শিরোনাম :
পোল্ট্টির বর্জে দূষিত পরিবেশ, নষ্ট হচ্ছে ক্ষেতের ফসল

পোল্ট্টির বর্জে দূষিত পরিবেশ, নষ্ট হচ্ছে ক্ষেতের ফসল

 পোল্ট্টির বিষাক্ত বর্জে পরিবেশ দূষিত হওয়া সহ নষ্ট হচ্ছে আশেপাশের ফসলি জমি। ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানাধীন নিগুয়ারী ইউনিয়নের চামুর্থা গ্রামের হামিদুল্লাহ ও আবদুল্লাহ হাসান পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া ও প্রশাসনের তোয়াক্কা না করে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে বসতি এলাকায় গড়ে তুলেছেন পোল্ট্টির ফার্ম।
জানা যায় উপজেলার নিগুয়ারী ইউনিয়নের চামুর্থা গ্রামের মৃত আব্দুল বাতেনের ছেলে আবদুল্লাহ হাসান ও হামিদুল্লাহ গং বসতি এলাকায় প্রায় ১২০০০ মুরগি পালন করছেন। এলাকায় পোল্ট্টি করার কোন নিয়ম না থাকলে ও তিনি জনগনের কথা কে উপেক্ষা করে গড়ে তুলেছেন পোল্ট্টির ফার্ম।
পোল্ট্টির বর্জ‌ ফেলার নিদির্ষ্ট জায়গ না থাকায় দেখা দিয়েছে মাত্রাতিরিক্ত পরিবেশ দূষণ। পরিবেশ দূষিত যেন না হয় সেজন্য নিচ্ছেন না কোন প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা। ফার্মের পাশে ফসলি জমিতে ফেলছেন বর্জ। এতে আশেপাশের প্রায় ১০  বিঘা জমির ফসল‌ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন আশেপাশের মানুষসহ স্থানীয় এলাকাবাসী। ফলে প্রতিনিয়ত পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি তারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।
ভুক্তভোগী মজিদা খাতুন জানান,বাড়ির পাশে পোল্ট্টির ফার্ম হওয়ায় দূর্গন্ধে ঠিক মত চলাচল করতে পারিনা।আর যখন বাতাশ আসে তখন ঘরে থাকা যায় না। এমনকি খাওয়ার সময় দূর্গন্ধে বমি আসতে চায়। সবসময় ভাত এবং তরকারীর উপর মাছি এসে বসে।
কুরচাই এম‌ পি এম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আসাদ উল্লাহ বলেন, আমাদের বাড়ির পাশে পোল্ট্টির ফার্ম। পোল্ট্টির সব বর্জ ফসলি জমিতে ছেড়ে দেওয়া হয়। এতে করে ক্ষেতের ফসলের উৎপাদন মারাত্মক ব্যাহত হওয়া সহ পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এ ছাড়া দূর্গন্ধের কারণে স্কুল‌- কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়ে ঠিক মত লেখাপড়া করতে পারছে না।
এ বিষয়ে পোল্ট্টির মালিক হামিদুল্লাহ বলেন, আমি বৈধভাবে আমার জায়গায় পোল্ট্টির ফার্ম তৈরি‌ করেছি। আমার জায়গায় আমি যা খুশি তা করব তাতে অন্যের কি। আমি তাদের খাই না পড়ি। তাদের যদি একান্তই অসুবিধা হয় তবে যা খুশি করতে পারে।
স্থানীয় ইউ পি চেয়ারম্যান জনাব শাহাব উদ্দিন বলেন, এ বিষয়ে গন্যমান্য ব্যক্তি সহ এলাকবাসি তাদের সাথে কয়েকবার সমাধানের চেষ্টা করেছে কিন্তু ভাল কোন ফল পাওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে ভূক্তভুগীরা জানান যে তাহারা গফরগাঁও উপজেলার নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি আবেদন পেশ করেন এবং অতি দ্রুত সুষ্ট সমাধান দাবি করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত