গাজীপুরে অবৈধ ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড ব্যবসায় সয়লাভ ; ভোগান্তিতে বৈধ ব্যবসায়ীরা

গাজীপুরে অবৈধ ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড ব্যবসায় সয়লাভ ; ভোগান্তিতে বৈধ ব্যবসায়ীরা

Network switch and ethernet cables,Data Center Concept.

গাজীপুরে অবৈধদের নিয়ন্ত্রনে ইন্টারনেট ব্রডব্যান্ড ব্যবসা স্থানীয় ভাবে অবৈধ ইন্টারনেটের প্রতিষ্ঠানটি যে নাম বা সাইনবোর্ড ব্যবহার করছে, সেই নামে বৈধ আইএসপি লাইসেন্স নেই। তবে চ্যালেঞ্জ করলে তারা নিজেদের ওইসব বৈধ লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানের শাখা অফিস বলে চালিয়ে দেয়।

গোলাম সারোয়ার : ঢাকাসহ সারাদেশে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ। আইএসপি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুলোর সংগঠন আইএসপিএবির তথ্য মতে, আগামী দু-তিন বছরে এর গ্রাহকের সংখ্যা কমপক্ষে পাঁচগুণ বেড়ে যাবে। কিন্তু ফাইবার অপটিক কেবলের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবসার এই সম্ভাবনায় থাবা বসিয়েছে প্রভাবশালী দুষ্টচক্র। এরই মধ্যে ঢাকা, গাজীপুরসহ একাধিক বিভাগীয় ও জেলা শহরে এমন এক চক্র গড়ে উঠেছে, যারা লাইসেন্সবিহীন সহস্রাধিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এ ব্যবসার ৬০ শতাংশই নিয়ন্ত্রণ করছে। এর ফলে সরকার যেমন বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, তেমনি সাধারণ গ্রাহকরাও প্রতারিত হচ্ছেন। দুষ্টচক্রের বেঁধে দেওয়া দাম ও শর্তেই ব্রডব্যান্ড সংযোগ নিতে হচ্ছে গ্রাহকদের। বিটিআরসি সূত্র জানায়, বিভিন্ন অনিয়মের কারণে ধারাবাহিক ভাবে লাইসেন্স পাওয়া অনেক আইএসপি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। অবৈধ ব্রডব্যান্ড ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান চালানোর পরিকল্পনা নিয়েও একাধিক কমিশন সভায় আলোচনা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো অভিযান দেখা যায়নি। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ঘোষনা দিয়ে ছিলেন। ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা শুধু ঢাকায় নয়, ইউনিয়ন পর্যন্ত বিস্তৃত হচ্ছে। সরকারের শুভ উদ্যোগের সুফল যেন সাধারণ মানুষ পায়, তা নিশ্চিত করা হবে। লাইসেন্সবিহীন অবৈধ ব্যবসার বিরুদ্ধেও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বাস্তবতা হচ্ছে উল্টো। এলাকায় কিছু অসাধু নেতাদের মদদে প্রতিনিয়তই তার কাটাকাটি করে বৈধ ব্যবসায়ীদের ক্ষতিগ্রস্ত করছে। প্রশাসনের কো ন সহযোগীর আশা করা যায়না। চলতি বছরের এপ্রিল মাসে আইএসপি এবং পিএসটিএন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ফাইবার অপটিক কেবলে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট। জানুয়ারি মাস ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রেকর্ডসংখ্যক বেড়ে বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০ কোটি ৬৪ লাখ ১০ হাজার। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) হিসাবে, ইন্টারনেট গ্রাহক বেশি বেড়েছে মার্চ মাসে। ফেব্রুয়ারি শেষে ইন্টারনেট গ্রাহক ছিল ১০ কোটির কিছু কম। মার্চে তা ৩২ লাখ বেড়েছে। সংশ্নিষ্ট সূত্রমতে, বর্তমানে ২৮৮টি বৈধ আইএসপি লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠান আছে। বিটিআরসি মূলত তাদের দেওয়া গ্রাহক তথ্যই প্রকাশ করে। তবে অবৈধ প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও সারাদেশে অনেক- দুই হাজারের বেশি এবং এদের গ্রাহকসংখ্যা প্রায় এক কোটি। এই গ্রাহকরা বছরের পর বছর বিটিআরসির তথ্যের বাইরেই থাকছেন। বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী চারটি বৈধ আইএসপি লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ ব্যবসায়ীদের দুষ্টচক্র। এদের মধ্যে মূল নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় রয়েছে দুটি প্রতিষ্ঠান। এর একটি প্রতিষ্ঠানের নামের শুরু ‘সি’ দিয়ে, শেষ ‘এল’ দিয়ে। আরেকটি প্রতিষ্ঠানের শুরু ‘কে’ দিয়ে, শেষ ‘এস’ দিয়ে। প্রথম প্রতিষ্ঠানের নামের শেষে ‘আইটি’ এবং দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠানের নামের শেষে ‘অনলাইন’ শব্দটি যুক্ত রয়েছে। অবৈধ ব্যবসার ক্ষেত্রে মূলত এ দুটি প্রতিষ্ঠানের বৈধ লাইসেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে। এ বিষয়টি বিটিআরসিসহ আইএসপি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে ওপেন সিক্রেট হলেও, দুষ্টচক্রটি অত্যন্ত প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ আনুষ্ঠানিক ভাবে অভিযোগ করতে সাহস পাচ্ছে না। একাধিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা এবং বিটিআরসি সূত্রও এ দুটি প্রতিষ্ঠানের অবৈধ ব্যবসার নেটওয়ার্ক সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছেন। সূত্রের তথ্যানুযায়ী এ দুটি প্রতিষ্ঠান গ্রাহক পর্যায়ে সংযোগ না দিয়ে কৌশলে তাদের লাইসেন্স ব্যবহারের সুযোগ দিচ্ছে ঢাকা, গাজীপুর, সাভার ও কেরানীগঞ্জের পাঁচ শতাধিক অবৈধ প্রতিষ্ঠানকে। তারা অবৈধ প্রতিষ্ঠান গুলোর কাছ থেকে প্রতি মাসে লাইসেন্স এবং প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার বাবদ নির্দিষ্ট হারে ভাড়া আদায় করছে। বিটিআরসি সূত্র জানায়, একাধিকবার মাঠ পর্যায়ে অভিযান পরিচালনা করতে গিয়ে দেখা গেছে, স্থানীয় ভাবে ইন্টানেটের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানটি যে নাম বা সাইনবোর্ড ব্যবহার করছে, সেই নামে বৈধ আইএসপি লাইসেন্স নেই। তবে চ্যালেঞ্জ করলে তারা নিজেদের ওইসব বৈধ লাইসেন্সধারী প্রতিষ্ঠানের শাখা অফিস বলে চালিয়ে দেয়। বর্তমানে ব্রডব্যান্ড সেবায় প্রায় ২৪০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ ব্যবহূত হচ্ছে। এর মধ্যে দুটি প্রভাবশালী প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্বে থাকা চারটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সেবাদানে ব্যবহূত ব্যান্ডউইথের পরিমাণ প্রায় ১৫০ জিবিপিএস। এতে করে বাকি প্রায় ২৮৪টি বৈধ প্রতিষ্ঠান মিলে সেবা দিতে পারছে মাত্র ৯০ জিবিপিএস। এই ৯০ জিবিপিএস সেবার গ্রাহকদের কাছ থেকে সরকার রাজস্ব পাচ্ছে। কিন্তু ১৫০ জিবিপিএস থেকে সরকার রাজস্ববঞ্চিত থাকছে।

গ্রাহকের দুর্ভোগ : দেশের প্রতিষ্ঠিত ও বড় বড় আইএসপি প্রতিষ্ঠান কিছু বড় করপোরেট প্রতিষ্ঠান গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় দুষ্টচক্র দিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছে। কিন্তু এই দুষ্টচক্রের চাপে অন্য কোথাও গ্রাহক পর্যায়ে কার্যত কোনো সেবা দিতে পারছে না। অন্যদিকে রাজধানী ও রাজধানীর উপকণ্ঠে স্থানীয় মাস্তানদের এলাকা ভাগ করে দিয়ে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সিন্ডিকেটের চক্রটি। গাজীপুরের কাপাসিয়া, শ্রীপুর, কালিয়াকৈর ,কালিগঞ্জের পাড়া মহল্লায় ছোট ছোট করে প্রায় ৫০০ অধিক স্থানীয় অবৈধ আইএসপি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে এ চক্রের তত্ত্বাবধানে। প্রতিটি এলাকার অবৈধ ভাবে সংযোগ নেওয়া গ্রাহকদের কাছ জানা যায়, তারা অত্যন্ত নিম্নমানের সেবা পাচ্ছেন। গ্রাহকরা আরো জানান, তাদের তিন এমবিপিএস সক্ষমতা সেবা দেওয়ার কথা বলা হলেও প্রকৃতপক্ষে এক এমবিপিএস সক্ষমতার সেবাও পাচ্ছেন না। বিশেষ করে আপলোডের ক্ষেত্রে কখনও কখনও গতি একশ’ কেবিপিএসও পাওয়া যায় না। ডাউনলোডের ক্ষেত্রেও বেশির ভাগ সময় পাঁচশ’ কেবিপিএসের বেশি গতি পাওয়া যায় না। গাজীপুরের কাপাসিয়ার গ্রাহকদের কাছ থেকেই এমন তথ্যই পাওয়া যায়। এই বখাটে, মাস্তানচক্রটি রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবশালী লোকদের ব্যবহার করে বৈধ ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিসাধন ও হয়রানি করছে। আইএসপিএবির বক্তব্য : ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুলোর সংগঠন আইএসপিএবির নেতৃবৃন্দরা বলেন, যখন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা জনপ্রিয় হচ্ছে, দ্রুত গ্রাহক বাড়ছে, সে সময় অবৈধ ব্যবসার দাপট বড়ই হুমকি। এ বিষয়ে একাধিকবার বিটিআরসির সঙ্গে আইএসপিএবির আলাপ হয়েছে। তারা এ ব্যাপারে বিটিআরসির কাছে কার্যকর ব্যবস্থা প্রত্যাশা করছেন। লীড টেকনোলজির বক্তব্য লীড টেকনোলজির স্বত্বাধিকারী গোলাম শাহরিয়ার এই প্রতিবেদককে বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অন্যতম অংশ হিসেবে আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় নিরলস ভাবে সেবা প্রদান করছি। ইতোমধ্যে আমি উল্লেখিত উপজেলার সরকারী বে-সরকারী সকল প্রতিষ্ঠান ও জনসাধারণের নিকট ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা বিশেষ ভাবে প্রশংসা অর্জন করে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। আমি সরকারকে নিয়মিত ভ্যাট-ট্যাক্স দিয়ে বৈধতার সহিত ব্যবসা পরিচালনা করি। কিন্তু এলাকার একটি সংঘবদ্ধচক্র রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবশালী লোকদের ব্যবহার করে বৈধ ব্যবসায় বিভিন্ন ভাবে বাধাঁ প্রদান ও হয়রানি করছে। রাতের অন্ধকারে গ্রাহকদের লাইন কেটে, লাইনের সমস্যা করে আমার কাছ থেকে গ্রাহক নিয়ে যাচ্ছে। এলাকার কিছু বখাটে ও সন্ত্রাসী দ্বারা জোর পূর্বক, লোকজনদের ফুসলিয়ে, আমার ক্যাবল কেটে গ্রাহকদের সংযোগ নিতে বাধ্য করে। সরকারকে ভ্যাট-ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে অবৈধ ভাবে সুদসহ বিভিন্ন ব্যবসা করে কালো টাকার পাহাড় বানাচ্ছে এবং তারা আইনের অন্তরালেই থেকে যাচ্ছে ৷ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সহযোগিতা চেয়ে ও কোন সুফল পাচ্ছিনা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত