শিরোনাম :
ইসলামের বিধান অনুযায়ী শিশুদের জন্য রোজা -মুহাম্মদ নাফিউল আযিযুন

ইসলামের বিধান অনুযায়ী শিশুদের জন্য রোজা -মুহাম্মদ নাফিউল আযিযুন

ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম সেরা হলো সাওম পালন। “সাওম ” আরবি শব্দ। এর অর্থ বিরত থাকা। শরিয়তের পরিভাষায় সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিয়তের সাথে পানাহার ও ইন্দ্রিয় তৃপ্তি থেকে বিরত থাকাকে সাওম বা রোজা বলে। রমজান মাসে রোজা পালন করা মুসলমানদের ওপর ফরজ। যে তা অস্বীকার করবে, সে কাফির হবে। মহান আল্লাহ্ তা-য়ালা বলেছেন, ‘হে ইমানদারগণ, তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হলো, যেমন ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী উম্মতগণের ওপর, যেন তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পার।’ ( সুরা আল-বাকারা, আয়াত ১৮৩)

সাওম পালনের মাধ্যমে বান্দা আল্লাহ’র নির্দেশ পালন করে। অপরদিকে তার নৈতিকতারও বিশেষ উন্নয়ন ঘটায়। সাওম পালনে যে শিক্ষা আমরা পাই, তা হলো :

১.সংযম : রোজা মানুষকে সংযম শিক্ষা দেয়। জীবনের সর্বক্ষেত্রে শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার জন্য মানুষের স্বীয় প্রবৃত্তিকে সংযমের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণে রাখা প্রয়োজন। রমজানে সাওম অবাধ স্বাধীনতা, খাদ্যবিলাসিতা ও স্বেচ্ছাচারিতাকে নিয়ন্ত্রণ করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বৈধ পানাহার ও অন্যান্য জৈবিক চাহিদা থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকার শিক্ষা দেয়।

২. সহমর্মিতা : ধনী- গরিব, রাজা-প্রজা, সকল মুমিন বান্দা সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকার প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ক্ষুধার জ্বালা বুঝতে পারে। রোজাদার ব্যক্তির দ্বারে যখনই কোন অনাহারী অভুক্ত মানুষ আসবে, তখন অবশ্যই তার মনে দয়া বা সহমর্মিতা সৃষ্টি হবে। আমাদের প্রিয় নবী রাসুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে, তা তার জন্য গুনাহ মাফ ও জাহান্নাম থেকে মুক্তির কারণ হবে। ‘ সমাজের সকল স্তরের মানুষের মধ্যে আন্তরিকতা ও সহানুভূতিশীলতা সাওম পালনের মাধ্যমে যতটা বৃদ্ধি পায়, অন্য কোন ইবাদতের মাধ্যমে তা হয় না।

৩. সহিষ্ণুতা বা ধৈর্য্য: প্রকৃতিগতভাবে মানুষের অন্তর থাকে অস্থির ও চঞ্চল। মানুষের এই অস্থিরতা ফলে নিজ ইচ্ছামত কাজ করলে সমাজে বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা থাকে। এক মাত্র ধৈর্যের মাধ্যমে মনের কু-প্রবৃত্তিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনাই এই ধৈর্য্য শিক্ষার শ্রেষ্ঠ মাধ্যম। রোজা পালনকারী দিনের বেলায় ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও কিছু পানাহার এবং অন্যায় কাজ করে না। তাই সহিষ্ণুতা মুমিনের এক বিশেষ গুণ।

ইসলাম ধর্মে ১৪ বছর বা সাবালকত্ব হওয়ার পর থেকেই প্রত্যেকের জন্য রোজা রাখার নিয়ম রয়েছে। এর কম বয়সী শিশুদের রোজা বাধ্যতামূলক নয়। কাজেই ১৪ বছর বয়স থেকেই আমরা ইসলামের বিধান অনুযায়ী সাওম পালন করব। তাহলে ১৪ বছরের আগে আমরা কিভাবে রমজান মাস অতিবাহিত করতে পারি ?। সেক্ষেত্রে শিশুরা পানাহারে বিরত না থেকেও সাওমের অন্যান্য কাজগুলি পালন করতে পারে, যেমন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়া, কটু কথা না বলা, ছোট-বড় কারোর সাথে রাগ না করা । যেহেতু রমজান মাসে আমাদের স্কুলে ছুটি থাকে, তাই বলে এই সময়টা ছুটির আমেজে না কাটিয়ে সাওমের শিক্ষা অনুযায়ী সুশৃঙ্খলভাবে পালন করা উচিত। যেমন, মা-বাবার কাজে সাহায্য করা, ছুটির পড়া তৈরি করা, সবার সাথে একসঙ্গে ইফতার করা, ইফতারের পূর্ব দোয়ায় অংশগ্রহণ করা এবং নিয়মিত পবিত্র কোরআন মজিদ তিলোয়াত করা।

এছাড়া বড়দের কাছ থেকে রমজান মাসের গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে জানব, এ মাসের বেঁচে যাওয়া টিফিনের খরচ দুঃস্থদের মাঝে বিলিয়ে দিব এবং ইফতারের সময় আমাদের প্রতিবেশী কেউ অভুক্ত থাকলে তার সাথে খাবার ভাগ করে নিব। এভাবে পূর্ণ এক মাস এই সংযম মেনে চলার প্রশিক্ষণ আমাদের গোটা বছর সংযমী হয়ে চলতে সাহায্য করবে। এতে একদিকে যেমন রক্ষা হবে ইমান, তেমনি ওপরদিকে শান্ত হবে পরিবার ও সমাজ।

লেখক: মুহাম্মদ নাফিউল আযিযুন, সপ্তম শ্রেণী, ফাউন্ডেশন স্কুল-লালমাটিয়া, ঢাকা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত