শিরোনাম :
গাজীপুরে শিক্ষক পরিবারের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ গাজীপুরে সরকারি হাসপাতালে পুলিশসহ ২জনকে কামড়ে দিলো রিক্সা চালক নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা জামনগর ডিগ্রি কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন ভূমিসেবায় এখন কোন হয়রানি নাই, কেউ দালালের কাছে যাবেন না:নরসিংদীর জেলা প্রশাসক গাজীপুরে সুদের টাকা পরিশোধ করেও হয়রানির শিকার রাজবাড়ীতে ট্রেনে কাটা পড়ে মৎসজীবী নিহত মধুপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহ  উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত ভূমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় পিরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে ভৈরব সেতুর নির্মাণ কাজ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন পাচারকারীর হাত থেকে পালিয়ে দেশে ফিরলো এক যুবতী, ঘটনার সাথে জড়িত গ্রেফতার  ৩ 
সীমানা পিলার সরিয়ে রূপগঞ্জে শীতলক্ষ্যার দুই পাড়েই বাড়ছে অবৈধ দখলদার

সীমানা পিলার সরিয়ে রূপগঞ্জে শীতলক্ষ্যার দুই পাড়েই বাড়ছে অবৈধ দখলদার

মাহবুব আলম প্রিয়, রূপগঞ্জঃ 

 রাজধানী ঢাকার পূর্বপ্রান্তে ডেমড়া ও প্রাচ্যের ডান্ডিখ্যাত নারায়ণগঞ্জের কোল ঘেষে বয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহী শীতলক্ষ্যাকে পূর্বের নকশায় ফিরিয়ে নিতে বিআইডব্লিউটিএর নদী সীমানা পিলার স্থাপনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখাচ্ছে দখলদার বাহীনি।  তাই বহু সীমানা পিলার নেই তার  আগের স্থানে। দখলের প্রতিযোগীতায়  শিল্পপতিসহ স্থানীয় নদীপারের প্রভাবশালীদের মধ্যে রয়েছে রাজনীতিবিদ, স্থানীয় ক্যাডার বাহীনির একচেটিয়া দাপট। নদী দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে বেশ কয়েকটি নামী-দামী প্রতিষ্ঠান। প্রতিদিনই একটু একটু করে বালি ফেলে ভড়াট করেছে  ইতোমধ্যে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার শীতলক্ষ্যা পাড়ের সীমানা। ১৭৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই রূপগঞ্জের বুক চিরে বয়ে যাওয়া নদীর দু‘পাশেই বসত করছে অবৈধ দখলদারেরা। একদিকে অবৈধ দখল অন্য দিকে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা শিল্প প্রতিষ্ঠানের বর্জ নদীতে ফেলে নদী ও পরিবেশের বারোটা বাজিয়ে নদীর দুকোল এখন দখলবাজদের।  যদিও একাধিকবার উচ্ছেদ করে সীমানা পিলার দিয়েছিলো প্রশাসন। এসব সীমানা পীলার রাতের আঁধারে বেকু দিয়ে তুল নদীর দিকে বিশেষ কৌশলে বসিয়ে দিচ্ছে তারা। এতে নদী পুনরায় না মাপলে বুঝা যায় না দখলের চিত্র।

রূপগঞ্জের সীমানায় ঢাকা ও রূপগঞ্জের বালু নদীর মোহনায় ডেমড়া সেতুর পর হতে চনপাড়া হয়ে গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা পর্যন্ত শীতলক্ষ্যা নদীটির  বর্তমান অবস্থা সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, প্রায় প্রতিটি স্থানেই রয়েছে অবৈধ দখলদার। নদী সীমানা পিলার থাকলেও এ পিলার উপেক্ষা করেই চনপাড়া এলাকার আলাল বাহীনি গড়ে তুলেছে তাদের সমবায় সমিতির কার্যালয়। একইভাবে নদীর অপরপ্রান্তে তারাব পৌরসভার প্রাচীন হাট নোয়াপাড়া বাজার এলাকার শতাধিক দোকান গড়ে তোলা হয়েছে এই নদী সীমানার জমিতে। এ বিষয়ে নোয়াপাড়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জানান,পয়েস্থি জমি হাট বাজারের জন্য দখল করলেও এটা আইনের লঙ্ঘন নয়,কারণ এটা জনকল্যাণের জন্যই। নদী দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে ডকইয়ার্ডসহ বালি ও পাথরের ব্যবসা।

এর পার্শ্ববর্তি গ্রাম একই পৌরসভার রূপসী এলাকায় শীতললক্ষ্যার আংশিক দখলে নিয়েছে সীমানা প্রাচীর দিয়ে। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন রূপসী এলাকার সিটি কোম্পানীর পার্শ্ববর্তি নদী তীরের সীমানা পিলার সঠিক নয়। এই সীমানা পিলার নির্মাণ্রে সময় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে ম্যানেজ করে নদীর সীমানা এই অংশে কম দেখানো হয়েছে।

স্থানীয় শিক্ষক আরমান ভুঁইয়া জানান, তৎকালীন উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার মহসিন ও চুন্নু মিয়াকে ম্যানেজ করে রূপসী এলাকায় নাভানা গ্রুপ, বালু ব্যবসায়ী সংগঠন তাদের ব্যবসা সম্প্রসারনের জন্য নদী সীমানাকে দখলে নিয়েছে। এরই পার্শ্ববর্তি মুড়াপাড়া ইউনিয়নের গ্রাম দড়ি কান্দির ও মূড়াপাড়া এলাকায় হাট বাজার, মীর সিমেন্ট ফ্যাক্টরীসহ একাধিক সিরামিক কোম্পানী তাদের প্রতিষ্ঠানের নদী পারের অংশ বালি ভড়াট করে গড়ে ২০/৫০ ফুট দখলে নিয়েছে। কোন কোন প্রতিষ্ঠান তাদের মালামাল ওঠানোর সুবিধার্থে  স্থায়ী জেটি নির্মান করে দখলে নিয়েছে এই নদীর ২০০ ফুটেরও বেশি অংশ। একই এলাকার মুড়াপাড়া বাজার এলাকায় রূপগঞ্জ উপজেলা  প্রশাসনের ৬০০ গজের মধ্যেই লীনা পেপার মিলের , ক্রিস্টাল সল্ট, স্থানীয় বালু ব্যবসায়ীদের দখলে রয়েছে প্রায় ৭৫০ একর  জমি।এই অবৈধ দখলদারের প্রতিযোগীতায় বাদ যায়নি শ্নশান ঘাট, মন্দির ও খোঁদ থানা ভবনের সীমানা প্রাচীর ও ঘাটলা।

সরেজমিনে দেখা যায়, রূপগঞ্জের ফেরী ঘাটের পার্শ্ববর্তি লীনা পেপার মিলের ও ক্রিস্টাল সল্ট এর সীমানা ঘেষেই শ্নশান ঘাট। সরকারী অনুদানে শ্নশান ঘাটের  নির্মান ও মন্দির নির্মান করা হয়েছে বলে জানায় যুবলীগ নেতা শহিদুল্লা।

দখলে বাদ নেই রূপগঞ্জ ইউনিয়ন ও দাউদপুর ইউনিয়নের উপর নির্মিতব্য পূর্বাচল উপশহর এলাকার ৪নং সেক্টরের পিতলগঞ্জ ও ব্রাহ্মনখালী মৌজার ৩০ বিঘা জমি। যদিও রাজউক কর্তৃপক্ষ তার সীমানার বৈধতা দাবী করেন তবে স্থানীয় আদিবাসিরা সি এস জড়িপের আলোকে বলেন, নদীর সীমানা পূর্ব থেকেই বর্তমান পূর্বাচল উপশহর  ৪নং সেক্টরের প্রশাসনিক ভবন ঘেষেই অবস্থান ছিল। কালের বিবর্তে এস এ রেকর্ড ও আর এস রেকর্ডে নদীর বাঁক হওয়ায় পূর্বপ্রান্তে এগিয়ে যায়। এর উত্তরে অবস্থিত দাউদপুর ইউনিয়নের ও ভোলাব ইউনিয়নের নদী পারের দুকুল ঘেষেই অবৈধ ৩৬টি ইটঁভাটার মালিকরা ও আশকারী জুট মিল ও মাশরীকি জুট মিলের সীমানা প্রাচীর দিয়েও দখলে নিয়েছে রূপগঞ্জ অংশের শীতলক্ষ্যা। এছাড়াও রূপগঞ্জের শীতলক্ষ্যার অংশের কোথাও বৈধ বালু মহাল না থাকলেও বেলদী, কাঞ্চন, ও ভোলাব এলাকায় শতাধিক ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করতে দেখা যায়।  এ সকল বালু মহাল বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয়রা জানায়, বেলদী  ও কাঞ্চন এলাকায় এসব অবৈধ দখলে ও বালু মহাল পরিচালনা করছে স্থানীয় যুবলীগ নেতা কর্মীরা।

 এসব অবৈধ দখল বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী কমিশনার (ভ’মি) আফিফা খান বলেন, অবৈধ বালু মহাল উচ্ছেদ ও অবৈধ দখল বিষয়ে উচ্ছেদ করার জন্য মাননীয় জেলা প্রশাসকের নির্দেশে একাধিকবার উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ফলে নদী সীমানা প্রাচীরের ভিতরে জানামতে কোথাও স্থায়ী স্থাপনা গড়ে ওঠতে দেওয়া হয়নাই । সংবাদ পেলে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহযোগীতা নিব।

কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক  চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট গোলজার হোসেন অভিযোগ করে বলেন , মুড়াপাড়া ও তারাবতে অনেক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মালিকরা তাদের শিল্প প্রতিষ্ঠান সম্প্রসারনের জন্য নদীকে পশ্চিম দিকে ঠেলে দেওয়ার চেষ্ঠা করছে।  ফলে দিন দিন শীতলক্ষ্যার নদীগর্ভ চলে যাচ্ছে অবৈধ দখলদারের হাতে।

 ইটঁভাটার দখলদার বেলদী এলাকার নজরুল ইসলাম জানায়,ইট ভাটা সাধারনত ৫ মাস চলে অন্যসময়ে নদী দখলে কারো হাত থাকে না। তাছাড়া নদী দখল সব ইট ভাটাই যে করছে তা নয়। দু একটি ইটভাটা তাদের জমির অভাবে আংশিক দখল নিয়েছে।

  এসব বিষয়ে স্থানীয় পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ-১(রূপগঞ্জ) আসনের  এমপি গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক) বলেন, অবৈধ দখলদারদের বিষয়ে একাধিকবার উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে ফলে নদী এলাকায় এখন অবৈধ দখলদার নাই। সীমানা পিলার বিষয়ে তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত