শিরোনাম :
গাজীপুরে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে সৎবাবা গ্রেফতার ৫ম ধাপের মনোনয়ন ফরম কাল থেকে বিক্রি করবে আ.লীগ ; জমাদানের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর ফরিদপুরে মোটর সাইকেল চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক ঝিনাইদহে কৃষককে গলা কেটে হত্যা মানুষের সেবায় রক্তের প্রয়োজনে নবপুষ্প ব্লাড ফাউন্ডেশন লালমনিরহাটের দৈখাওয়ায় মিথ্যা অভিযোগ ও সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে মানববন্ধন সিরাজগঞ্জে শাহজাদপুরে নব নির্বাচিত এমপি প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতাকে ফুলেল শুভেচছা ঠাকুরগাঁওয়ে তাড়া খেয়ে মরলো নীলগাই লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবীদের ভালোবাসায় সিক্ত হারুন-নাহার দম্পত্তি ফরিদপুরে হুমায়ূন স্মরণ উৎসব ও ক্যামেরার কবি আলোকচিত্রী নাসির আলী মামুনের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত
তিস্তা ব্যারেজ হাতীবান্ধার জন্য অভিশাপ স্বরুপ

তিস্তা ব্যারেজ হাতীবান্ধার জন্য অভিশাপ স্বরুপ

মোঃ শফি গনি সপন, হাতীবান্ধা, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: 

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় অবস্থিত দেশের সবচেয়ে বড় সেচ প্রকল্প ডালিয়া তিস্তা ব্যারেজকে আশীর্বাদ নয়, অভিশাপ হিসেবেই দেখছেন এলাকার মানুষ। তাদের মতে, এ প্রকল্পের কারণে এ এলাকার কৃষকরা লাভের চেয়ে ক্ষতির শিকার হয়েছেন বেশি।

প্রতি বছর বর্ষার সময় নদীগর্ভে চলে যাচ্ছে একরের পর একর আবাদি জমি। এতে কমে যাচ্ছে আবাদি জমির পরিমাণ। ইতোমধ্যে অনেক কৃষক তাদের সব সহায় সম্পত্তি হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন এ তিস্তার কারণে। অনেকেই কৃষক থেকে এখন জেলেতে পরিণত হয়েছেন। সারাদিন মাছ ধরার পর তা বিক্রি করে চলছে অনেকের সংসার।

তিস্তা ব্যারেজ নিয়ে এভাবেই ক্ষোভের কথাগুলো বলেন উপজেলার গুড্ডিমারী ইউনিয়নের কৃষক রহিম মুন্সি।
তিনি জানান, লালমনিরহাটের পাঁচটি উপজেলায় মোট ইউনিয়নের সংখ্যা ৪৫টি। এর মধ্যে ১৬টি ইউনিয়নের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে তিস্তা। বাকি ২৯টি ইউনিয়নে যেসব আবাদি জমি রয়েছে ওইসব জমিতে তিস্তার পানি পাওয়া যায় না।

বিশেষ করে হাতীবান্ধা  উপজেলার মোট ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে সানিয়াজান, গড্ডিমারী, শিংগিমারী, সিন্দুর্না, পাটিকা পাড়া ও ডাউয়াবাড়ি ইউনিয়নের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে তিস্তা নদী। বাকি ছয়টি ইউনিয়নের যেসব আবাদি জমি রয়েছে সেগুলোতে ভালো কোনো আবাদ হয় না এবং বন্যার সময় এসব আবাদি জমি প্লাবিত হয়ে থাকে। দিন দিন ছোট হয়ে যাচ্ছে হাতীবান্ধা উপজেলা। বর্ষা মৌসুম এলেই এ উপজেলার আয়তন ছোট হয়। অব্যাহত নদী ভাঙনে এ উপজেলার অনেক জমি এখন তিস্তার পেটে। এ উপজেলার অসংখ্য মানুষ বর্তমানে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অথচ এক সময় ওইসব মানুষের অনেক কিছুই ছিল।

তিস্তা ব্যারেজ, লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় হওয়া সত্ত্বেও এ জেলার কৃষকের কোনো কাজে আসছে না ব্যারেজটি। অথচ হাতীবান্ধা উপজেলার জমানো পানি থেকে সেচ সুবিধা পাচ্ছে উত্তরাঞ্চলের অন্য জেলাগুলো। প্রতি বছর যে হারে নদীভাঙন হয়, তাতে একদিন শেষ হয়ে যাবে হাতীবান্ধা। তিস্তা ব্যারেজের ভাটিতে ডান ও বাম তিরে অতিসত্য বাধ দেওয়া প্রয়োজন অথচ এদিকে সরকারের কোনো দৃষ্টি নেই। ভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন হাতীবান্ধা উপজেলার জনগণ ।


তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্প কি ?
এক সময় সেচের অভাবে উত্তরবঙ্গের বহু আবাদি জমি পরিত্যক্ত ছিল। এসব জমি সেচের মাধ্যমে চাষের উপযোগী করার লক্ষে বাংলাদেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্পের তিস্তা ব্যারেজ লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলাধীন গড্ডিমারী ইউনিয়নের দোয়ানী এবং পার্শ্ববর্তী নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলাধীন খালিসা চাপানী ইউনিয়নের ডালিয়া- এর মধ্যবর্তী স্থানে তিস্তা নদীর উপর নির্মিত।

উত্তর জনপদের বৃহত্তর রংপুরদিনাজপুর ও বগুড়া জেলার অনাবাদী জমিতে সেচ সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে বাড়তি ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে ১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দে তৎকালীন সরকার তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের পরিকল্পনা গ্রহণ করে। মূল পরিকল্পনা গৃহীত হয় ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দে। ১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে প্রকল্পের কাজ শুরুর উদ্যোগ নেয়া হলেও বিভিন্ন জটিলতার কারণে তা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে লালমনিরহাট ও নীলফামারী মহকুমার সীমান্তে তিস্তা নদীর উপর ৪৪টি রেডিয়াল গেট সম্বলিত ৬১৫ মিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট ব্যারেজটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এর নির্মাণ কাজ শেষ হয় ১৯৯০ খ্রিস্টাব্দে। একই খ্রিস্টাব্দের ৫ আগস্ট তৎকালীন রাষ্ট্রপতি এইচ.এমএরশাদ আনুষ্ঠানিক ভাবে ব্যারেজটি উদ্বোধন করেন। বাইপাস ক্যানেলের উপর নির্মিত গেট সহ এ ব্যারেজের মোট গেট সংখ্যা ৫২টি।

তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের উপকার !

পক্ষ্যন্তরে তিস্তা ব্যারেজ লালমনিরহাটের কৃষকের কোনো কাজে না এলেও পরোক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছেন এ জেলার বসবাসকারী অন্য পেশার জনগণ। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ এই এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে তিস্তা ব্যারেজের গুরুত্ব অপরিসীম। আশির দশকে লালমনিরহাটের অবস্থা করুণ ছিল। তিস্তা ব্যারেজ নির্মাণের পর এ জেলার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তিস্তা ব্যারেজের কারণে বুড়িমারী স্থলবন্দর পূর্ণাঙ্গ রূপ পেয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তাবায়ন হওয়ায় রাজধানী শহর ঢাকার সাথে সরাসরি যোগাযোগ সৃষ্টি হয়েছে। তিস্তা ব্যারেজের ফলে লালমনিরহাটেরও আমূল পরিবর্তন এসেছে। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটেছে।

তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের কর্মকর্তা দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল প্রতিনিধিকে বলেন, লালমনিরহাটের জমি উচু হওয়ায় তিস্তা ব্যারেজের পানি এ এলাকার কৃষক ব্যবহার করতে পারছেন না। কারণ, অন্যান্য সব জেলার জমি নিচু হওয়ায় তাদের পানি দিতে সহজ হচ্ছে। আর এ পানি নিতে তাদের কোনো খরচ হচ্ছে না। উত্তরাঞ্চলের প্রায় এক লাখ ২৬ হেক্টর জমি তিস্তার সেচ সুবিধার আওতাভুক্ত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত