চাঁদের অবিশ্বাস্য ছবি তুলে চমকে দিলো কিশোর!

চাঁদের অবিশ্বাস্য ছবি তুলে চমকে দিলো কিশোর!

রাতের আকাশ চাঁদের আলো ছাড়া সৌন্দর্যহীন। বিশাল আকাশের বুকে এক ফালি চাঁদের সৌন্দর্য মুহূর্তেই সবার মনকে ভালো করে দিতে পারে। চাঁদ এবং তার সৌন্দর্যে সবাই মুগ্ধ। পাশাপাশি অনুসন্ধিৎসুও বটে।

সেই কৌতূহল থেকেই একের পর এক চাঁদের ছবি তুলে বিশ্বকে চমকে দিয়েছেন এক কিশোর। প্রথমেশ জাজু নামের পুণের ১৬ বছরের এই কিশোর বাড়িতে বসে চাঁদের একের পর এক ছবি তুলেছেন ৷ অসংখ্য ভিডিও করেছেন।

তবে সে কখনো ভাবতে পারেনি, তার তোলা ছবিই হৈ-চৈ ফেরে দেবে! তার ছবি থেকে যা পাওয়া গেল; তা এক কথায় অনির্বচনীয়! প্রথমেশ জানান, তিনি প্রায় ৫৫ হাজারেরও বেশি ছবি তুলেছেন চাঁদের।

৩-৪ ঘণ্টা ধরে চাঁদের বিভিন্ন অঞ্চলের ভিডিও করেছেন। এ ছাড়াও বিপুল পরিমাণ ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমেই এমন ছবি পাওয়া সম্ভব হয়েছে ৷ এই কাজ করতে গিয়ে তার ল্যাপটপও খারাপ হওয়ার পথে ছিল।

শুধু চাঁদের ছবিই নয় বরং চাঁদের বিভিন্ন অঞ্চলের একাধিক ভিডিও করেন প্রথমেশ। তিনি জানান, এরপর সেগুলোকে স্টেবিলাইজ করি। তারপরে প্রতিটি ভিডিও একটি ছবিতে মার্জ করি। এর মধ্যে থেকে ৩৮টি ছবি পাই।

চাঁদের বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও করতে প্রথমেশ বিভিন্ন ধরনের ক্যামেরা লেন্স ও প্রযুক্তি ব্যবহার করেন। তিনি জানান, এই ছবিগুলি তুলতে ব্যবহার হয়েছে Celestron 5 Cassegrain OTA (telescope), ZWO ASI120MC-S সুপার স্পিড USB camera, SkyWatcher EQ3-2 tripod/mount এবং GSO 2X BARLOW লেন্স।

প্রথমেশের এই ছবিগুলো আগামী দিনে চাঁদের ছবি নিয়ে কাজ করার সময় প্রয়োজন হবে বলে অভিজ্ঞরা আশাবাদী। সম্প্রতি প্রতমেশ তার তোলা চাঁদের অবিশ্বাস্য এই ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছেন। আর তাতেই নেটদুনিয়ায় প্রশংসায় ভাসছেন প্রথমেশ।

ভবিষ্যতে একজন জ্যোতির্দি হওয়ার স্বপ্ন দেখেন ১৬ বছরের প্রথমেশ। দিন-রাত আকাশ, চাঁদ, তারা, গ্রহ, উপগ্রহ নিয়েই যত ভাবনা ও কৌতূহল তার মনে। ইউটিউব দেখেই প্রথমেশ শিখেছেন কীভাবে চাঁদের ছবি তুলতে হয়।

এ ছাড়াও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পরীক্ষা-নীরিক্ষার মাধ্যমে অবশেষে সফল হয়েছেন প্রথমেশ। তার এই অর্জন ভবিষ্যতে অনেক কাজে লাগবে ও কাজের প্রতি উৎসাহ বাড়াবে বলে জানান তিনি।

সূত্র: রিপাবলিক ওয়ার্ল্ড/ইন্ডিয়া টুডে

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত