শিরোনাম :
গাজীপুরে শিক্ষক পরিবারের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ গাজীপুরে সরকারি হাসপাতালে পুলিশসহ ২জনকে কামড়ে দিলো রিক্সা চালক নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা জামনগর ডিগ্রি কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন ভূমিসেবায় এখন কোন হয়রানি নাই, কেউ দালালের কাছে যাবেন না:নরসিংদীর জেলা প্রশাসক গাজীপুরে সুদের টাকা পরিশোধ করেও হয়রানির শিকার রাজবাড়ীতে ট্রেনে কাটা পড়ে মৎসজীবী নিহত মধুপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহ  উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত ভূমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় পিরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে ভৈরব সেতুর নির্মাণ কাজ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন পাচারকারীর হাত থেকে পালিয়ে দেশে ফিরলো এক যুবতী, ঘটনার সাথে জড়িত গ্রেফতার  ৩ 
সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার চেয়ে বন্দর চেয়ারম্যানসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মচারীদের আবেদন ; মোংলায় সিবিএ’র সম্পাদকের বিরুদ্ধে দূর্ণীতির অভিযোগ

সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার চেয়ে বন্দর চেয়ারম্যানসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মচারীদের আবেদন ; মোংলায় সিবিএ’র সম্পাদকের বিরুদ্ধে দূর্ণীতির অভিযোগ

বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি : মোংলা বন্দর কর্মচারী সংঘ (সিবিএ)’র খুলনা শাখা কমিটি গঠন নিয়ে চলমান দ্বন্দ্বে বেরিয়ে আসচ্ছে মোংলা বন্দর কর্মচারী সংঘ (সিবিএ)’র সাধারন সম্পাদকের নানা অনিয়ম , দুর্ণীতি ও স্বেচ্ছাচারীতার তথ্য। তার দূর্ণীতি, স্বেচ্ছাচারীতা ও ক্ষমতা অপব্যাবহার নিয়ে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে বন্দর সংশ্লিষ্ট সাধারন কর্মচারীদের মধ্যে। সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজের কর্মকান্ডে কার্যনির্বাহী কমিটির বাকি ১১ সদস্যও ঐক্যবদ্ধ হয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বন্দর চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ দিয়েছে। এছাড়াও সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজের দূর্ণীতি আর স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে বন্দর চেয়ারম্যানসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন রফিকুল ইসলাম নামের বন্দরের এক কর্মচারী। মোংলা বন্দর সিবিএর সাধারন সম্পাদক ফিরোজের বিরুদ্ধে দেয়া অভিযোগে বলা হয়, বর্তমান মোংলা বন্দর কর্মচারী সংঘের সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজ কর্মচারী ইউনিয়ন ও ব্যবস্থাপনা নির্ভরশীল চুক্তি ভঙ্গ করে মোংলা বন্দরে চাকুরীতে প্রবেশ করেন। বন্দরের নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে বিধি বহির্ভূত ভাবে তার আরো এক ভাই মোঃ শাহিনকে গ্রীজার পদে চাকুরীতে অন্তর্ভূক্ত করান। তবে আবেদনে তার ভাই শাহিন কে নির্ভরশীল কোটা দেখানো হলেও ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যু করানো হয় জেলা কোটায়। তখন সাতক্ষীরা এলাকার কোন জেলা কোটা ছিলোনা বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। চাকুরীর বয়সের সীমাকে ধামাচাপা দিয়ে জাল সনদ তৈরী করে চাকুরীতে প্রবেশ করানো হয় শাহিন কে। মোঃ ফিরোজ ও শাহিনের বড় ভাই জাহাঙ্গীর আলম স্বপন পূর্ব থেকে বন্দরে কর্মরত থাকায় তৎকালীন নিয়ম অনুযায়ী দুইজনের চাকুরী নিয়মানুসারে অবৈধ ভাবে নিয়েছে বলে দাবী করা হয়। এছাড়া ২০০২-২০০৩ সালে ক্লিনহার্ট অভিযানের সময় ৬/৭ মাস ছুটি না নিয়ে আত্মগোপনে থাকেন মোঃ ফিরোজ। পরে বন্দরের কয়েকজন দুর্ণীতিবাজ কর্মকর্তার সহায়তায় ভুঁয়া মেডিকেল সার্টিফিকেট দিয়ে চাকুরীতে বহাল হন। সিবিএর সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজ বন্দরের হারবার বিভাগে লাইসেন্স ইন্সপেক্টর হিসেবে কর্মরত আছেন। সেই সুবাদে বন্দর সীমানায় চলাচলকারী সকল নৌযানের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত ভয়ভীতি দেখিয়ে বিপুল পরিমান নগদ অর্থ আদায় করে আসছেন বলে অভিযোগে রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কিছু দিন পূর্বে বন্দরের কিছু কর্মচারীর পদোন্নতি হয়। সিবিএর সাধারন সম্পাদক হয়ে যেখানে ক্ষমতা অপব্যাবহার করে একটি সিন্ডিকেট তৈরী করে ফিরোজ বহু টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে দাবি করা হয়। সাধারন সম্পাদকের পদ ব্যবহার করে বন্দর কর্তৃপক্ষের গাড়ী রিকুইজিশনের মাধ্যমে তার বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনদের চলাচল করতে দেয়া হয়েছিলো বলে অভিযোগে উল্ল্যেখ আছে। একই সাথে ২০১০ সালে তিনি জাহাজ চলাচল সহকারী পদে পদোন্নতি গ্রহন করেন। কিন্ত ওই পদের কোন কাজ না করে পোষ্টিং নেন ভান্ডার রক্ষক পদে। সেখানে থাকা অবস্থায় আবারও ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে লাইসেন্স পরিদর্শক পদে পদোন্নতি নেন তিনি। নিয়ম অনুযায়ী তিন বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকার কথা থাকলেও সে নিয়ম মানা হয়নি বলে অভিযোগে দাবি করেন রফিকুল। সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজ এর ভায়রার লাইসেন্স ব্যবহার করে বন্দরের হিরন পয়েন্ট নীল কমল খালের ড্রেজিং কাজ করান তিনি। সেখানে মাটি বা পলি নিয়মানুসারে খনন না করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। নদী খনন কাজে ব্যস্ত থাকায় অফিসে দীর্ঘ দিন অনুপস্থিত ছিলেন তিনি। হাজিরা খাতায় পরে এসে স্বাক্ষর করে দিয়েছেন তিনি। এভাবে সিবিএর সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ক্ষমতা দেখিয়ে অবৈধ অর্থ উপার্জন করে অল্প দিনেই কোটি টাকা দিয়ে বিলাশ বহুল বাড়ী ও গাড়ীর মালিক হয়েছেন তিনি। সিবিএর সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজের এমন কর্মকান্ডে সংগঠনটির সভাপতি সাইজদ্দিন মাষ্টার প্রতিবাদ করায় গত ৩ নভেম্বর তার হাতে তাকে লাঞ্চিত হতে হয়েছে। এব্যাপারে কার্য নির্বাহী পরিষদের অন্য ১১ সদস্য একত্রিত হয়ে বন্দর চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন। এব্যাপারে অভিযুক্ত মোংলা বন্দর কর্মচারী সংঘের সাধারন সম্পাদক মোঃ ফিরোজ কিছুটা সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, সংগঠনের কাজ করতে গেলে একটু সমস্যা হতেই পারে, তবে তিনি কোন অনিয়মের সাথে জড়িত নয় বলে দাবি করেন। আর এনিয়ে লেখা-লেখি হলে তার কিছুই যায়-আসে না বলে মন্তব্য করেন তিনি। সিবিএর সভাপতি সাইজুদ্দিন মাস্টার জানান সংগঠনের নিয়ম বহির্ভূত কাজের প্রতিবাদ করায় সম্পাদকের সাথে মতবিরোধ হয়েছে। বন্দর চেয়ারম্যানকে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে, তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। যেহেতু আমরা বন্দরের কর্মচারী তাই চেয়ারম্যানের নির্দেশনা পেলেই সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে সম্পাদক মোঃ ফিরোজের বিরুদ্ধে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এ্যাডমিরাল এম শাহজাহান সাংবাদিকদের জানান বন্দর কর্মচারী সংঘের নেতৃবৃন্দের মধ্যে কিছু ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে সভাপতি-সম্পাদকের মধ্যে একটু বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে, বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি।এছাড়া সম্পাদক মোঃ ফিরোজের বিরুদ্ধে অন্য এক কর্মচারী একটি লিখিত অভিযোগ করেছে, এ ব্যাপারেও খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত