ব্রিটিশ আমলের তৈরী চারিতালুক পাল বাড়ীর অরক্ষিত ও ভঙ্গুরদশা

ব্রিটিশ আমলের তৈরী চারিতালুক পাল বাড়ীর অরক্ষিত ও ভঙ্গুরদশা

মাহবুব আলম প্রিয়, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ):

মুর্শিদাবাদের মীর জাফরের উত্তরসূরীদের বসবাস

ভ্রমণ বিষয়ক বিভিন্ন বই পুস্তকে দেশের ঐতিহাসিক নিদর্শন হিসেবে দর্শনীয় স্থানের তালিকায় থাকা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের চারিতালুকের পালবাড়ি এখন অরক্ষিত, বেদখল, জরাজীর্ণ ভবনটি বেহাল দশায়  পরিণত হয়েছে। ব্যক্তিমালিকানাধীন ভবন হওয়ায় প্রতœতত্ত্ব বিভাগের নজরদারী এড়িয়ে উপজেলা ভুমি অফিসকে একটি  বিনিময় দলিলের মাধ্যমে মালিকানার বৈধতা দোহাই দিয়ে বৃটিশ আমলে তৈরী  প্রাচীন একটি স্থাপনায় বসবাস করছেন বর্তমান ভারতের মুর্শিদাবাদের ঐতিহাসিক পলাশী যুদ্ধে পরাজয়ের চক্রান্তচারী বিশ্বাস ঘাতক মীর জাফরের উত্তরসূরীরা। যদিও বসবাসকারি বাসিন্দারা নবাব সিরাজউদ্দেীলার নানা নবাব আলীবর্দিখাঁ কিংবা মুর্শিদাবাদের জালালপুর গ্রামে বসবাসের কথা এমনকি নবাব পরিবারের সাথে তাদের পূর্বপুরুষদের যোগাযোগের কথা স্বীকার করলেও মীর জাফরের উত্তসূরী হিসেবে মানতে চাননি। তবে এলাকাবাসির দাবী তারা মুর্শিবাদে থাকাকালীন মীর জাফরের কর্মের ঘৃণায় লোকলজ্জার ভয়ে ওই এলাকা ছেড়ে বিভিন্নস্থানে ছড়িয়ে যান তারা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, রূপগঞ্জ উপজেলার ভোলাবো ইউনিয়নের অধীনে  মোচার তালুক মৌজার চারিতালুক গ্রামে রয়েছে একটি প্রাচীন দালান। যা মৌজাটির আরএস  ৮৮৯নং খতিয়ানের ৩১ শতক জমি থেকে কেবল  ৬ শতক জমির উপর দ্বিতল ভবনে  পুরানো স্থাপত্যের নিদর্শন নিয়ে কালের বিবর্তে জরাজীর্ণ আর অরক্ষিত অবস্থায় দাড়িছে আছে।

কোন প্রকার নাম ফলক কিংবা সাইনবোর্ড না থাকায় স্থানীয় ভূমি অফিস ও  প্রবীণ বাসিন্দাদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, বাড়িটি বৃটিশ আমলে অভিজাত জমিদারদের আবাসস্থল ছিল।যেখানে ভারতীয় উপমহাদেশের প্রাচীন  শাসক  পাল রাজাদের বংশধররা ও জোতদাররা  বসবাস করতেন। জোতদাররা ছিলেন পাল রাজার অধীনস্থ জমিদার ।  তবে জমিদার প্রথা বিলুপ্ত হলে কিংবা ১৯৪৭ এর দেশভাগের পর ওই পালরা এখানকার জমিদারী ও ঘরবাড়ি ফেলে চলে যায় ভারতের মর্শিদাবাদ ও কলকাতাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে। সেখানে চলে গেলে সরকারী বিধি ব্যবস্থায় বিনিময় দলিলের মাধ্যমে ওই পালদের জমিতে ফেরত আসেন মুর্শিদাবাদের জালালপুর গ্রামের খান বংশীয় বেশ কয়েকটি পরিবার। কথিত আছে, ওই খান বংশের পূর্ব পুরুষ হলেন মীর জাফর।  যাঁর সম্পূর্ণ নাম সৈয়দ মীর জাফর আলী খান। তার জন্ম ১৬৯১ এবং মৃত্যু ৫ ফেব্রুয়ারী ১৭৬৫। সে ইংরেজ প্রভাবিত বাংলার একজন নবাব ছিলেন। সেই মীর জাফরের  উত্তরসূরীরা কালের বিবর্তে  মুর্শিদাবাদের নেমক হারাম ডেওরীতে (মীর জাফরের বাড়ি) স্থানীয়দের দ্বারা অবাঞ্চিত ঘোষণা হলে লোক লজ্জায়, ঘৃণায় তারা সেখানে বসবাস করতে পারেননি। তাই তারা  ভারতবর্ষের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে যায়। তারা মীর জাফরের উত্তরসূরী হিসেবে পরিচয় গোঁপন করতে থাকেন।

 সূত্র জানায়,  এদের কিছু অংশ ১৯৪৭ এর দেশভাগের সময় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ভোলাবো এলাকায় চলে আসেন অস্থায়ীভাবে। যদিও এখানকার বাসিন্দারা বংশগত যোগসূত্র বিষয়টি স্বীকার করেন নি। তাদের দাবী তারা ১৯৬৭ ইং সনে মুর্শিদাবাদের জালালপুর গ্রামের (বর্তমানে পদ্মায় বিলিন হওয়া একটি নিশ্চিহ্ন একটি গ্রাম) বাসিন্দা।

এসব বিষয়ে কথা হয় পালবাড়িতে বসবাসরত ৭৫ বছর বয়সী বৃদ্ধ হাজী আমানুল্ল্যাহ আামনের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমরা ১৯৪৭ এ  দেশ ভাগের সময় বাংলাদেশে অস্থায়ীভাবে আমাদের পিতা আহসান উল্লাহ খান মাস্টার  প্রথম আসেন। সে সময় আমরা মুর্শিদাবাদের জালালপুর গ্রামে বসবাস করতাম। পাশাপাশি বর্তমান পুরান ঢাকায় আমাদের ব্যবসা বাণিজ্য ছিলো। সে সময় আমাদের পিতা ভোলাবো এলাকার পালবাড়ির কথা ও এখানকার জোতদারদের কথা জানতে পারেন। আমরাও   শুনেছি এখানে পালরা বসবাস করতো। ১৯৬৭ইং সনে আমরা ৩ ভাই হাজী আমানুল্লাহ, খাইরুল আলম ও গোলাম কিবয়িরা তোতাসহ জালালপুর গ্রামের বেশ কিছু পরিবার এ অঞ্চলে বসবাস করতে শুরু করি। প্রথমে মৌখিক ভাবে পালদের রেখে যাওয়া ঘর বাড়িতে বসবাস শুরু করি। তখন এ বাড়িটির জৌলুস ছিলো। দর্শনার্থীরাও আসতেন দেখতে। এ বাড়ির তৈরী সন বিষয়ে কোন তথ্য পাইনি। তাই  আমরাও কৌতুহলী হয়ে আশপাশের শতবর্ষি প্রবীণ বাসিন্দাদের কাছে এ পুরাতন ভবনের তৈরী সময় ও ইতিহাস জানতে চাইতাম। তবে তারাও তাদের শৈশব থেকে এ ভবনকে এমনই দেখেছেন বলে দাবী করেন। তিনি আরো বলেন, ভবনটি প্রায় ২শ বছরের পুরনো হবে। এ বাড়িতে বসবাসের বৈধতা বিষয়ে তিনি বলেন,  মোচার তালুক মৌজার আরএস রেকর্ডীয় মালিক জনৈক নরেন্দ্র চন্দ্র পালের ছেলে অজীত কুমার পাল,  প্রদীপ কুমার পাল ও সুধীর চন্দ্র পালদের কাছ থেকে আমরা ৩ ভাই বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তি বিগত ২৬/১১/১৯৭৩ তারিখে ২৮৩৩৭ নং বিনিময় দলিল মুলে ২২১ বিঘা জমি হতে প্রাপ্ত  হই । এভাবে অন্যান্য পরিবারও বিনিময় দলিলমুলে মালিক হয়ে এ অঞ্চলে বৈধভাবে বসবাস করে আসছেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন,আমাদের পূর্ব পুরুষ মীর জাফর কিংবা তাদের বংশের লোক  ছিলেন না। স্থানীয় লোকজন আমরা মুর্শিদাবাদের বংশীয় থাকায়  ঝগড়া বা মনোমালিন্য হলে  খোটা দিয়ে এসব বলে থাকে। যা সত্য নয়।  তবে নবাব পরিবারের সাথে পূর্ব পুরুষদের যোগসাজস ছিলো। আমাদের দাদার কাছে এবয়ি বই পুস্তক থেকে জেনেছি। কারন, আমরা নবাব আলীবর্দিখানের সেনাপতি জালালউদ্দিনের অধীনস্থ ছিলাম বলেই জানতাম। পালবাড়ির  অপর বাসিন্দা নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবি (এডভোকেট ) আরশাদ আলী বলেন,পূর্ব পুরুষ কি অবস্থায় ছিলেন জানা নেই। তবে আমাদের পরিবারের পূর্ব পুরুষরা  মুর্শিদাবাদের জালালপুর গ্রাম থেকে এখানে এসেছি। আমার জন্ম এ বাংলাদেশেই। এ ভবনটি পুরাতন স্থাপনা হওয়াতে কেউ সংষ্কারের উদ্যোগ নেয়নি। সরকারীভাবেও আমাদের কোন প্রকার বাঁধা দেওয়া হয়নি। বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরা এ ভবন দেখতে আসেন। আশপাশে বাড়িঘর থাকায় দর্শনার্থীরা আসলে অসুবিধা হয়।   

ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন টিটু বলেন, নিঃসন্দেহে এ পালবাড়িটির মাধ্যমে ভোলাবোর পরিচয় ফুটে ওঠে। রূপগঞ্জ উপজেলাকে যেমন মুড়াপাড়া জমিদার বাড়ির মাধ্যমে চেনা যায় তেমনি ভোলাবো ইউনিয়নের এ স্থাপনা গুরুত্ববহন করে। তবে যারা বসবাস করছে তারা বিনিময় দলিলের মাধ্যমে মালিকানা পেয়েছেন। ফলে  তাদের বৈধতা রয়েছে।

এদিকে পুরাতন এ ভবনটির রক্ষায় নেই স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারী। তাদের কাছে তথ্য নেই এ ভবনের ঐতিহাসিক রক্ষণাবেক্ষনের নির্দেশনায়। ভোলাবো ইউনিয়ন উপ সহকারী  ভূমি কর্মকর্তা (সহকারী নায়েব) সঞ্জয় কুমার ভাওয়াল বলেন, এটা আরএস রেকর্ডীয় সূত্রে ব্যক্তিগত মালিকানার জমিতে অবস্থিত। যারা বসবাস করছে তারা বিনিময়  দলিলের মাধ্যমে বৈধভাবে মালিক হয়ে বসবাস করছেন বলে জানি।   ফলে তা সরকারীভাবে সংরক্ষনের উপায় নেই।

 এ বিষয়ে  উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফিফা খান বলেন,  চারিতালুকের পাল বাড়িটি বিষয়ে জেনেছি। এটা ঐতিহাসিক নিদর্শন। উর্ধ্বতন মহল ও সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানিয়ে এটাকে সংরক্ষনের জন্য খুব শীঘ্রই প্রতœতত্ত্ব বিভাগকে চিঠি বিনিময় করে ব্যবস্থা করবো।   

 ইতিহাস সূত্রে জানা যায়, নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা বা মির্জা মুহাম্মাদ সিরাজ-উদ-দৌলা বাংলা-বিহার-ওড়িশার শেষ স্বাধীন নবাব। পলাশীর যুদ্ধে তাঁর পরাজয় ও মৃত্যুর পরই ভারতবর্ষে ১৯০ বছরের ইংরেজ শাসনের সূচনা হয়। সিরাজউদ্দৌলা তাঁর নানা নবাব আলীবর্দী খানের কাছ থেকে ২৩ বছর বয়সে ১৭৫৬ সালে বাংলার নবাবের ক্ষমতা অর্জন করেন। তাঁর সেনাপতি মীরজাফরের বিশ্বাসঘাতকতার কারণে ২৩ জুন ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে পরাজিত হন। রবার্ট ক্লাইভের নেতৃত্বে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলার শাসনভার গ্রহণ করে।

অপরদিকে পাল সাম্রাজ্য ছিল ভারতীয় উপমহাদেশের পরবর্তী ধ্রুপদি যুগের একটি সাম্রাজ্য। এই সাম্রাজ্যের উৎসস্থল ছিল বাংলা অঞ্চল। পাল সাম্রাজ্যের নামকরণ করা হয় এই সাম্রাজ্যের শাসক রাজবংশের নামানুসারে। প্রাচীন প্রাকৃত ভাষায় এই শব্দটির অর্থ ছিল ‘রক্ষাকর্তা’।  তাদের রাজত্বকালেই প্রাচীন বাংলা ভাষার বিকাশ ঘটে।  খ্রিস্টীয় ১২ শ শতাব্দীতে হিন্দু সেন রাজবংশের পুনরুত্থানের ফলে পাল সাম্রাজ্যের পতন ঘটে। তবে বাংলার ইতিহাসে পাল যুগকে অন্যতম সুবর্ণযুগ মনে করা হয়। বাংলার প্রথম সাহিত্যকীর্তি চর্যাপদ পাল যুগেই রচিত হয়েছিল।

ওই পাল রাজাদের বংশধর ও জোতদারদের কালের বিবর্তে বিদায় ঘন্টার পর রূপগঞ্জের এ ভোলাবো অঞ্চলে  বিনিময় দলিলের মাধ্যমে মুর্শিদাবাদ থেকে এসে প্রায় ২৬টি পরিবার বসবাস শুরু করেন। এ পালবাড়িটি দেশের দর্শনীয় স্থানের একটি ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত