদের অত্যাচারের মাত্রাও বেড়ে গেছে। এমন অবস্থায় আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন রজব মাসের এক মহিমাম্বিত রজনীতে তার প্রিয় বন্ধুকে হযরত জিবরাঈল আলাইহিস সালামের মাধ্যমে তার সান্ধিধ্যে ডেকে নিলেন, যা ইতিহাসে মে’রাজ নামে পরিচিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বায়তুল্লাহ হয়ে বায়তুল মোকাদ্দাস, অতঃপর উর্দ্ধজগতের সফর শুরু করলেন। বোরাক নামক বেহেশতি বাহনে চড়ে প্রথম আসমান, দ্বিতীয় আসমান, তৃতীয় আসমান করে অতঃপর সিদরাতুল মুনতাহায় পৌঁছলেন। এ পর্যন্ত হযরত জিবরাঈল আলাইহিস সালাম রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাথী ছিলেন। সিদরাতুল মুনতাহাতে গিয়ে হযরত জিব্রাইল (আঃ) রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এর কাছ থেকে বিদায় নিলেন। আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন তার বন্ধুর জন্য বোরাকের থেকেও গতি সম্পন্ন বাহন ‘রফরফ’ পাঠিয়ে দিলেন। এ বাহনে চড়ে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর নূরের সত্তর হাজার পর্দা অতিক্রম করে মহান রবের দরবারে গিয়ে পৌঁছলেন। আল্লাহর হাবীব জনাবে মোহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন আল্লাহর খুবই নিকটবর্তী হলেন, এমনকি তাদের মাঝে একটি রশি বা একটি ধনুকের সমান জায়গার ব্যাবধান ছিলো তখন-শ্রেষ্ঠ তোহফা হিসেবে পড়লেন. “আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি ওয়াসসালাওয়াতু ওয়াত্তয়্যিবাত” “সকল মর্যাদাব্যঞ্জক ও সম্মানজনক সম্বোধন আল্লাহর জন্য। সমস্ত শান্তি, কল্যাণ ও প্রাচুর্যের মালিক একমাত্র আল্লাহ। সব প্রকার পবিত্রতার মালিকও তিনি।” এক কথায় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আর্থিক, শারিরীক ও মৌখিক সব ধরনের ইবাদাত একমাত্র আল্লাহর জন্য তোহফা হিসেবে পেশ করলেন। অতঃপর আল্লাহ তা‘আলা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে তিনটি জিনিষ দিলেন এভাবে- “আসসালামু আ’লাইকা আইয়্যুহান নাবিয়্যু ওয়ারাহমাতুল্লহি ওয়াবারাকাতুহু” হে নবী! আপনার প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক, আল্লাহর অনুগ্রহ ও বরকত বর্ষিত হোক। উম্মতের কাণ্ডারী নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এমন মিলন মুহূর্তেও তার উম্মতকে ভুলেন নাই। আল্লাহর অনুগ্রহ তার উম্মতের জন্যও চেয়ে নিলেন এভাবে- “আসসালামু আ’লাইনা ওআ’লা- ই’বাদিল্লাহিস সলিহীন” আমাদের প্রতি এবং আল্লাহর সকল নেক বান্দাহদের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক। আল্লাহ এবং তার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এমন মধুর আলোচনা শুনে আরশবাহী- সকল ফেরেশাতাগণ সমস্বরে একত্রে বলে উঠলেন- “আশহাদু আন লা- ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াশহাদু আন্না মোহাম্মাদান আ’বদুহু ওয়ারাসুলুহু” আমি সাক্ষ্য দিতেছি যে, আল্লাহ ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই। আমি আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি মোহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর বান্দাহ এবং রাসূল। আল্লাহ পাক রাব্বুল আ’লামিন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং ফেরেশতাদের এমন সম্মিলিত কথোপকথনই হয়ে গেলো তাশাহহুদ।

নামাজে তাশাহহুদ পাঠ
মে’রাজের রজনীতে আল্লাহর পক্ষ থেকে তোহফা হিসেবে পাওয়া পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজসহ প্রত্যেক নামাজের দুই রাকাত বা চার রাকা’তের বৈঠকে তাশাহহুদ পড়া ওয়াজিব।
ওমর রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, “তাশাহ্হুদ ছাড়া কোন নামাজই যথেষ্ট হয় না।” [মোসান্নাফ আবদুর রাযযাক, ২য় খণ্ড, ২০৬ পৃ., সুনামে সায়ীদ ইবনে মনসুর, তারীখে বুখারী, আল আসয়েলাহ, ১ম খণ্ড, ১৬৬ পৃ.]
আবদুল্লাহ ইবন মাস’উদ রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, ‘‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার হাত তাঁর উভয় হাতের মধ্যে নিয়ে আমাকে তাশাহুদ শিক্ষা দিয়েছেন, যেভাবে তিনি আমাকে কুরআনের সূরা শিক্ষা দিতেন।’’ [মুসলিম : ৪০২, আহমাদ ৭০৯, ৭১০, ৭১২]
ইবন আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, “রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদেরকে যেভাবে কুরআনের সুরা শিক্ষা দিতেন, ঠিক সেইভাবে আমাদেরকে তাশাহুদ শিক্ষা দিতেন।’’ [মুসলিম : ৪০৩]
উল্লেখ, তাশাহহুদে সালাম বিদ্যমান আছে।

নামাজে সালাম
হযরত সা’দ রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে ডান দিকে এবং বাম দিকে সালাম ফিরানো দেখতে ছিলাম, এমনকি আমি রাসূলুল্লাহর গাল মুবারকের সাদা দেখেছি। অর্থাৎ তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এমনভাবে সালাম ফিরাতেন যে, পিছন থেকে তাঁর গাল মুবারকের সাদা রং দেখা যেতো)। [মুসলিম শরিফ ১খণ্ড,পৃষ্ঠা : ২১৬]
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিআল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ডানে বামে” আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ” বলে সালাম ফিরাতেন। [তিরমিজি শরিফ,পৃষ্ঠা ৬৯]
যদি কোনো ব্যক্তি “সালাম”শব্দ বলা ছাড়া নামাজ হতে উঠে চলে যায়। তাহলে নামাজ দ্বিতীয়বার পড়া ওয়াজিব। তা না হলে গুনাহগার হবে। কেননা, “আসসালামু আলাইকুম” বলে নামাজ হতে বের হওয়া ওয়াজিব। আর ওয়াজিব ছেড়ে দিলে পুনরায় নামাজ পড়া ওয়াজিব।

জানাযা নামাজে সালাম
জানাযা একটি বিশেষ প্রার্থনা বা দু‘আ যা কোনো মৃত মুসলমানকে কবর দেওয়ার পূর্বে অনুষ্ঠিত হয়। সচরাচর এটি জানাযার নামাজ নামে অভিহিত হয়। মুসলমান অর্থাৎ ইসলাম ধর্মামলম্বীদের জন্য এটি ফরযে কেফায়া।
জানাযার নামাজ একজন ইমামের নেতৃত্বে জামাতের সাথে বা দলবদ্ধভাবে অনুষ্ঠিত হয়। অংশগ্রহণকারীরা বেজোড় সংখ্যক কাতারে বা সারিতে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে এ নামাজ আদায় করেন। এটি ৪ তকবিরের নামাজ। দাঁড়িয়ে এ নামাজ আদায় করতে হয় এবং সালাম ফেরানোর মধ্য দিয়ে এ নামাজ শেষ হয়।

কবর যিয়ারতে সালাম
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কবরের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় এই দু‘আ পড়তেন- “আসসালামু আলাইকুম ইয়া আহলাল কুবুরি; ইয়াগফিরুল্লাহু লানা ওয়ালাকুম, আনতুম সালাফুনা ওয়া নাহনু বিল আসার” অর্থ : হে কবরবাসী! তোমাদের ওপর শান্তি বর্ষিত হোক। আল্লাহ আমাদের ও তোমাদের ক্ষমা করুন, তোমরা আমাদের আগে কবরে গিয়েছ এবং আমরা পরে আসছি।”
আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সালাম মদিনার কবরবাসীর পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় এই দু‘আ পাঠ করেন। [সুনানে তিরমিজি : ১০৫৩]

সালাম ভালোবাসা ও সম্প্রীতির মাধ্যম
হযরত আবু হুরায়রা রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “তোমরা ঈমান না আনা পর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না। আর তোমাদের ঈমান ততক্ষণ পূর্ণ হবে না, যতক্ষণ না তোমরা একে অন্যকে ভালোবাস। আমি কি তোমাদেরকে এমন একটি আমলের কথা বলব, যখন তোমরা তা করবে, তখন একে অন্যকে ভালোবাসবে। তোমরা তোমাদের মাঝে সালামের প্রচলন ঘটাও।’’ [সহীহ মুসলিম : ৫৪]

সালামের মাধ্যমে আমলনামা সমৃদ্ধ হয়
হযরত ইমরান ইবনে হুসাইন রাদিআল্লাহু আনহুর বর্ণনা, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মজলিসে এসে এক ব্যক্তি ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে সালাম দিল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সালামের উত্তর দিলেন। লোকটি তখন মজলিসে বসে পড়ল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, দশ (অর্থাৎ তুমি দশ নেকি পেলে)। এরপর আরেকজন এসে ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়ারহমাতুল্লাহ’ বলে সালাম দিল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সালামের উত্তর দিলেন। লোকটি তখন মজলিসে বসে পড়ল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, বিশ (অর্থাৎ তুমি বিশ নেকি পেলে)। এরপর তৃতীয় আরেকজন এসে ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়ারহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহু’ বলে সালাম দিল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সালামের উত্তর দিলেন। লোকটি তখন মজলিসে বসে পড়ল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ত্রিশ (অর্থাৎ তুমি ত্রিশ নেকি পেলে)।” [সুনানে আবু দাউদ : ৫১৯৫]

সালামের প্রচার প্রসারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম
সালামের প্রচলন কীভাবে ঘটানো যায় তার একটি রূপরেখাও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, “তোমাদের কেউ যখন তার ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তখন যেন সে সালাম দেয়। এরপর কোনো গাছ কিংবা কোনো পাথর বা দেয়ালের আড়াল থেকে এসে যখন আবার তার সঙ্গে দেখা হয় তখনো যেন তাকে সালাম দেয়।” [সুনানে আবু দাউদ : ৫২০০]

সালাম প্রচারে সাহাবীদের খিদমাত
প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর রাদিআল্লাহু আনহু ছিলেন মদীনা মুনাওয়ারার বিদ্বান সাহাবীদের অন্যতম। তাকে কেন্দ্র করে সেখানে গড়ে ওঠে হাদীস চর্চার পাঠশালা। অথচ তিনি হাদীসের মজলিস রেখে মাঝে মাঝেই বাজারে ঘুরে বেড়াতেন। উদ্দেশ্য- অধিক সংখ্যক মানুষকে সালাম দেওয়া। তাঁর শিষ্য হযরত তুফায়েল ইবনে উবাই ইবনে কাবের বক্তব্য শুনুনÑ ‘আমি একদিন আবদুল্লাহ ইবনে উমর রাদিআল্লাহু আনহুর নিকট এলাম। তিনি তখন আমাকে নিয়ে বাজারের দিকে রওনা করলেন। আমি তাকে বললাম, বাজারে গিয়ে আপনি কী করবেন? আপনি তো কোনোকিছু কেনাবেচা করেন না, কোনো পণ্য সম্পর্কে কিছু জানতেও চান না, কোনোকিছু নিয়ে দামাদামিও করেন না, কারও সঙ্গে কোনো বৈঠকেও শরিক হন না, তবুও কেন আপনি বাজারে যাবেন? আপনি এখানে বসুন, আমরা হাদীস শুনব। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর রাদিআল্লাহু আনহু তখন বললেন, আরে শোনো, আমরা তো কেবল সালাম দেওয়ার জন্যেই বাজারে যাই। যার সঙ্গে দেখা হয় তাকেই আমরা সালাম দিয়ে থাকি।’’ [মুয়াত্তা মালেক, হাদীস : ১৭২৬]

সালাম জান্নাত লাভের মাধ্যম
আবূ ইউসুফ আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, ‘‘হে লোক সকল! তোমরা সালাম প্রচার কর, (ক্ষুধার্তকে) অন্নদান কর, আত্মীয়তার বন্ধন অটুট রাখ এবং লোকে যখন (রাতে) ঘুমিয়ে থাকে, তখন তোমরা নামাজ পড়। তাহলে তোমরা নিরাপদে ও নির্বিঘ্নে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’’ [তিরমিযী ২৪৮৫, ইবনু মাজাহ ১৩৩৪, ৩২৫১, দারেমী ১৪৬০]

যে প্রথমে সালাম করে, সে আল্লাহর সর্বাধিক নিকটবর্তী মানুষ
আবূ উমামাহ রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘‘আল্লাহর সর্বাধিক নিকটবর্তী মানুষ সেই, যে প্রথমে সালাম করে।’’ [আবূ দাউদ ৫১৯৭, তিরমিযী ২৬৯৪, আহমাদ ২১৬৮৮, ২১৭৭৬, ২১৮১৪]

সালাম প্রদান উত্তম আমল
প্রিয় নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সালাম দেওয়াকে একজন মুসলমানের অন্যতম সেরা আমল হিসেবে উল্লেখ করেছেন। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর রাদিআল্লাহু আনহু এর বর্ণনা, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এক সাহাবী প্রশ্ন করলেন- ইসলামের শ্রেষ্ঠ আমল কোনটি? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন,
তুমি মানুষকে খাবার খাওয়াবে আর তোমার পরিচিত-অপরিচিত সকলকেই সালাম দেবে।” [সহীহ বুখারী, হাদীস : ১২]
সালামের দেওয়া সুন্নাত ও উত্তর দেওয়া ওয়াজিব
কারো সাথে দেখা হলে সালাম দেওয়া সুন্নাত। কেউ যখন কাউকে সালাম দেয়, তখন এর উত্তর দেওয়াা ওয়াজিব। এ আদেশ সরাসরি আল্লাহ দিয়েছেন, “যখন তোমাদের সালাম দেওয়া হয় তখন তোমরা এর চেয়ে উত্তম পন্থায় সালামের উত্তর দাও কিংবা (অন্তত) ততটুকুই বলে দাও।” [সূরা নিসা : ৮৬]

সালামের প্রদানের পদ্ধতি
স্পষ্ট ভাষায় ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে সালাম দিতে হবে। উত্তরে একটু বাড়িয়ে ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়ারাহমাতুল্লাহি বলে জবাব দেওয়া উত্তম। আরও সুন্দর হয়-যদি সালাম দেওয়ার ক্ষেত্রে ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ’ বলা হয় এবং সালামের জবাব দেওয়ার ক্ষেত্রে ‘ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু’ বলা হয়।

সালামের আদব
আবূ হুরায়রা রাদিআল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘‘আরোহী পায়ে হাঁটা ব্যক্তিকে, পায়ে হাঁটা ব্যক্তি বসে থাকা ব্যক্তিকে এবং অল্প সংখ্যক লোক অধিক সংখ্যক লোককে সালাম দেবে।’’ [সহীহুল বুখারী : ৬২৩১, ৬২৩২, ৬২৩৪, ৩১, ৩২, ৩৪, মুসলিম ২১৬০, তিরমিযী ২৭০৩]

নিজ গৃহে প্রবেশ করার সময় সালাম দেওয়া উত্তম
আল্লাহ তা‘আলা বলেন, “যখন তোমরা গৃহে প্রবেশ করবে তোমরা তোমাদের স্বজনদের প্রতি সালাম বলবে।” [সূরা নূর : ৬১]
আনাস রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, একদা আমাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘‘হে বৎস! তোমার বাড়িতে যখন তুমি প্রবেশ করবে, তখন সালাম দাও, তাহলে তোমার ও তোমার পরিবারের জন্য তা বরকতময় হবে।’’ [ তিরমিযী : ২৬৯৮]

অন্যের ঘরে সালাম না দিয়ে প্রবেশ নিষেধ
আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ইরশাদ করেন, “হে মুমিনগণ! নিজ ঘর ছাড়া অন্যের ঘরে প্রবেশ করো না, যতক্ষণ না অনুমতি নাও এবং তার অধিবাসীদের সালাম দাও। এ পন্থাই তোমাদের জন্য উত্তম। হয়তো তোমরা উপদেশ গ্রহণ করবে।” [সূরা নূর : ২৭]

কালাদা ইবনে হাম্বল রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, সাফওয়ান ইবনে উমায়্যাহ রাদিআল্লাহু আনহু তাকে দুধ, হরিণের বাচ্চা ও দুগবূস (একপ্রকার শস্য) দিয়ে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে পাঠালেন। বর্ণনাকারী বলেন, আমি তাঁর কাছে গেলাম কিন্তু সালাম দেইনি এবং অনুমতিও নেইনি। তিনি আমাকে বললেন, তুমি বেরিয়ে সালাম দাও; তারপর বল, আমি কি প্রবেশ করব?” [জামে তিরমিযী : ২৭১০; সুনানে আবু দাউদ : ৫১৭৬]

শিশুদের সালাম করা
আনাস রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত, তিনি কতিপয় শিশুর নিকট দিয়ে অতিক্রম করার সময় তাদেরকে সালাম দিলেন এবং বললেন, ‘‘রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরূপ করতেন।’’ [সহীহুল বুখারী ৬২৪৭, মুসলিম ২১৬৮, তিরমিযী ২৬৯৬, আবূ দাউদ ৫২০২, ইবনু মাজাহ ৩৭০০, আহমাদ ১১৯২৮, ১২৩১৩, ১২৪৮৫, ১২৬১০, দারেমী ২৬৩৬]

নারী-পুরুষের পারস্পরিক সালাম
নিজ স্ত্রীকে স্বামীর সালাম দেওয়া, অনুরূপভাবে কোন পুরুষের তার ‘মাহরাম’ (যার সাথে বৈবাহিক-সম্পর্ক চিরতরে নিষিদ্ধ এমন) মহিলাকে সালাম দেওয়া, অনুরূপ ফিতনা-ফাসাদের আশঙ্কা না থাকলে ‘গায়র মাহরাম’ (যার সাথে বৈবাহিক-সম্পর্ক কোন সময় বৈধ এমন) মহিলাদেরকে সালাম দেওয়া বৈধ। যেমন উক্ত মহিলাদেরও উক্ত পুরুষদেরকে ঐ শর্ত-সাপেক্ষে সালাম দেওয়া বৈধ।
সাহল ইবনে সা‘দ রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমাদের মধ্যে এক মহিলা ছিল। অন্য বর্ণনায় আছে আমাদের একটি বুড়ি ছিল। সে বীট (কেটে) হাঁড়িতে রেখে তাতে কিছু যব দানা পিষে মিশ্রণ করত। অতঃপর আমরা যখন জুমআর নামাজ পড়ে ফিরে আসতাম, তখন তাকে সালাম দিতাম। আর সে আমাদের জন্য তা পেশ করত।’’ [সহীহুল বুখারী ৯৩৮, ৯৩৯, ৯৪১, ৫৪০৩, ২৩৪৯, ৬২৪৮, ৬২৭৯, মুসলিম ৮৫৯, তিরমিযী ৫২৫, ইবনু মাজাহ ১০৯৯]

অমুসলিমদের সালাম ও তার জবাব
অমুসলিমকে আগে সালাম দেওয়া হারাম এবং তাদের সালামের জবাব দেওয়া সম্পর্কে আনাস রাদিআল্লাহু ‘আনহু হতে বর্ণিত হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘‘কিতাবধারীরা (ইয়াহুদী-খ্রিস্টানরা) যখন তোমাদেরকে সালাম দেয়, তখন তোমরা জবাবে বল, ‘ওয়া আলাইকুম।’’ [সহীহুল বুখারী ৬২৫৮, ৬৯২৬, মুসলিম ২১৬৩]

কথা বলার পূর্বেই সালাম দেওয়া
কথা বলার আগেই সালাম দেওয়া মুস্তাহাব। প্রথমে সালাম না দিলে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কথা বলার অনুমতি দিতে নিষেধ করেছেন। তিনি বলেন, ‘‘যে ব্যক্তি আগে সালাম দেয় না তোমরা তাকে (কথা বলার) অনুমতি দিও না।’’ [ছহীহুল জামে : ৭১৯০]

সশব্দে সালাম ও উত্তর দেওয়া
এমন শব্দে সালাম ও সালামের উত্তর দিতে হবে যাতে অন্যরা শুনতে পায়। তবে কোথাও ঘুমন্ত মানুষ থাকলে এমনভাবে সালাম দিবে যাতে জাগ্রত লোকেরা শুনতে পায় এবং ঘুমন্ত লোকের কোন অসুবিধা না হয়। মিক্বদাদ রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, এরপর থেকে আমরা দুধ দোহন করতাম। আমাদের সবাই যার যার অংশ পান করতো। আর আমরা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জন্য তাঁর অংশ উঠিয়ে রাখতাম। মিক্বদাদ রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, তিনি রাত্রে এসে এমনভাবে সালাম দিতেন যাতে নিদ্রারত লোক উঠে না যায় এবং জাগ্রত লোক শুনতে পায়।’’ [মুসলিম : ২০৫৫; আহমাদ : ২৩৮৬৩]

সালাম বহনকারী ও প্রেরণকারীর উত্তর দেওয়া
কেউ কারো মাধ্যমে সালাম প্রেরণ করলে যে সালাম বহন করে নিয়ে আসবে, তাকে ও সালাম প্রদানকারীকে উত্তর দেওয়া উচিত। হাদীসে এসেছে, গালিব (রহ.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা হাসান রাদিআল্লাহু আনহুর বাড়ির দরজায় বসা ছিলাম। এ সময় এক জন লোক এসে বলল, আমার পিতা আমার দাদার সূত্রে আমার নিকট বর্ণনা করেছেন যে, আমাকে আমার পিতা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট পাঠালেন। তিনি বললেন, তাঁর নিকট গিয়ে তাঁকে সালাম জানাবে। তিনি বলেন, আমি তাঁর নিকট পৌঁছে বললাম, আমার পিতা আপনাকে সালাম দিয়েছেন। তিনি বললেন, ‘আলায়কা ওয়া আলা আবীকাস সালাম (তোমার ও তোমার পিতার উপর শান্তি বর্ষিত হোক)।’’ [আবূদাঊদ : ৫২৩১; মিশকাত : ৪৬৫৫]

ইশারায় সালাম ও উত্তর না দেওয়া
ইশারায় সালাম দেওয়া যাবে না। তবে কেউ বোবা হলে কিংবা দূরে অবস্থানকারী হলে মুখে উচ্চারণসহ ইশারায় সালাম বা উত্তর দিতে পারে। অনুরূপভাবে বধিরকে সালাম দেওয়ার ক্ষেত্রেও মুখে উচ্চারণসহ ইশারায় সালাম বা উত্তর দেওয়া যাবে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “তোমরা ইহুদী-নাসারাদের সালামের ন্যায় সালাম দিও না। কেননা তাদের সালাম হচ্ছে হাত দ্বারা ইশারার মাধ্যমে।’’ [সহীহুল জামে : ৭৩২৭]

সালামের সময় মাথা না ঝুঁকানো
সালাম প্রদানের সময় কারো সামনে মাথা অবনত করা বা ঝুঁকানো যাবে না। আনাস বিন মালিক রাদিআল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘কোন এক সময় জনৈক ব্যক্তি প্রশ্ন করল, হে আল্লাহর রাসূল! আমাদের কোন ব্যক্তি তার ভাই কিংবা বন্ধুর সাথে দেখা করলে সে কি তার সামনে ঝুঁকে (নত) যাবে? তিনি বললেন, না। সে আবার প্রশ্ন করল, তাহলে কি সে জড়িয়ে ধরে তাকে চুমু খাবে? তিনি বললেন, না। সে এবার বলল, তাহলে সে তার হাত ধরে মুছাফাহা (করমর্দন) করবে? তিনি বললেন, হ্যাঁ।” [তিরমিযী : ২৭২৮; ইবনু মাজাহ : ৩৭০২]

যে সকল অবস্থায় সালাম দেওয়া মাকরুহ
“যে ব্যক্তি সালামের উত্তর দিতে অক্ষম তাকে সালাম দেওয়া মাকরুহ। যথা : নামাজ, আজান-ইকামত, জিকির, তিলাওয়াত, ধর্মীয় জ্ঞানচর্চা, খানাপিনা ও ইস্তিঞ্জারত ব্যক্তিকে সালাম দেওয়া, গুনাহের কাজে লিপ্ত ব্যক্তিকে সালাম দেওয়া, স্ত্রী সহবাস ইত্যাদি অবস্থায় সালাম দেওয়া মাকরুহ।” [রদ্দুল মুহতার ১/৪১৪]

জান্নাতবাসীদের অভিবাদন হবে ‘সালাম’
জান্নাতেও সালামের প্রচলন থাকবে। সালামের মাধ্যমে জান্নাতবাসীদের অভ্যর্থনা জানানো হবে। কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে, “সেখানে (সুখময় জান্নাতে) তাদের প্রার্থনা হবে, ‘হে আল্লাহ! তুমি মহান, পবিত্র!’ এবং সেখানে তাদের অভিবাদন হবে ‘সালাম’। আর তাদের প্রার্থনার সমাপ্তি হবে এভাবে : ‘সমস্ত প্রশংসা বিশ্বজগতের প্রতিপালক আল্লাহর জন্য।’’ [সূরা ইউনুস: ১০]
এর দ্বারা বোঝা যাচ্ছে যে, জান্নাতবাসীদের পরস্পর সাদর সম্ভাষণ হবে সালাম। [আদওয়াউল বায়ান]
জান্নাতেও সালামের প্রচলন থাকবে। সালামের মাধ্যমে জান্নাতবাসীদের অভ্যর্থনা জানানো হবে। কারও মতে, এ সালাম আল্লাহর পক্ষ থেকে হবে। যেমন ইরশাদ হয়েছে : ‘‘সালাম, পরম দয়ালু প্রতিপালকের পক্ষ থেকে সম্ভাষণ।’’ [সূরা ইয়াসিন: ৫৮] আবার কারও কারও মতে সালাম ফেরেশতাদের পক্ষ থেকেও হতে পারে। আল্লাহ বলেন, ‘জান্নাতের রক্ষীরা (ফেরেশতারা) তাদের বলবে, তোমাদের প্রতি সালাম, তোমরা সুখী হও এবং জান্নাতে প্রবেশ করো স্থায়ীভাবে অবস্থানের জন্য।’’ [সূরা জুমার: ৭৩]

আল্লাহ তা‘আলা জান্নাতীদের সালাম জানাবেন
জান্নাতে স্বয়ং রাব্বুল আলামিন জান্নাতিদের সালাম দেবেন। কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে, ‘সালাম, পরম দয়ালু প্রতিপালকের পক্ষ থেকে সম্ভাষণ।’ [সূরা ইয়াসিন : ৫৮]
জাবের রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত হয়েছে, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, জান্নাতবাসীগণ যখন নেয়ামতের মধ্যে থাকবে, তখন তাদের জন্য একটি নূর প্রকাশিত হবে। তারা দৃষ্টি উঠাবে। দৃষ্টি উঠিয়ে তারা দেখবে যে, তাদের মহান রব উপর থেকে তাদের দিকে দৃষ্টি দিচ্ছেন। তখন তাদের রব বলবেন, “আস সালামু আলাইকুম ইয়া আহলাল জান্নাহ।”
আল্লাহ সুবহানুওয়াতা‘আলার সালামের জবাবে তখন জান্নাতীরা বলবেন, “আল্লাহুম্মা আনতাস সালাম, ওয়া মিনকাস সালাম, তাবারকতা ইয়াজাল জালালি ওয়াল ইকরাম।”
অর্থ : “হে আল্লাহ! আপনি শান্তিময় এবং আপনা হতেই শান্তি উৎসারিত হয়। আপনি বরকতময় হে মহান ও সম্মানের অধিকারী।”
এরপর তারা যতক্ষণ আল্লাহ তা‘আলার দিকে তাকিয়ে থাকবে, ততক্ষণ জান্নাতের আর কোনো নেয়ামতের দিকে তাকিয়েই দেখবে না। এমনকি আল্লাহ তা‘আলার নূর তাদের থেকে আড়াল হওয়ার পরও তার বরকত ও নূর অবশিষ্ট থাকবে।’’ [ইবনে মাজাহ : ১৮৩]

সালামের অপব্যবহার ও বিকৃত উচ্চারণ
আল্লাহ তা‘আলা যে সালাম আদম আলাইহিস সালামকে শিখিয়েছিলেন এবং আদম আলাইহিস সালাম থেকে যে সালাম এখন পর্যন্ত চলছে এবং ক্বিয়ামতের পর জান্নাত পর্যন্ত চলবে; আর আমাদেরকে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে সালাম প্রতিষ্ঠা করে একে দু’আ, সম্ভাষণ, সংস্কৃতি হিসেবে চালু করে দিয়েছেন, সে সালামের অপব্যবহার ও বিকৃত উচ্চারণ আজকের মুসলিম সমাজে লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
আজ অনেকে বিভিন্ন স্টাইলে সালাম প্রদান করে থাকে। যেমন : ১. সেলামালিকুম, ২. শ্লামালিকুম, ৩. আস্সালামালিকুম, ৪. আস্লামালিকুম, ৫. সালামালিকুম। সালামের এই বিকৃত রূপ এখন প্রকৃত হতে যাচ্ছে। আগামীতে এই ‘সালাম’ আরো কত বিকৃত হবে তা আল্লাহ মা’লূম। এজন্য আমরাই দায়ী। বিকৃত আর অপব্যবহার যে আমরাই করছি তাতে কোন সন্দেহ নেই। আমাদের উচিত সালামের অপব্যবহার ও বিকৃত উচ্চারণ থেকে বেঁচে থাকা।

সবশেষে সকলের নিকট নিবেদন আসুন! নিজেকে অহঙ্কার মুক্ত করতে, আল্লাহ তা‘আলার নিকটবর্তী হতে, জনপ্রিয়, জননন্দিত ও অধিক পরিচিত হতে, ইসলামের উত্তম কাজটি করতে, নিজেকে একজন আদর্শবান, সুন্দর ও অনুপম মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সালাম দেওয়াকে নিজের অভ্যাসে পরিণত করি। ছোট-বড়, ধনী-দরিদ্র, বিজ্ঞ-মূর্খ, কুলি-মজুর, সমাজের সকল শ্রেণির মানুষের মাঝে সালামের ব্যাপক প্রচার-প্রসার করে সমাজকে একটি আদর্শ, সুন্দর, নিরাপদ ও শান্তিময় আবাসভূমিতে পরিণত করি। আল্লাহ তা‘আলা আমাদেরকে বেশি বেশি সালামের আমল করার তাওফিক দান করুন। আমীন।
লেখক : প্রাবন্ধিক, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত