জীবন যাত্রার মান হাতের মুঠোয় এ্যাপস্ এর মাধ্যমে

জীবন যাত্রার মান হাতের মুঠোয় এ্যাপস্ এর মাধ্যমে

কামরুল হাসান রনি : আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিজ্ঞানের সৃষ্টি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে। এক কথায় বলা যায় বর্তমান সময়ে আমাদের জীবন বিজ্ঞানের সৃষ্টি ছাড়া পরিচালনা করা প্রায় অসম্ভব। বর্তমান যুগ বিজ্ঞানের যুগ। বিজ্ঞানের নব নব আবিষ্কার মানুষের জীবনধারাকে আমূল পাল্টে দিয়েছে। মানুষের ব্যবহারিক জীবনে এসেছে যুগান্তকারী পরিবর্তন। প্রাকৃতিক দুর্যোগের হাত থেকে বাঁচার জন্য ও অপদেবতার হাত থেকে মুক্তির জন্য ওঝার কাছে ছোটে না। অন্ধকার থেকে আলোয় ফিরিয়েছে বিজ্ঞান। বিজ্ঞানীদের অনলস সাধনায় আজ আমরা সভ্যতার শীর্ষে উন্নীত হতে পেরেছি। আধুনিক জীবনের চরম উৎকর্ষের এবং অফুরন্ত ঐশ্বর্যের মূলে রয়েছে বিজ্ঞান। সকালের ঘুম ভাঙ্গে এলার্ম ঘড়ির ক্রিং ক্রিং শব্দে, বিছানা ছাড়ার পর যে টুথব্রাশ ও পেষ্ট নিই সেটাও বিজ্ঞানের অবদান। রান্নাঘরের গ্যাস ওভেন, ইলেকট্রিক কেটলি থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনের প্রতিটি সাজ সরঞ্জাম সবই বিজ্ঞানের অবদান। এছাড়া বিনোদনের সামগ্রী রেডিও, টেলিভিশন, খবরের কাগজ, টেলিফোন থেকে শুরু করে টেপরেকর্ডার, ক্যালকুলেটর, সবই বিজ্ঞান দিয়েছে। নানা রকমের আধুনিক যানবাহনের আবিষ্কারের ফলে আমাদের জীবন যাত্রায় এসেছে গতি। দ্রুতগামী বাস, মোটর, ট্রেন, এরোপ্লেন, সবই বিজ্ঞানের অবদান। আজকের কর্মব্যস্ত মানুষ বিজ্ঞান ছাড়া একপাও এগোতে পারে না। প্রযুক্তিবিজ্ঞানের সাহায্যে কৃষিক্ষেত্রে সবুজ বিপ্লব এসেছে। আজকের বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। চিকিৎসায় এসেছে অভূতপূর্ব সাফল্য। দুরারোগ্য কঠিন ব্যাধির চিকিৎসা করে নিরাময় করা হচ্ছে নিত্য নতুন বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতির সাহায্যে। প্রযুক্তিবিজ্ঞানের আবিষ্কার আমাদের রোজকার জীবনযাত্রায় এনেছে অভূতপূর্ব সাফল্য। আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরী মোবাইলের সাহায্যে পথ চলতে চলতেও প্রয়োজনীয় অনেক কাজ করে ফেলা যাচ্ছে। প্রচন্ড গরমেও এসি ঘরে বসে অনেক কঠিন কাজ করে ফেলা সম্ভব হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিজ্ঞানের এক নতুন আবিষ্কার নিয়ে মানুষের দোড় গোড়ায় হাজির হলেন আমাদের বাংলাদেশের একজন। তার আবিষ্কৃত সফ্টওয়্যারটির নাম দিয়েছেন “স্টেটালাইফ”। এই সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের প্রায় সব কাজগুলোই আরও সহজ হয়ে যাবে। বাসা, অফিস এমনকি ইনড্রাস্ট্রিয়াল কাজগুলোতেও এই সফ্টওয়্যারটি ব্যবহার করে দৈনন্দিন কাজগুলো সহজ করা যাবে। ইনড্রাস্ট্রিয়াল সেক্টরে যেভাবে কাজ করবে এই সফ্টওয়্যারটি, একজন দারোয়ান যেভাবে কর্মিদের চিহ্নিত করে গেইট খুলে দেয় ঠিক তেমনি এই সফ্টওয়্যারটি কর্মিদের চিহ্নিত করে গেইট খুলে ও বন্ধ করে দিতে পারবে, শুধু তাই নয় যদি কর্মিদের মধ্যে কোন অপরিচিত মুখ থাকে তবে সাথে সাথে আপনার কাছে তার ছবি সহ ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে দেবে এই সফ্টওয়্যার। আপনি ক্ষুদে বার্তাটি দেখে সম্মতি জ্ঞাপন করলেই তবে সে সাথে সাথে গেইট খুলে দেবে। সাথে হিসেবও থাকবে কয়জন প্রবেশ করলো। গাড়ি প্রবেশ এর ক্ষেত্রেও সফ্টওয়্যারটি একই ভূমিকা পালন করবে। একজন ইলেক্ট্রিশিয়ানের কাজগুলোও এই সফ্টওয়্যার পরিচালনা করবে। যেমন, মটর চালু করা, ফ্যান, লাইট, এসি নিধারিত সময়ে চালু ও বন্ধ করা। কোন প্রকারের যান্ত্রিক ত্রুটি হলে তাৎক্ষনিক তা মেরামত করা। যদি তাৎক্ষনিক মেরামত করতে না পারে তবে সাথে সাথে আপনার কাছে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে দেবে এই সফ্টওয়্যার। বাসা বাড়ির ক্ষেত্রেও এই সফ্টওয়ারটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। যেমন, আপনার অনুপস্থিতিতে রুমে লাইট, ফ্যান, এসি, কম্পিউটার, রুম হিটার, এসি ইত্যাদি চালু থাকলে তা বন্ধ করে দেবে। ধরুন, আপনার রান্না ঘরে গ্যাস লিক করছে, গ্যাস সিলিন্ডারের সাথে সংযুক্ত ডিভাইসটি আপনাকে সাথে সাথে ক্ষুদে বার্তা দিয়ে সতর্ক করে দেবে, শুধু তাই নয়, রান্না ঘরের জানালা খুলে ফ্যান চালু করে দিয়ে রান্নাঘর সহ আপনার পুরো ঘর ঝুঁকিমুক্ত করে আপনাকে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে জানিয়ে দেবে। আপনার ঘরের দরজায় থাকবে সিকিউরিটি লক, সেট করতে পারবেন ফিঙ্গার লক, পিন লক সহ সেট করতে পারবেন একাধিক সিকিউরিটি সিস্টেম। ঘর থেকে অনেক দুরে থেকেও সফ্টওয়্যার এর দ্বারা খুলতে পারবেন ঘরের দরজা। ধরুন আপনি ঘর থেকে অনেক দুরে আছেন, জানতে পারলেন আপনার কোন আত্নীয় এসে বাইরে দাড়িয়ে আছে। আপনি ওখানে বসেই খুলে দিতে পারবেন ঘরের দরজা। আপনি ঘুমোচ্ছেন, আপনার ঘুম থেকে উঠার আগেই আপনার ঘর মুছে পরিস্কার করে রাখবে এই সফ্টওয়্যার দ্বারা পরিচালিত রোবোট। গ্যারান্টি ও ওয়ারিন্টি সহ সফ্টওয়্যারটির সম্পূর্ণ সেবাটি নিশ্চিত অ্যামাজন ও গুগল। সেবাটি জনগনের দোড় গোড়ায় পৌছানোর জন্য জেলা পর্যায়ে ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে। বিস্তারিত সেবা প্রযুক্তির এই নতুন আবিষ্কারটি সংগ্রহ করতে আপনারা আসতে পারেন ঢাকা স্টেটা আইটি লিমিটেড শাহাজাদপুরের প্রগতি স্মরণী’র কনফিডেন্স সেন্টারের ১৪ তলায় ফ্ল্যাট ১৪/বি। সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ তাসদীক ফরিদপুর, বোয়ালমারীর ছেলে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত