অবশেষে ৩০ বছর পর নখ কাটলেন তিনি

অবশেষে ৩০ বছর পর নখ কাটলেন তিনি

প্রায় ৩০ বছর ধরে নখ কাটেন না তিনি। আর তাতেই বিশ্বের সবচেয়ে বড় নখের অধিকারী হিসেবে গিনেজ বুকে নাম উঠেছে। অবশ্য চার বছর আগেই বিশ্বের সবচেয়ে বড় নখের মালিক হওয়ার রেকর্ড গড়েছিলেন মার্কিন নাগরিক আয়ান্না উইলিয়ামস। খবর সিএনএনের।

টেক্সাসের হিউসটনের বাসিন্দা আয়ান্নার নখ যখন ২০১৭ সালে মাপা হয় তখন সেটা প্রায় ১৯ ফুট লম্বা ছিল। যা গিনেজ বুকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় নখ হিসেবে রেকর্ড হয়। তবে সম্প্রতি যখন নখ কাটলেন আয়ান্না সেটা তার আগের রেকর্ডকেও ছাপিয়ে গিয়েছে।

এত দীর্ঘ নখের যত্নে খরচও হতো অনেক টাকা। নখ পালিশ করতে দুই বোতলের বেশি নেইল পলিশ লাগতো আয়ান্নার। আর ম্যানিকিউর করতে লাগতো ২০ ঘণ্টা। সেই দীর্ঘ নখ সপ্তাহান্তে কেটে ফেলেছেন মার্কিন এই নারী।

অবশ্য নখ কাটার আগে আরেক মেপে দেখেছেন যে, তার নখ কতটা বড় হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, তার নখের মাপ হচ্ছে ২৪ ফুট ০.৭ ইঞ্চি। আর এই দীর্ঘ নখ পরিচর্যা করতে কয়েকদিন লাগতো। সঙ্গে লাগতো তিন থেকে চার বোতল নেইল পলিশ।

টেক্সাসের ফোর্ট ওর্থের ডার্মাটোলজি অফিসে নিজের নখ কাটান আয়ান্না। সেখানে একটি ইলেকট্রিক রোটারি টুল দিয়ে তার নখ কাটা হয়। ১৯৯০-র দশকের শুরুর দিকে শেষবারের মতো নখ কেটেছিলেন আয়ান্না।

নখ কাটার পর আয়ান্না বলেন, নখ থাকুক বা না থাকুক আমি রাণীই থাকবো। আমার নখ আমাকে তৈরি করেনি, আমি নখকে তৈরি করেছি। রিপলস বিলিভ ইট অর নট! জানিয়েছে, এখন নখ আর ৬ ইঞ্চির বেশি বড় করতে চান না আয়ান্না। ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে নিজেদের জাদুঘরে আয়ান্নার নখ প্রদর্শনী করবে রিপলস বিলিভ ইট অর নট!

এত বড় নখ থাকার কারণে এতদিন ধরে অনেক কাজই স্বাভাবিকভাবে করতে পারতেন না আয়ান্না। যেমন বাসন-কাসন ধোয়া এবং বিছানার চাদর বিছানোর মতো কাজ করতে পারতেন না তিনি। এখন অন্য যারা নখ বড় করতে চায় তাদের উৎসাহ দিতে চান আয়ান্না। যাতে তারা রেকর্ড গড়তে পারেন।

উল্লেখ্য, বিশ্বের সবচেয়ে বড় নখের রেকর্ডধারী এখনও লি রেডমন্ড। তিনি ১৯৭৯ সাল থেকে তার নখ বড় করা শুরু করেন। কিন্তু ২০০৯ সালে এক গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা যান রেডমন্ড। তখন তার নখের দৈর্ঘ্য হয়েছিল ২৮ ফুট বলে জানিয়েছে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত