শিরোনাম :
সরকারী বাঁধা উপেক্ষা করে ইমরান খানের পিটিআই রাজধানীতে প্রবেশ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, দিঘলিয়া টেণ্ডারের আড়ালে রাস্তার দু’পাশের সরকারি ১২৮ টি গাছ চুরি পাটকেলঘাটায় কপোতাক্ষ নদের পাশে আর্বজনা,  নদী ভরাটের আশংকা দিঘলিয়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজুর রহমান জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত নেনেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ক্যাবল অপারেটর কট্রোলরুম পুড়ে ছাই ভিক্ষা নয় চাকরি চাই- শারীরিক প্রতিবন্ধী শাহিদা,দেওয়ানগঞ্জ  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি আওলাদ, সাধারণ সম্পাদক সাত্তার আমি মরিনি,সুস্থ আছি,বেঁচে আছি : হানিফ সংকেত সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে তিলের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি রূপগঞ্জে ভুলতা ইউপির  উম্মুক্ত বাজেট ঘোষণা
রাজশাহীর বাঘমারায় সর্বহারার নামে প্রবাসীর কাছে চাঁদা দাবীর অভিযোগ!

রাজশাহীর বাঘমারায় সর্বহারার নামে প্রবাসীর কাছে চাঁদা দাবীর অভিযোগ!

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ রাজশাহী জেলার বাঘমারা উপজেলার ঝিকড়া ইউনিয়নের বারই পাড়ার মৃতঃ নাসির প্রামানিকে ছেলে প্রবাসী মোঃ নজরুল ইসলামের কাছে সর্বহারা পরিচয় দিয়ে ৩ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিলো পার্শবর্তী পাড়ার সর্বহারার সালেন্ডারকৃত সদস্য মৃতঃ হারুনোর রশিদের ছেলে মোঃ সোরুবুল ইসলাম চাঁদ (৪৪)। ও মোঃ মঞ্জুরুল ইসলাম(৪৬),মোঃ মেহেদী মেরাজ (৩৮), একই গ্রামের মৃতঃ পচাই সরদারের ছেলে মোঃ আত্তাব সরদার,মোঃ আমজাদ প্রাং এর ছেলে মোঃ আলমগীর (২৮)। স্থানীয়বাসী ও নজরুল ইসলাম জানায়,এ নিয়ে তারা বার বার নজরুল ইসলামকে ভয়-ভীতি দেখাতে থাকে, এরপরও নজরুল ইসলাম টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে, উক্ত সর্বহারা পরিচয়দান কারীরা ৩লক্ষ টাকা আদায় করার জন্য সলা-পরামর্শ করে ২ নং আসামী মুঞ্জরুলকে দিয়ে কোর্ট থেকে একটি লিগ্যাল নোটিশ পাঠায় নজরুলের নামে।এর পরও ৩ লক্ষ টাকা না দিলে গত ০২/১০/২০ইং তারিখে সকাল ১১ঃ৩০ মিনিটের সময় নজরুল ইসলাম বাড়ী থেকে মোঠরসাইকেল নিয়ে ঝিকড়া বাজারে যাওয়ার পথে বারুইপাড়া হিন্দুপাড়া বাজারের আগে পাকা রাস্তার উপর পৌঁছলে, আগে থেকে উৎ পেতে থাকা উক্ত সর্বহারা পরিচয়দানকারীরা নজরুজলের মোঠরসাইকেল থামিয়ে ৩লক্ষ টাকা কেন দিচ্ছে না বলে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে, টাকা তার কাছে নেই বলে জানালে, তারা নজরুল ইসলামের মাথায় ধাড়ালো অস্ত্র দিয়ে কয়েকটা কোপ মেরে, মারপিট করে মোঠরসাইকেল ছিনিয়ে নেয়, এরপর তার বুক পকেট চেক করে, ১৫৩০ টাকা ছিলো, সেটাও ছিনিয়ে নিয়ে নেয়। এরপর নজরুলের মোঠরসাইকেল কেড়ে নিয়ে সর্বহারা পরিচয়দানকারীরা চলে যেতে লাগলে, নজরুল ইসলাম মাটি থেকে উঠে খুব জোড়ে জোড়ে চিৎকার করতে থাকলে এলাকাবাসীরা চারি দিক থেকে বেড়িয়ে পড়ে। তাদেরকে মনায়েম নামের একজনে খলিয়ানে আটক করে। এবং উত্তেজিত জনতা সর্বহারা পরিচয়দানকারী চাঁদাবাজদের এলোপাতারী ভাবে গনধলাই দিয়ে বাঘমারা থানা পুলিশকে ফোন দিয়ে তাদের হাতে সপর্দ করে।সর্বহারা পরিচয়দান কারীরা স্থানীয়দের সাথে মিমাংসা হবে, এবং আর কোনদিন এমন কর্মকান্ড করবেনা মর্মে গ্রামবাসীদের কাছে অনুরোধ-বিনোরোধ করে গোপনে এলাকার বেছে,বেছে  ১২জনকে আসামী করে রাজশাহী কোর্টে একটি মিথ্যা মামলা করেছে।সে মামলায় গ্রামবাসীরা আদালতে হাজিরা দিতে গেলে কয়েকজনের জামিন মুঞ্জর করে এবং তিনজনকে হাজতে পাঠায়। এ নিয়ে গ্রামবাসীরা আতংকে আছে বলে জানায়।
অন্যদিকে সর্বহারাদের নামে নজরুল অসুস্থ চিকিৎসাধীন থাকার কারনে তার দুলাভাই বাদী হয়ে বাঘমারা থানায় মামলা করিলে, আসামীরা জামিনে ছাড়া পেয়ে, এলাকায় এসে আবারও ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে বলে এলাকাবাসীরা অভিযোগ করে জানায়।এলাকাবাসী মহিলা পুরুষেরা আরো জানায়, এই ৫জন সহ বেশ কয়েকজন উক্ত এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে আসছে, তাদের ভয়ে পুলিশকে জানাতেও ভয় পায় এলাকাবাসী। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে এলাকাবাসী আজ একত্রে হয়েছে। সর্বহারা পরিচয় দিয়ে,চাঁদা না দিলে,তাদের কাহারো স্বামীকে মেরে পঙ্গু করে রেখেছে,কাহারো ভাইকে,আবার কাহারো ছেলেকে। এলাকাবাসীদের কাছে সর্বহারা পরিচয় দান কারী, আত্তাব সরদার এর বাড়ীতে গিয়ে তার কাছে জানতে চাইলে সে নিজে সর্বহারার সদস্য কথাটি এরিয়ে গিয়ে বলে, আমাদের মধ্য সোরুবুল ইসলাম চাঁদ সর্বহারার সদস্য ছিলো, সে সরাষ্টমন্ত্রীর কাছে সালেন্ডার করেছিলো। সেখান থেকে তাকে বিভিন্ন ভাবে অর্থসহ বহুকিছু সুযোগ সুবিধাও দিয়েছে। এরপরও এখনো এমন কার্যকলাপ কেন করছেন আপনারা জানতে চাইলে, সে সব কিছু অস্বীকার করে।  মেহেদী মেরাজ এর কাছে জিজ্ঞাসা করতে তাদের বাড়ীতে গেলে সেও সবকিছু অস্বীকার করে বলে, তার মেজ ভাই সোরুবুল ইসলাম চাঁদ সর্বহারার সদস্য। সে সারেন্ডার দিয়েছিলো সরাষ্টমন্ত্রীর কাছে। এবং সেখান থেকে অর্থ সহ বহু রকম সহযোগীতা করেছে।এবং প্রতিমাসে ভাতাও পেয়ে থাকে। এরপরও এমন কাজ কেন করা হচ্ছে জিজ্ঞাসা করিলে, সেও সবকিছু অস্বীকার করে। সোরুবুল ইসলাম চাঁন এর বক্তব্য নিতে তার বাড়ীতে গেলে,সে বাড়ীতে নেই বলে চাঁন এর স্ত্রী জানায়। চাঁন এর মোবাইল নং নিয়ে তার সাথে কথা হলে, সেও সব কিছু অস্বীকার করে।উক্ত এলাকার ছালমা নামে এক মহিলা জানায়, চাঁদা না দেওয়ার কারনে তার স্বামী গোলামকে মেরে পঙ্গু করে রেখেছে। আব্দুস ছাত্তার নামের এক বৃদ্ধ বলে, তার ছেলে সাইফুলকে চাঁদা না দেওয়ার কারনে প্রচুর মারপিট করেছিলো বহুদিন হাসপাতালে চিকিৎসা করে বাড়ীতে আছে। মামলা করেছিলো,কিন্তু তারা বিভিন্ন ভাবে ভয়-ভীতি দেখানোর জন্য মামলাটি তুলে নিতে বাধ্য হয়েছে। আজিদা নামের আরেক মহিলা জানায়, তার স্বামী বিদেশ থাকে, তাদের বাড়ীতে, রাতের বেলায় ডাকা-ডাকি করে, উঁকি-ঝুঁকি দেয়, এরপর তার কাছ থেকে স্বামী বিদেশ আছে বলে টাকা দাবী করে, সে দিতে অস্বীকৃতি জানালে, আজিদাকে প্রচন্ড ভাবে মারপিট করেছিলো, সে ব্যাপারেও স্বামী বিদেশ আছে বলে মামলা করতে সাহস পায়নি বলে জানায়। একই এলাকার কোমর উদ্দীন নামের একজন বৃদ্ধা জানায়, তার ছেলে মফিদুল বিদেশ থাকে, তার ছেলের বউয়ের কাছে চাঁদা দাবী করেছিলো। মহিলা মানুষকে বিভিন্ন ভাবে ভয়-ভীতি দেখায়। এ নিয়ে সে তাদের সাথে প্রতিবাদ করিলে তাকে নির্মম ভাবে মারপিট করেছে বলে জানায়। এ ছাড়াও ভোলা নামের একজনকে মার-পিট করে পা ভেঙ্গে দিয়েছে। এভাবে এলাকার বহু মানুষ তাদের নির্যাতনের স্বীকার হয়েছে বলে জানায়।এলাকাবাসীর একটাই দাবী, এই অত্যাচারীদের যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়।এবিষয়ে, ১২ নং ঝিকড়া ইউনিয়নের চেয়াম্যান আব্দুল হামিদ সাহেবের কাছে মোবাইল ফোনে কথা হলে সে জানায়, সর্বহারা ছিলো, তবে আত্নসমর্পন করেছিলো। আর কোন পক্ষের কেহই আমাকে কিছু জানায় না। তবে দেশের আইনের বিরুদ্ধে কেহ কোন কাজ করিলে, তাদের শাস্তির হওয়াটাই আমার চাওয়া।এ বিষয়ে বাঘমারা থানার ওসি সাহেবের সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, সর্বহারার নামে চাঁদাবাজি,, এমন কোন লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ আমাদের কাছে কেহ দেয় নাই। কিন্তু বারই পাড়ায় একটা মারামারী হয়েছে, দু,পক্ষই মামলা করেছে। একপক্ষ সর্বহারাতে ছিলো, কিন্তু তারা আত্নসমর্পন করেছে। তবে এগুলো বিষয়ে অভিযোগ পেলে, অবশ্যই আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত