আমি দেখেছি বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা -মোঃ শাহ্জাহান চৌধুরী

আমি দেখেছি বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা -মোঃ শাহ্জাহান চৌধুরী

বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ মাতৃকার জন্য যে অনবদ্য অবদান রেখেছেন তা অনস্বীকার্য। অগ্নিঝরা ভাষণ ও আপোষহীন দৃঢ় মনোবল নিয়ে বাঙালির স্বপ্নে লালিত স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে বাংলার মাটি ও মানুষের হৃদয়ে আর ইতিহাসের পাতায় চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন তিনি। বাংলার পাখির গানে, বাতাসের উচ্ছ্বাসে, আকাশের নীলে, জারি-সারি ভাটিয়ালির সুরে, বৈশাখের ভৈরবীতে, বাঙালির হাসি-কান্নায় এবং মিলন-বিরহে আজও তিনি জাগ্রত। নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগই ছিল তার একমাত্র ব্রত। বঙ্গবন্ধু আর ৭১ এর স্বাধীনতা সংগ্রামের দীর্ঘ নয় মাসব্যাপি যুদ্ধ করা মুক্তি সংগ্রামীদের ভুমিকা যে ভুলে যাবে বা অশ্রদ্ধা জানাবে সে দেশ ও জাতির শত্রুদের উত্তরসূরী। ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া নামক এক অজপাড়াগাঁয়ে যে শিশুটি জন্মগ্রহণ করেছিলেন, কালের পরিক্রমায় তিনি হয়ে উঠেছেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা; হাজার বছরের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ বাঙালি; স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের স্থপতি; বাঙালির একমাত্র মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সেই মহান ব্যক্তি এখন শুধু বাঙালির বঙ্গবন্ধু নন, বিশ্ব মানবতার প্রতীক, মুক্তিকামী-স্বাধীনতাকামী-নিপীড়িত-নির্যাতিত মানুষের শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে এক অবিনাশী আলোকবর্তিকা বিশ্ববন্ধু শেখ মুজিব। যে কারণে কিউবার ফিদেল কাস্ত্রো বলেছিলেন, আমি হিমালয় দেখিনি, আমি মুজিবকে দেখেছি। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ, বাংলাদেশ মানেই বিশ্বমানচিত্রে সর্বোচ্চ সংখ্যক আত্মবিসর্জনের স্মারক- লাল-সবুজের পতাকা।

১৯৬০-এর দশকে নানা রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহের মধ্য দিয়ে বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের দাবি স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষায় পরিণতি পায়। ১৯৬৬ সালের ছয় দফা থেকে ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় পর্যন্ত বাঙালির রাজনৈতিক চেতনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দুর্নিবার প্রভাব বিস্তার করেন। ১৯৭১ সালের শুরু থেকে সারা দেশ কার্যত তাঁরই নির্দেশের অধীন হয়ে পড়ে। মার্চ মাসে ঘটনার দৃশ্যপট দ্রুত পাল্টাতে থাকে। স্থগিত করে দেওয়া নবনির্বাচিত জাতীয় পরিষদ নিয়ে আলোচনার জন্য পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঢাকায় আসেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আলোচনার নামে তিনি কালক্ষেপণই করতে থাকেন। একই সময়ে গণহত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে এখানে এসে জমায়েত হতে থাকে পাকিস্তানি সেনারা। আসতে থাকে আগ্নেয়াস্ত্র। ইয়াহিয়ার আলোচনা স্বাভাবিকভাবেই কানাগলিতে গিয়ে পৌঁছায়। পাকিস্তানি সমর-শাসকদের গণহত্যার সব প্রস্তুতি তখন সম্পন্ন। এই প্রেক্ষাপটে ২৫ মার্চ মধ্যরাতে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। সেই সময়ের বাস্তবতা ও নিরাপত্তাজনিত কারণে এই ঘোষণা নথি সংরক্ষণ করা সম্ভব ছিল না। স্বাধীনতার পর নানাজন স্বাধীনতার ঘোষণাটি নিজেদের মতো করে উপস্থাপন করেন। সে বিভ্রান্তি দূর করার জন্য বাংলাদেশ সরকার স্বাধীনতার ঘোষণাটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করে। ২০১৬ সালে প্রকাশিত বাংলাদেশের সংবিধানের উপক্রমণিকায় এ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, ‘অসহযোগ আন্দোলন চলাকালে ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ তারিখে বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকায় রেসকোর্স ময়দানে বাংলার ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জনসভায় এক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বর্ণনা করিয়া স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হইবার ডাক দেন এবং ঘোষণা করেন, “এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”।’

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি বাংলাদেশের প্রথম অন্তর্র্বতীকালীন সংবিধান ও স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র গঠন প্রক্রিয়ার আইনি দলিল হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। ঘোষণাপত্রে ব্যবহৃত মাত্র তিনটি শব্দ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে অসাধারণভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য হিসেবে বলা হয়েছে যে, “বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করণার্থে, সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্ররূপে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা ঘোষণা করিলাম”। অর্থাৎ- গণবিমুখ ও নিপীড়নকামী পাকিস্তানের রাষ্ট্রকাঠামোর মডেল ছুঁড়ে ফেলে যে নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজী রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন সেই রাষ্ট্রের উদ্দেশ্য নির্ণয় করা হয়েছে- বাংলাদেশের জনগণের জন্য সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিত করা। এই ছিল মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক চেতনা। এই চেতনার সফল ও সার্থক বাস্তবায়ন হলো স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্র। বঙ্গবন্ধুর ঘোষণাটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সংবিধানের ষষ্ঠ তফসিলে। বঙ্গবন্ধুর ঘোষণার মূল্যবান দলিলটি সেখানে লিপিবদ্ধ হয়েছে এভাবে। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন করা হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস মুজিবুর রহমান জীবনী নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস যার ফলে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস সৃষ্টি করে ৯ মাস যুদ্ধ করে মুক্তিযোদ্ধারা অর্জন করে স্বাধীন বাংলাদেশ। পরবর্তীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি লাভ করে। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে রাজনিতিক নেতা বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমান নিরঙ্কুশ আসন লাভ করে নিরবাচনে জয়যুক্ত হোন।

তথ্যানুসারে ২৫ মার্চ (রাত ১২টার পর প্রথম প্রহরে) বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করেন। ঘোষণাটি চট্টগ্রামে অবস্থিত তৎকালীন ই.পি.আর এর ট্রান্সমিটারে করে প্রচার করার জন্য পাঠানো হয়।, ২৬ মার্চ স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা এম.এ হান্নান প্রথম শেখ মুজিব এর স্বাধীনতার ঘোষণা পত্রটি মাইকিং করে প্রচার করেন; এর পর ২৭শে মার্চ পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বাঙালি অফিসার মেজর জিয়াউর রহমান চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণাটি শেখ মুজিবর রহমানে পক্ষে পুনরায় পাঠ করেন। সেটি ছিল… (অনুবাদ) ‘মেজর জিয়া, বাংলাদেশ লিবারেশন আর্মির প্রাদেশিক কমাণ্ডার-ইন-চিফ, শেখ মুজিবর রহমানের পক্ষে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করছি। আমি আরো ঘোষণা করছি যে, আমরা শেখ মুজিবর রহমানের অধীনে একটি সার্বভৌম ও আইনসিদ্ধ সরকার গঠন করেছি যা আইন ও সংবিধান অনুযায়ী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যেতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে আমাদের সরকার জোট-নিরপেক্ষ নীতি মেনে চলতে বদ্ধপরিকর। এ রাষ্ট্র সকল জাতীর সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখবে এবং বিশ্বশান্তির জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে। আমি সকল দেশের সরকারকে তাদের নিজ নিজ দেশে বাংলাদেশের নৃশংস গণহত্যার বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান জানাচ্ছি। শেখ মুজিবর রহমানের সরকার একটি সার্বভৌম ও আইনসম্মত সরকার এবং বিশ্বের সকল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের স্বীকৃতি পাবার দাবিদার।’
১৯৭৫ সনে ১৫ আগস্ট সপরিবারে নিসংশভাবে হত্যা হন জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত