শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
রোগাকৃষ্ট গরু-ছাগল ও মহিষের মাংস দেদারচ্ছে বিক্রি ! প্রাশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা-

রোগাকৃষ্ট গরু-ছাগল ও মহিষের মাংস দেদারচ্ছে বিক্রি ! প্রাশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা-

হাবিবুর রহমান সেলিম, পাগলাপীর:

রংপুরের পাগলাপীরের বিভিন্ন হাট বাজারে রোগাকৃষ্ট আধামরা গরু-ছাগল  মহিষ সহ পশু-প্রানীর মাংস দেদারছে বিক্রি করা হচ্ছে। এই সব রোগাকৃষ্ট আধামরা গরু-ছাগল মহিষের মাংস বিক্রি বন্ধে সরকার ও তার প্রশাসন সহ স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের তেমন কোনো ভূমিকা না থাকায় পাগলাপীর সহ অঞ্চলের সচেতন মহল উদ্দিগ্ন হয়ে পড়ছেন বলে অভিযোগ উঠছে। জানাগেছে সাম্প্রতি পাগলাপীর বন্দরের গোলচত্তরের মাংস হাটি , নামাবাজার, পল্লী বিদ্যুৎ এর সামন, হরকলি, সিবের বাজার, পানবাজার, খারুয়াবাধা, নেকীরহাট, সেন্টারের হাট, মমিনপুর, শলেয়াশাহ, খলেয়া গঞ্জিপুর, ধনতোলা, বিড়াবাড়ী,বেতগাড়ী, পাকুড়িয়া শরীফ, বড়বিল ও উত্তম হাজীরহাট সহ অঞ্চলের বিভিন্ন হাট বাজারে দেদারছে বিক্রি করা হচ্ছে রোগাকৃষ্ট আধামরা গরু-ছাগল, মহিষ সহ পশু-প্রানীর মাংষ। বিশেষ করে সাম্প্রতি মরন ব্যাধী রোগ কারোনা ভাইরাস রোগে আক্রান্ত হয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষজনের প্রানহানী ঘটছে। ঠিক একই সময় ভাইরাস রোগ গলা ফুলা, ফোসা পড়া ও পা ফোলা রোগে আক্রান্ত হওয়া বলদ, দামুর, আড়িয়া ও গাভী  গরু সহ নানান জাতের পশু প্রানীর আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। এই সব রোগে আক্রান্ত হওয়া গরু-ছালগ, মহিষ পশু-প্রানীরা স্থানীয় চিকিৎসক সেবার পরেও সুস্থ হওয়া লক্ষণ কম থাকায় কৃষক সহ খামারিরা লোকসান পুষিয়ে নিতে সেই রোগাকৃষ্ট গরু-ছালগ মহিষ বিক্রি করছেন দালাল ফরিয়াদের সহযোগীতায় মাংস ব্যবসায়ী নামক কসাইদের কাছে। আর সুযোগ বুঝে মাংস ব্যবসায়ী নামক কসাইরা লক্ষাধীক টাকা মূল্যের গরু মাত্র ৩০-৪০ হাজার টাকায় ক্রয় করে সেই গরুর মাংস ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছেন হাজার হাজার টাকা। এমনও লোক মুখে শোনা যায় ভাইরাস রোগে আক্রান্ত হওয়া গরু, ছাগল, মহিষ চিকিৎসা সেবার পূর্বেই মারা গেছে। সেই গরু, ছাগল, মহিষের মাংস কসাইরা দালাল-ফরিয়াদের সহযোগিতায় সংগ্রহ করে হাট-বাজারে ক্রেতাদের কাছে আসল দামে বিক্রি করছেন। আর এইসব আধামরা গরু, ছাগল, মহিষের মাংসের তরকারী খেয়ে মানুষজন কলেরা, ডাইরিয়া সহ মরণব্যাধী রোগে আক্রান্ত হয়ে পরছেন। সরেজমিনে পাগলাপীর সহ অঞ্চলের বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজি গরুর মাংস ৫৫০টাকা, মহিষ ৫০০টাকা ও ছাগল (খাশি) ৭০০ টাকা দরে বিক্রি করতেছেন। পাগলাপীরের গোকুলপুর গ্রামের বাসিন্দা হাফিজুল ইসলাম, কাউন্টার ব্যবসায়ী মহসিন আলী,  সাবেক ছাত্র নেতা রাকিবুল ইসলাম সহ ভুক্তভোগী ক্রেতা সাধারন অভিযোগ করে বলেন, হাট-বাজার গুলোতে সরকার ও পুলিশ প্রশাসন সহ স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের তদারকি না থাকায় মাংস ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদেরকে জিম্মি করে রোগাকৃষ্ঠ আধা মরা গরু, ছাগল, মহিষের মাংস বিক্রি করতেছেন। আর এই সব রোগাকৃষ্ট আধা মরা গরু, ছাগল, মহিষের মাংস বিক্রি বন্ধের জন্য তারা জেলা প্রশাসক সহ প্রশাসনের উর্ধতন মহলের দৃষ্টি কামনা করছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত