শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
নীরবে বাড়ছে মশা, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় খুলনাবাসী

নীরবে বাড়ছে মশা, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় খুলনাবাসী

খুলনা প্রতিনিধিঃ

মশক নিধনে খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নানা কার্যক্রম চালালেও প্রয়োজনের তুলনায় তা’ অপ্রতুল। ফলে মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হচ্ছে মানুষ। কার্তিকের শেষে তাপমাত্রা নামতে শুরু করেছে। বাতাসে শিশির ভেজা শীতের ছোয়া। মৌসুম পরিবর্তনের এই সময়টা মশার প্রজনন মৌসুম হিসেবে ধরা হয়। এ অবস্থায় খুলনা নগরীতে বাড়ছে মশার উপদ্রব।

প্রতিবছর নভেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে মশার উৎপাত বাড়ে। এবার আগে থেকেই মশার প্রকোপ বেড়ে গেছে। মশক নিধনে বিভিন্ন কোম্পানির ওষুধ স্প্রে করেও কাজ হচ্ছে না। এখনই কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে চলতি সপ্তাহ শেষে মশা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আশংকা করছেন নগরবাসী।

খালিশপুরের মুজগুন্নি এলাকার বাসিন্দা রুমানা আক্তার (রানু) জানান, প্রতিদিনই সন্ধ্যা হলেই মশার উপদ্রব যেন বেড়েই চলছে। রাতে কয়েকদফা মশারির ভেতরেও মশা মারতে হয়।  সামনের দিনগুলো মশার প্রজনন মৌসুম। তাই ভয়াবহতা আরও বাড়তে পারে। ফলে ডেঙ্গু আর চিকুনগুনিয়ার আতঙ্ক বাড়ছে।

কেসিসি থেকে জানা গেছে, নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডের আয়তন অনেক বড়। ওয়ার্ডগুলোতে সর্বনিম্ন ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার পর্যন্ত মানুষ থাকে। যে ওয়ার্ডে ২০ হাজার মানুষ রয়েছে সেখানে মশক নিধন কার্যক্রম চালান একজন, যে ওয়ার্ডে ৫০ হাজার মানুষ বসবাস করেন সেখানেও একজন। ফলে সব এলাকায় ঠিকভাবে মশা মারার ওষুধ ছেটানো সম্ভব হয় না।

একটি পাড়া-মহল্লায় একবার ওষুধ ছেটানোর পর ওই এলাকায় দ্বিতীয় বার ওষুধ দিতে ১৫/২০ দিন লেগে যায়। যার কারণে কেসিসি মশক নিধন কার্যক্রম চালালেও এর প্রভাব নগরীর সব এলাকায় পড়ে না। মশার প্রজনন মৌসুমে দ্রুত মশা বেড়ে যায়। যার ভুক্তভোগী হয় নগরীর মানুষ।

এ ব্যাপারে কেসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মোঃ আনিসুর রহমান জানান, মশক নিধনে কেসিসির কার্যক্রম দ্বিগুণ করা হয়েছে। মশা মারতে প্রতিটি ওয়ার্ডে লার্ভিসাইট, অ্যাডাল্টি সাইট ও কালো তেল দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া মশক নিধনে জনবলও বাড়ানো হয়েছে।

তিনি জানান, নগরীর ৩১টি ওয়ার্ডে ৩১ জন এবং কেন্দ্রিয়ভাবে ৫ জন মশা নিয়ন্ত্রণে কাজ করতো। তাদের সঙ্গে আরও ২১ জন জনবল বাড়ানো হয়েছে। তারা কেন্দ্রিয়ভাবে বিভিন্ন স্থানে মশক নিধনে কাজ করছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে মশা মারার ওষুধের পরিমাণও বাড়ানো হয়েছে। ইতোমধ্যে মশা নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে।

বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, প্রজনন মৌসুমে ওয়ার্ড ভিত্তিক মশকনিধন জনবল বাড়ানো এবং নিয়মিত ওষুধ ছেটানো প্রয়োজন। না হলে সামনে এই দুর্ভোগ আরও বাড়বে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত