শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
খুলনায় বেড়েছে মাস্কের ব্যবহার

খুলনায় বেড়েছে মাস্কের ব্যবহার

মেহেদী হাসান, খুলনা প্রতিনিধিঃ
করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে খুলনা জেলা প্রশাসন। মাস্ক না পরে বাইরে বের হওয়া ব্যক্তিদের আটক ও জরিমানা করছেন। গত সোমবার থেকে খুলনা মহানগরীর ও জেলার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।

চীন থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় বাংলাদেশেও উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বেড়েছে। হাঁচি-কাশিতে ছড়ানো ছোঁয়াচে এ রোগটি থেকে সুরক্ষা পেতে মাস্কের ব্যবহার বেড়েছে। ফলে বাজারে মাস্কের দামও বেড়েছে, সঙ্গে সংকটও তৈরি হয়েছে।

করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত উদ্বেগে বাজারে মাস্কের দাম আগের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে। করোনা থেকে নিজেকে সুরক্ষার জন্য হলেও সুরক্ষাসামগ্রী হিসেবে-এ ব্যবহার করছেন মানুষ। সুরক্ষাসামগ্রীর মধ্যে সার্জিক্যাল মাস্ক, ফেস মাস্ক কেএন ৯৫ ও এন ৯৫। শহর ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় প্রত্যেক মানুষের মুখে সুরক্ষাসামগ্রী হিসেবে মাস্ক পরতে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, তিনদিন আগেও মানুষের মাঝে মাস্ক ব্যবহারে চরম অনীহা ছিল। অথচ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করায় বর্তমানে ৯০ শতাংশ মানুষ মাস্ক পরে ঘর থেকে বের হচ্ছে। এবং মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকালে দরিদ্র্য মাস্কবিহীন মানুষকে মাস্ক বিতরণ করা হয়।

মহানগরীর শান্তিধাম মোড়ের মেডিকম ফার্মেসীর স্বত্বাধিকারী তুহিন ইসলাম জানান, কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে প্রশাসন। মাস্ক না পরে বাইরে বের হওয়া ব্যক্তিদের আটক ও জরিমানা করছে। যে কারণে মানুষ মাস্ক পরতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে মাস্ক বিক্রি বহুগুণ বেড়ে গেছে।

খুলনা জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইউসুপ আলী বললেন, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নেওয়া হয়েছে। জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির বৈঠক অনুযায়ী মাস্ক না পরে ঘর থেকে বের হওয়া ব্যক্তিদের কারাদণ্ড দেওয়া হবে। এর আগে প্রথম পর্যায়ে সংক্রমণ ঠেকাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে অনেককে জরিমানা করা হয়েছিল। কিন্তু তাতে মানুষের মধ্যে সচেতনতা আসেনি। এ কারণেই এমন কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মাস্ক না পরে বাইরে আসা ব্যক্তিদের প্রাথমিকভাবে আটক করা হচ্ছে। পরে তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

জেলা সিভিল সার্জন সুজাত আহমেদ বলেন, কয়েকদিন এ ধরনের অভিযান চললে মানুষের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারে আগ্রহ বাড়বে। করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার বিকল্প নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত